বাঁশ কাহিনী : যে কোন সময় ভেঙ্গে পড়তে পারে যশোর সদর হাসপাতালের পুরাতন সার্জারি ও মেডিসিন ওয়ার্ড

0
1777
যশোর সদর হাসপাতালের পুরাতন সার্জারি ও মেডিসিন বিভাগের ছাদ ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম। এই মহুর্তে ভবন ধ্বস ঠেকাতে হাসপাতাল কতৃপক্ষ ব্যবহার করছে বাশ-ছবিটি তুলেছেন বেলাল হোসেন বনি।

ডি এইচ দিলসান : ভয়াবহ ফাটলের মুখে যশোর সদর হাসপাতালের পুরাতন পুরুষ সার্জারি বিভাগ। যে কোন সময় বিল্ডিংটি ধ্বসে পড়ে ঘটে যেতে পারে বড় ধরনের প্রাণ হানির ঘটনা। এ দিকে ছাদের ফাটল ঠেকাতে

ব্যবহার করা হচ্ছে আস্তো আস্তো বাঁশ। আর এই বাশের ব্যবহার দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে সাধারন রোগীরা।

এই বিল্ডিংটির নিচতলায় সার্জারি ও অর্থো এবং দ্বিতীয় তলায় মেডিসিন ওয়ার্ড। নিচে ৩০টি বেড, দ্বিতীয় তলায় ৭০টি। রোগীর স্বজন মিলে ওখানে সবসময় প্রায় ১৫০ লোকের অবস্থান।
ম্যাগপাই নিউজের হাসপাতাল রিপোর্টার বেলাল হোসেন বনি বলেন, শনিবার দুপুরে এসে দেখি ছাদের ফাটল ঠেকাতে বাশের খুটি দিচ্ছে। তিনি বলেন যদি ছাদ ভেঙে পড়ে তাহলে অনেক মানুষের প্রাণহানি ঘটবে ।
কর্তব্যরত সেবিকারা আতঙ্কে এই ওয়ার্ডে আসতে ভয় পাচ্ছেন, তারা বলছেন প্রাণের ঝুকি নিয়ে কাজ করতে পারবো না।
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. একেএম কামরুল ইসলাম বেনু ম্যাগপাই নিউজকে বলেন গত রোজার ঈদের দুইদিন আগে হাসপাতালের নিচ তলার ছাদে ফাটল দেখা দিলে আমি ইঞ্জিনিয়ারকে ফোন করি। ইঞ্জিনিয়ার তখন বেনাপোলে ছিলেন। তিনি বেনাপোল থেকে সরাসরি হাসপাতালে এসে পুরো বিল্ডিং পরিদর্শন করেন। আমি তাকে ঢাকায় জরুরী ভিত্তিতে রিপোর্ট করতে বলি। আজ শনিবার ফাটলের জায়গাটা এবং দ্বিতীয় তলার গ্রিলের একাংশ বসে যাওয়ায় অবস্থা বেগতিক দেখে গণপূর্ত বিভাগকে অবহিত করেছি। দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য তারা দশটি বাঁশের খুঁটি দিয়ে ঠেকনা দিয়েছে। পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঢাকায় রিপোর্ট করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য ১৯৫৬ সালে এই বিল্ডিংটি তৈরি। যশোরের বিশিষ্ট সমাজসেবক আহাদ সাহেব পুরনো বিল্ডিংয়ের ওপর দ্বিতীয় তলা করে দেন।’

যশোর সদর হাসপাতালের পুরাতন সার্জারি ও মেডিসিন বিভাগের ছাদ ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম। এই মহুর্তে ভবন ধ্বস ঠেকাতে হাসপাতাল কতৃপক্ষ ব্যবহার করছে বাশ-ছবিটি তুলেছেন বেলাল হোসেন বনি।

 

 

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here