বাঁচাইতে হইবে নদনদী জলাশয়

0
280

আমাদের দেশ পলিবিধৌত নদীমাতৃক ব-দ্বীপ অঞ্চল। কিন্তু বিগত প্রায় পাঁচ দশকে আমাদের সুন্দর-সুন্দর নামের নদীসমূহ আর সুন্দর নাই। অনেক নদী হারাইয়া গিয়াছে, অনেকগুলি পরিণত হইয়াছে কুিসত ভাগাড়ে। নদী হারাইয়া যাইবার ফলে ধ্বংস হইতেছে জীববৈচিত্র্য। নষ্ট হইতেছে পরিবেশ ও প্রতিবেশ। বদলাইয়া যাইতেছে দেশের ভূ-প্রকৃতির চিত্র। নদী গবেষকদের মতে, ব্রিটিশ আমলে বাংলাদেশে নদ-নদীর (উপনদী-শাখা নদীসহ) সংখ্যা ছিল সহস্রাধিক। গত শতাব্দীর ষাটের দশকে বাংলাদেশে নদী ছিল সাড়ে সাত শতাধিক। বর্তমানে ইহার সংখ্যা কমিয়া দাঁড়াইয়াছে মাত্র ২৩০টিতে। ইহার অর্থ হইল—৫০ বত্সরে হারাইয়া গিয়াছে ৫২০টির অধিক নদী। জানা যায়, বর্তমানের ২৩০ নদীর মধ্যে ৫৯টি আন্তর্জাতিক। ইহার মধ্যে ৫৪টি ভারত হইয়া বাংলাদেশে প্রবেশ করিয়াছে। বাংলাদেশের প্রধান নদ-নদীর বাহিরে স্থানীয় ছোট নদীসমূহকে চিহ্নিত করিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড যে তথ্য দিয়াছে, তাহা উইকিপিডিয়ার সূত্রে জানা যায়—স্থানীয় নদীর সংখ্যা মাত্র ৪০৫টি। সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, এইসব নদীর বেশিরভাগই শুষ্ক মওসুমে শুকাইয়া যায়। ফলে নাব্যতা হারাইতে হারাইতে এই নদীগুলি পড়িয়াছে বিচিত্র ধরনের দখলদারদের হাতে। আর স্বাভাবিকভাবেই মানচিত্র হইতে বিদায় লইতেছে অসংখ্য নদী ও ছোট বড় জলাশয়।

প্রতি বত্সর হিমালয় হইতে যে পলি দেশের ওপর দিয়া বর্ষাকালে বহিয়া যায়, তাহা ফেলিয়া যায় এক শত ৪০ কোটি টন পলিমাটি। ইহাতে নদী-খাল-বিলের তলদেশ ভরাট হইতে থাকে। পৃথিবীর কোনো নদীই প্রাকৃতিক অবস্থায় অভিন্ন চরিত্র অনুসরণ করিয়া প্রবাহিত হয় না—চর পড়িবে, নদীখাত পরিবর্তন হইবে, নদীতে ভাঙন আসিবে—এইসকল প্রাকৃতিক বিষয়ও স্বাভাবিক। কিন্তু ইহাতে মনুষ্যসৃষ্ট বিবিধ কারণ যুক্ত হইলেই বিপদ দেখা দেয়। বন্যা নিয়ন্ত্রণ নামে যত্রতত্র বাঁধ দিয়া পানি নিয়ন্ত্রণ করিবার ফলে নদী-নালার পাশাপাশি আজ খাল, বিল, জলা, পুকুর পানিশূন্য হইয়া পড়িতেছে। সুতরাং নদীর প্রবাহ ঠিক রাখিতে সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করিয়া নদী ড্রেজিং করিবার বিকল্প নাই। অন্যদিকে বর্তমান সরকার পুকুর ও খাল উন্নয়নে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করিয়াছে। এই উন্নয়ন বাবদ বরাদ্দ দেওয়া হইতেছে এক হাজার ৬০০ কোটি টাকা। এই সকল প্রকল্প যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করিতে হইবে।

আদি যুগে সহজ যোগাযোগের কারণেই নদীতীরে সভ্যতা গড়িয়া উঠিত। বাংলাদেশে সত্তরের দশকেও নদীপথেই প্রধানত পণ্য পরিবহন হইত। স্বাধীনতার পূর্বে নৌপথ ছিল ২৮ হাজার কিলোমিটার। নদী বিশেষজ্ঞদের হিসাব অনুযায়ী, গত ৪৪ বত্সরে দেশে প্রায় ২২ হাজার কিলোমিটার নদীপথ বিলুপ্ত হইয়া গিয়াছে। এই অবস্থা অব্যাহত থাকিলে ২০৫০ সাল নাগাদ দেশে নদীপথের অস্তিত্ব প্রায় শূন্যের কোঠায় চলিয়া যাইবে। পরিবেশ, প্রতিবেশ, জীববৈচিত্র্য, জীবিকা—কত দিক হইতেই না ক্ষতির শিকার হইতেছে নদীমাতৃক এই দেশের কোটি কোটি মানুষ। সুতরাং যেভাবেই হউক, বাঁচাইতে হইবে বাংলাদেশের নদনদী-জলাশয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here