বাংলাদেশকে আমন্ত্রণে অনীহা কেন ভারতের?

0
6

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে প্রতি বছর একজন করে বিদেশি রাষ্ট্রপ্রধানকে প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানায় দেশটির সরকার। ১৯৫০ সাল থেকে চলে আসছে এ রীতি। এ তালিকায় স্থান পেয়েছে ভারতের চিরশত্রু পাকিস্তান, এমনকি চীনও। তবে এখন পর্যন্ত এ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্রপ্রধানকে। কিন্তু কেন?

ভারতের সাধারণতন্ত্র বা প্রজাতন্ত্র দিবস ২৬ জানুয়ারি। এ বছর ৭৪তম প্রজাতন্ত্র দিবস পালন করছে দেশটি। ১৯৪৭ সালে দেশ স্বাধীন হলেও, ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি ভারতীয় গণপরিষদে সংবিধান কার্যকরী হলে ভারত একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হয়। যদিও কার্যকরী হওয়ার ঠিক দুই মাস আগে, ১৯৪৯ সালের ২৬ নভেম্বর গণপরিষদে ভারতের সংবিধান অনুমোদিত হয়।

প্রজাতন্ত্র দিবসের প্রধান অতিথি কে হবেন, দীর্ঘ আলোচনার পরই সেই সিদ্ধান্ত নেয় ভারত সরকার। এক্ষেত্রে নিজেদের কূটনৈতিক স্বার্থকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয় দেশটি। বিবেচনায় রাখা হয় ভারতের সঙ্গে তার প্রতিবেশি দেশগুলোর রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং বাণিজ্যিক সম্পর্কসহ নানা বিষয়। আর এসব ক্ষেত্রে ঢাকা-দিল্লির বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা কারও অজানা নয়। কিন্তু তা সত্বেও প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্রপ্রধানকে আমন্ত্রণ জানানোর বিষয়ে রহস্যজনকভাবে উদাসীন ভারত।

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে বিদেশি অতিথিদের তালিকায় ঠাঁই পাওয়াদের মধ্যে আছেন কঙ্গো, টোবাগো, জাম্বিয়ার রাষ্ট্রপ্রধানও। সবচেয়ে বেশি (পাঁচ বার) যোগ দিয়েছেন ফ্রান্সের রাষ্ট্রপ্রধান। চার বার করে যোগ দিয়েছে ভুটান ও রাশিয়ার রাষ্ট্রপ্রধান।

দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতের চিরশত্রু পাকিস্তানও যোগ দেয়ার সুযোগ পেয়েছে দুবার। সীমান্তে প্রতিনিয়ত রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হয় যাদের সঙ্গে, সেই চীনও আমন্ত্রণ পেয়েছে একবার। এছাড়াও শ্রীলঙ্কা দুবার, মিয়ানমার, মালদ্বীপ, আফগানিস্তান, কাজাখাস্তানের মতো দেশ যোগ দিয়েছে একবার করে।

এই কুচকাওয়াজে একাধিক রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানকে ‘গেষ্ট অব অনার’ করার নজিরও আছে। যেমন ২০১৭ সালে গেষ্ট অব অনার করা হয় ছয় জনকে। এছাড়া এর পরের বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালে রেওয়াজ ভেঙে প্রজাতন্ত্রের অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল মিয়ানমারের অং সান সু চি’সহ আসিয়ানভুক্ত ১০টি রাষ্ট্রের নেতাদের।

কিন্তু সবচেয়ে ‘ঘনিষ্ঠ বন্ধু’র খেতাব পাওয়া বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্রপ্রধানকে ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে কখনোই আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। স্বাভাবিকভাবেই তাই প্রশ্ন উঠছে, যে দেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে ভারত সক্রিয় অংশ নিয়েছিল, যে দেশকে ভারত ‘সবচেয়ে বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য প্রতিবেশীর’ স্বীকৃতি দেয়, সেই দেশের রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রীকে প্রজাতন্ত্র দিবসে বিশেষ অতিথির মর্যাদা কেন দেয়া হয়নি? বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের রোল মডেল, সেখানে দেশটির রাষ্ট্রপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানাতে ভারতের এ অনীহার কারণ কী?
সার্কের সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশ ছাড়া সবাই ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের অতিথি হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নিরাপদ ‘সেভেন সিষ্টার্স’ বাংলাদেশ সরকারেরই অবদান। এছাড়া ভারতকে আরও নানা ক্ষেত্রে ধারাবাহিকভাবে সহযোগিতা করে আসছে বাংলাদেশ। অনেকেই তাই প্রশ্ন তুলছেন, এতকিছুর পরও ঢাকার প্রতি এই অবহেলা কেন? ভূরাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে ভারত কি বাংলাদেশকে তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করে? নাকি হিংসাত্মক মনোভাব থেকেই বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্রপ্রধানকে প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি করা হয় না?

২০১৯ সালে ভারতের দিল্লিতে অনানুষ্ঠানিক এক বৈঠকে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়েছিল সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও ভারতের তৎকালীন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের কাছে। কিছুটা এড়িয়ে গিয়ে তিনি তখন বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশ হয়নি (অতিথি), হবে’।

জানা গেছে, দৈনিক প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান, ইংরেজী দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম এবং টেলিভিশন ও পত্রিকার আরও আট জন প্রধান ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। তবে সেখানে তাদের কেউই বিষয়টি (প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধানকে আমন্ত্রণ না জানানো) নিয়ে আলোচনা করতে তেমন আগ্রহ না দেখানোয়, কথা আর এগোয়নি। অনানুষ্ঠানিক ওই বৈঠকে প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান ও ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম ভারতের তৎকালীন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের সঙ্গে তাদের পুরনো স্মৃতি রোমন্থনে ব্যস্ত ছিলেন বলেই জানা যায়।

এ বিষয়ে জানতে ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনামের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও, সময় সংবাদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি তিনি।

বিশেষ সম্মান নাকি সান্ত্বনা?

২০২১ সালে অর্থাৎ ভারতের ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের। তবে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করায় ভারত সফর বাতিল করেছিলেন তিনি। একই কারণে ২০২২ সালেও প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে কোনো বিদেশি অতিথিকে আমন্ত্রণ জানায়নি ভারত।

তবে দিল্লির রাজপথে ভারতের ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে পুরোভাগে ছিল বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা। ওই বছরের ২৬ জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের বর্ণাঢ্য প্যারেডের সূচনা করেছিল বাংলাদেশের তিন বাহিনীর ১২২ সদস্যের সমন্বিত চৌকস দল। তাদের প্যারেডের মধ্য দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণ করার পাশাপাশি উদ্যাপিত হয়েছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী।

তবে তখনও বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠেছিল যে, ভারতের ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ নেতারা যে বাংলাদেশকে অবজ্ঞা করে নানা সময়ে নানা বিবৃতি দেন, সেই সরকারই হঠাৎ বাংলাদেশকে কেন এই বিরল স্বীকৃতিতে সম্মানিত করল?

সেসময়, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সমগ্র ভারত যে ‘স্বর্ণিম বিজয় জয়ন্তী’ উদযাপন করেছে, তার অংশ হিসেবেই ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশকে বিশেষ সম্মান দেয়ার কথা জানায় ভারতীয় সেনাবাহিনী।

কিন্তু এই বিশেষ সম্মাননা কিংবা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক সত্বেও প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্রপ্রধানকে আমন্ত্রণ না জানানো ভারতের পররাষ্ট্রনীতিকেই প্রশ্নবিদ্ধ করে। বাংলাদেশে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত দেব মুখার্জি মনে করেন, এটা আসলে ভারতের পররাষ্ট্রনীতির একটা ‘প্যারাডক্স’ বা হেঁয়ালি। সংবাদমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘মুশকিল হলো ভারতের পররাষ্ট্রনীতিটাই দুর্বোধ্য। যদিও ‘বড় প্রতিবেশী’ হিসেবে দায়িত্বটা ভারতের ওপরই বর্তায়।’

এছাড়া বাংলাদেশ যে ভারতকে গুরুত্বপূর্ণ নানা ক্ষেত্রে সহায়তা করে আসছে সে বিষয়টিও অস্বীকার করছেন না বিশ্লেষকরা। ভারতের দ্য প্রিন্ট পোর্টালের কূটনৈতিক সম্পাদক নয়নিমা বসুর কথায়, ‘উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বের করে দেয়াই হোক বা ভারতের হাতে তাদের তুলে দেয়া হোক- এই বাংলাদেশ সরকার যেভাবে ভারতকে সাহায্য করেছে তার তুলনা হয় না। ফলে সহযোগিতাটা হওয়া উচিত পারস্পরিক।’

তারপরও প্রজাতন্ত্র দিবসের মতো একটি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্রপ্রধানকে আমন্ত্রণ জানানোর ক্ষেত্রে দিল্লির অনীহা ঠিক কোথায়, সেটি এখনও অস্পষ্ট।

কী হচ্ছে এবারের আয়োজনে

দুবছর পর এবার দিল্লির প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে যোগ দিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ। অতীতে দিল্লিতে প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গকে বঞ্চনার অভিযোগ উঠলেও, তাৎপর্যপূর্ণভাবে এ বছর কুচকাওয়াজে জায়গা পেয়েছে রাজ্যটি।

গত বছরের মতো এ বছরও ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস পালন শুরু হয়েছে ২৩ জানুয়ারি থেকে, শেষ হবে ৩০ জানুয়ারি। এবার দেশটির প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হয়ে আসছেন স্বৈরশাসক হিসেবে পরিচিত মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি।

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে এবার মিশরের সশস্ত্র বাহিনীর ১২০ জন সদস্য যোগ দিচ্ছেন। গত বছরের মতো এবারও প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে প্রকল্পে নিযুক্ত শ্রমিকদের। যাদের নামকরণ করা হয়েছে ‘শ্রমযোগী’।

তবে এবার দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে ভিআইপি এবং অন্যান্য কর্মকর্তাদের আমন্ত্রণপত্রে ব্যাপক কাটছাঁট করা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। গত বছর ভিআইপি এবং অফিসারসহ মোট আসন সংখ্যা ছিল এক লাখ। এবার তা কমিয়ে আনা হয়েছে ৪৫ হাজারে।