বাংলাদেশের রোহিঙ্গা কূটনীতি

0
420

মুহা. রুহুল আমীন : সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর মিয়ানমারের সরকার, সেনাবাহিনী, মৌলবাদী বৌদ্ধ-গোষ্ঠী সহ সেদেশের রাষ্ট্র ও নাগরিকচক্রের “সুপরিকল্পিত, সুসংগঠিত, সমন্বিত এবং সিস্টেম্যাটিক” নির্যাতন শুরুর পর গত সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে পাঁচ দফা শান্তি পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন। বিশ্বসভায় বাংলাদেশের এ রোহিঙ্গা কূটনীতিকে শানিত করে কিভাবে এ সমস্যার আশু সমাধান করা যায় তার একটি রূপরেখা দেওয়া এ লেখার মূল উদ্দেশ্য। বাংলাদেশ কি রোহিঙ্গা কূটনীতির চোরাবালিতে হারিয়ে যাচ্ছে? এমন প্রশ্ন উঠেছে কূটনৈতিক মহলে। অনেকে আশঙ্কা করছেন, মিয়ানমার বাংলাদেশকে তার পাতা ফাঁদে ছুড়ে মেরেছে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভেটো ক্ষমতাধর বিশ্বশক্তি এবং আঞ্চলিক বৃহত্ শক্তিবর্গের তেমন অর্থবহ ভূমিকা দৃশ্যমান না হওয়ায় এ সমস্যাটির কোনো সমাধান হবে না বলে নিরাশা ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র। এমতাবস্থায়, সব হতাশা-নিরাশা ছুড়ে ফেলে বাংলাদেশকে কার্যকর, ফলপ্রসূ ও গতিশীল কূটনৈতিক প্রক্রিয়ায় সমস্যাটির সমাধানে উদ্যোগী হতে হবে। বাংলাদেশের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক, পারিবেশিক ও নিরাপত্তাগত স্বার্থের কারণে সমস্যাটির আশু সমাধান প্রয়োজন।

প্রথমে জানতে হবে বিশ্ব-ইতিহাসের ‘সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত’ রোহিঙ্গাদের দুর্দশার নেপথ্যে কারা। যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল স্টেট ক্রাইম ইনিশিয়েটিভ (ISCI) প্রণীত “কাউন্টডাউন টু এ্যনিহিলেশন: জেনোসাইড ইন মিয়ানমার” শীর্ষক প্রতিবেদনে এ মর্মে স্পষ্ট তথ্য উন্মোচিত হয়েছে। চার মাসের মাঠ-তদন্তসহ এক বছরের নিবিড় গবেষণার পর গত ২০১৫ সালে প্রকাশিত রিপোর্টে রোহিঙ্গা নির্যাতনের জন্য রাখাইন রাজ্য, সুশীল সমাজ, বৌদ্ধ সন্ত্রাসী এবং এএনপিকে দায়ী করা হয়েছে। এ রিপোর্টে বিশ্লেষিত হয়েছে কিভাবে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ এবং জুলুম-নির্যাতনের স্টিম রোলার চালানো হয়েছে। গত মাসে কুয়ালালামপুরে স্থাপিত ‘পারমানেন্ট পিপলস ট্রাইব্যুনাল’ (PPT) এর পর্যবেক্ষণেও এমন তথ্য উঠে এসেছে। রোহিঙ্গা মুসলিমদের এ গণহত্যাকে বিশ্বসমাজ নানাভাবে দেখছে। জাতিসংঘ একে ‘জাতিগত নিধনযজ্ঞ’ হিসেবে আখ্যায়িত করে মুসলিমদেরকে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী (mostly persecuted ethnic group) হিসেবে বর্ণনা করেছে। ফরাসি প্রধানমন্ত্রী ইমানুয়েল ম্যাখো সরাসরি একে ‘গণহত্যা’ বলে চিহ্নিত করেছেন। বিশ্বনেতাদের অনেকে একে মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবেও উল্লেখ করেছেন।

রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে উপর্যুক্ত নির্যাতন নতুন কোনো ঘটনা নয়। ১৪০৬ সালে বর্মী সৈন্যরা রাখাইন রাজা লারাকে ক্ষমতাচ্যুত করলে বাংলার মুসলিম সুলতান জালালুদ্দীনের সহায়তায় তিনি ক্ষমতা ফিরে পান। কিন্তু ১৭৮৪ সালে পুনরায় তিনি ক্ষমতা হারান। ততদিন পর্যন্ত মুসলিম, বৌদ্ধ, হিন্দু নাগরিকরা মিলে-মিশে রাখাইনে একটি বহু-সংস্কৃতির পরিবেশ বজায় রেখেছিল। কিন্তু ১৭৮৪ সালের পর বৌদ্ধ ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়কে নিদারুণ নির্যাতনের শিকার হতে হয়। কিন্তু অচিরেই আক্রমণকারী বর্মীরা রাখাইনের উন্নয়ন এবং স্থিতিশীলতার জন্য মুসলিমসহ অন্য সম্প্রদায়ের নাগরিকদের অংশগ্রহণকে তাত্পর্যপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করে। পরবর্তীকালে উনবিংশ শতাব্দীর প্রথমদিকে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনামলেও রাখাইনের বহু-সংস্কৃতির শান্তিময়তা বজায় থাকে। সু চির পিতা অং সানের রাজনৈতিক দর্শন ছিল বহুসংস্কৃতির লালন। ১৯৫১ ও ১৯৫৬ সালের সাধারণ নির্বাচনে নারীসহ অন্তত ১১ জন রোহিঙ্গা মুসলিম এমপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এমনকি ১৯৯০ সালের সাধারণ নির্বাচনের প্রাক্কালে সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে সু চি পরিচালিত আন্দোলনে তাঁর মুসলিম রাজনৈতিক সহকর্মীরা বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেন এবং এনডিএল থেকে চারজন এমপি নির্বাচিত হন। বেদনাদায়ক হলো ২০১৭ সাল থেকে কোনো রোহিঙ্গা মুসলিম ভোট দিতে পারছেন না এবং পার্লামেন্টে কোনো মুসলিম এমপি নেই। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের কার্যকর কূটনীতি প্রণয়নের স্বার্থে মুসলিমদের ওপর বর্বরোচিত অত্যাচারের এ ঐতিহাসিক দিক বিবেচনায় নিতে হবে।

বিতাড়িত রোহিঙ্গা মুসলিমদের পরিচয় ও পরিচিতি নিয়ে মিয়ানমার ও বাংলাদেশ উভয় দেশে ধোঁয়াশা রয়েছে। বাংলাদেশের রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ এবং আপামর জনসাধারণের কাছে এ ছিন্নমূল অসহায় নারী শিশুদের স্পষ্ট পরিচিতি থাকলে কার্যকর কূটনৈতিক সমাধানে সহায়ক হবে। তাঁরা কি শরণার্থী নাকি বাস্তুচ্যুত ছড়িয়ে থাকা জনগণ (displaced), নাকি দলিলবিহীন মিয়ানমার নাগরিক (UMN), নাকি অসহায় মিয়ানমারের বাসিন্দা (DMN), নাকি বাংলাদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী (infiltrators)? আমি এ পরিচিতি-সংকটকে গুরুত্ব দিচ্ছি এ কারণে যে কোনো জাতি-গোষ্ঠীর পরিচয়-পরিচিতি স্পষ্ট না হলে তারা কী কী অধিকার ভোগ করবেন, তা নির্ধারণ করা কঠিন হয়। কিন্তু এ ব্যাপারে মোটামুটি জাতীয় ঐক্য হওয়া দরকার।

দ্বিতীয়ত রোহিঙ্গা সমস্যাটি ঢালাওভাবে ধর্মীয় বিভিন্নতার কারণে তৈরি হয়েছে এমন ধারণা ঠিক নয়। বর্মীদের দ্বারা রাখাইন রাজা বিতাড়িত হলে বাংলার মুসলিম সুলতান তার রাজ্য পুনরুদ্ধারে সাহায্য করেন। শাসক-গোষ্ঠীর মনের গহীনে সে ইতিহাসের কিছুটা ছাপ থাকতে পারে। সঙ্গে সঙ্গে বর্তমানে আন্তর্জাতিক সম্পর্কে কায়েমী বৈশ্বিক স্বার্থ-গোষ্ঠীর কাছে কম্যুনিজমের ভীতি মুসলিম-উত্থানের বাস্তবতা দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে। এমন তত্ত্ব বর্মী শাসকদেরকে মুসলিম নির্যাতনে প্রলুব্ধ করতে পারে। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা হলো অত্রাঞ্চলের বাণিজ্য অর্থনীতি, রাজনৈতিক অর্থনীতি এবং এর সঙ্গে জড়িত আঞ্চলিক বৃহত্ শক্তিসমূহের স্বার্থের সংশ্লিষ্টতা। এটা স্পষ্ট যে, বর্মী নির্যাতনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের কূটনীতি সবচেয়ে বড় ধাক্কা খাচ্ছে বৈশ্বিক বৃহত্ শক্তি, আঞ্চলিক পরাশক্তি এবং বিশেষত ভেটো-ক্ষমতাসম্পন্ন বৃহত্ শক্তির কাছে। সে কারণে বাংলাদেশের রোহিঙ্গা-কূটনীতির সফলতার জন্য আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বৃহত্ শক্তিগুলোর কাছে বাংলাদেশের কূটনীতির যথার্থতা তুলে ধরতে হবে।

এটা সর্ববিদিত যে, বৈশ্বিক শক্তিসমূহ ‘রাজনৈতিক বাস্তববাদের’ নিরিখে তাদের জাতীয় ও রাষ্ট্রিক স্বার্থের অগ্রাধিকার বিবেচনায় রেখে বাংলাদেশের সঙ্গে কূটনৈতিক আন্তঃক্রিয়ায় অংশ নিবে। একবিংশ শতাব্দী রাজনীতি ও নিরাপত্তা ইস্যু দুটিকে বাণিজ্য ও অর্থনীতির অগ্রাধিকার দিয়ে স্থলাভিষিক্ত করেছে। এখন রাষ্ট্রসমূহের মূল বিবেচনা হলো স্ব-স্ব অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য স্বার্থ রক্ষা করা। গুরুত্বপূর্ণ ভূ-রাজনৈতিক ও ভূ-কৌশলগত অবস্থান থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশ নানা কারণে বিশ্ব-শক্তিগুলোর কাছে তার ভূ-কৌশলগত গুরুত্বকে উপস্থাপিত করতে পারেনি।

বঙ্গোপসাগর ও বন্দরনগরী চট্টগ্রামের গভীর সমুদ্রবন্দর এবং সামুদ্রিক স্থাপনা নির্মাণে চীন, ইউএই, নেদারল্যান্ডস বাংলাদেশকে রাজী করাতে ব্যর্থ হয়। মিয়ানমারের রাখাইনে রয়েছে চীনের এবং ভারতের গভীর সমুদ্রবন্দর। ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, চীন দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় একাধিক সমুদ্রবন্দর ও বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলেছে। প্রচুর সম্ভাবনাময় বাংলাদেশ এক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়েছে। গভীর সমুদ্রবন্দর ও বিশেষ অর্থনৈতিক এলাকা স্থাপনে সহযোগিতা করে মিয়ানমার যেভাবে চীন ও ভারতকে বন্ধুত্বের বন্ধনে আবদ্ধ করেছে, তা পরিবর্তন করা যাবে শুধু একই বিষয়ে এবং একই কারণে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর অর্থনৈতিক স্বার্থ প্রদান করার মাধ্যমে। রোহিঙ্গা কূটনীতি কার্যকর করতে হলে এ ব্যাপারে স্বল্পমেয়াদি ও দীর্ঘ মেয়াদি লক্ষ্য নির্ধারণ করে আঞ্চলিক শক্তিসমূহের সঙ্গে কূটনৈতিক দরকষাকষি করতে হবে। কেবল অর্থনৈতিক স্বার্থ প্রদান করার গ্যারান্টি দেওয়ার মাধ্যমে চীন, ভারতসহ সংশ্লিষ্ট দেশগুলোকে বাংলাদেশের রোহিঙ্গা কূটনীতির পক্ষে আনা যাবে বলে আমার ধারণা। তা ছাড়া বর্তমান সরকারের বিনিয়োগনির্ভর উন্নয়ন প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করতে হলে চীন, ভারত, রাশিয়াসহ আঞ্চলিক শক্তিসমূহের সঙ্গে সামুদ্রিক স্থাপনা নির্মাণ করে সমন্বিত স্বার্থ অর্জন করার পথে অগ্রসর হওয়া বাঞ্ছনীয় যাতে বাংলাদেশ চীনের ‘সিল্ক রোড’ ও জাপানের বিগ-বি (Big-B) কৌশলের মাধ্যমে অর্জিত অর্থনৈতিক স্বার্থকে বাংলাদেশের স্বার্থের অনুকূলে আনতে পারে।

এটা খুবই আশাব্যঞ্জক যে জাতিসংঘে উত্থাপিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘পাঁচ দফা শান্তি পরিকল্পনা’ ইতোমধ্যে বেশ কার্যকর হতে চলেছে। গত ১৩ অক্টোবর বিশ্বব্যাংক মিয়ানমার সরকারকে বাজেট সহায়তা হিসেবে ২০ কোটি ডলার ঋণদানের সিদ্ধান্ত স্থগিত করেছে। গত ১০ অক্টোবর লুক্সেমবার্গে অনুষ্ঠিত ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সভায় মিয়ানমারে মুসলিম নিধন বন্ধে ৮ দফা সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ইউরোপে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। প্রতিরক্ষা সম্পর্ক পুনর্বিবেচনার কথা জানিয়েছে এবং জিএসপিসহ অন্যান্য বাণিজ্য সুবিধা দানে ইউরোপের অনীহার বিষয় পুনর্ব্যক্ত করেছে। গত ১৬ অক্টোবর আইপিইউ সম্মেলনে রোহিঙ্গা-নিপীড়ন বন্ধে বাংলাদেশ যে প্রস্তাব রেখেছে, তা বেশিরভাগ সদস্য সমর্থন করেছে।

চীনও ইতোমধ্যে রাখাইনে সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। কিন্তু বৈশ্বিক কূটনৈতিক ফোরামে এধরনের আলোচনা কেবল কূটনৈতিক শালীনতা প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে করা হয়ে থাকে। তাকে কার্যকর করতে হলে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর কূটনৈতিক ও জাতীয় স্বার্থগুলোকে বিবেচনায় নিয়ে কূটনীতি প্রণয়ন করতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রসহ পাশ্চাত্যের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো কূটনৈতিক দূরত্ব আছে কিনা, তার নির্মোহ বিশ্লেষণ করতে হবে এবং এখান থেকেই শুরু হতে পারে ফলদায়ক কূটনীতি।

একটি বিষয় বাংলাদেশের সরকার ও জনগণকে বুুঝতে হবে যে, মিয়ানমার শক্তের ভক্ত, নরমের যম। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের দ্বিপাক্ষিক দ্বন্দ্বের ইতিহাস এই শিক্ষা দেয় যে, বাংলাদেশের কঠোর অবস্থান কেবল মিয়ানমারকে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে তত্পর করে। এ ব্যাপারে মিয়ানমার ‘তোষণ-নীতির’ সুযোগ কাজে লাগাতে প্রলুব্ধ হতে পারে। কূটনৈতিক স্বার্থ অর্জনের নম্র-নীতি এবং রাজনৈতিক স্বার্থ অর্জনের বজ্রনীতি—এ দুধরনের বিকল্প টেবিলে রাখতে হবে। মিয়ানমার যখন সীমান্তে বর্মী-সৈন্য সমাবেশ করে, ল্যান্ড মাইন প্রস্তুত রাখে, বাংলাদেশের আকাশ সীমা অতিক্রম করে, তখন বাংলাদেশকেও জানান দিতে হবে, তার অখণ্ডতা, সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সদা প্রস্তুত। পাশাপাশি, বাংলাদেশের কূটনৈতিক উদ্যোগ জারি রাখতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ দফা পরিকল্পনা খুব সফল হবে, যদি জাতিসংঘকে বাংলাদেশের কূটনৈতিক প্রক্রিয়ায় সফলভাবে যুক্ত করা যায়। মিয়ানমারের ভিতর রোহিঙ্গা-মুসলিমদের জন্য নিরাপদ অঞ্চল, রোহিঙ্গাদেরকে ফিরিয়ে দেওয়া, তাদের নাগরিক অধিকার সমুন্নত রাখা ও মানবিক মর্যাদা প্রদান—এসব লক্ষ্য অর্জন করতে হলে জাতিসংঘের মতো বহুমুখী ফোরামকে বাংলাদেশের কূটনৈতিক প্রক্রিয়ায় যুক্ত করতে হবে। কফি আনান কমিশন এ ব্যাপারে বাংলাদেশের রোহিঙ্গা-কূটনীতির জন্য সুখবর বহন করছে।

লেখক: প্রফেসর, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here