বাংলাদেশে আত্মঘাতী জঙ্গিদের আবির্ভাব

0
219

বদরুদ্দীন উমর : বাংলাদেশে জঙ্গি নামে পরিচিত সন্ত্রাসীদের বিষয়ে সরকার যা বলছে তার মধ্যে সত্যতা আছে এই অর্থে যে, এই জঙ্গিরা আইএস, আল কায়দা বা অন্য কোনো বিদেশি সন্ত্রাসীদের সঙ্গে সম্পর্কিত নয়। তাদের কোনো আন্তর্জাতিক যোগাযোগ নেই। তাদের উৎপত্তি এ দেশেরই অভ্যন্তরে। সরকার যে উদ্দেশ্যেই এই দাবি করুক, এটা স্বীকার করতেই হবে যে, বাংলাদেশে এখন ধর্মীয় জঙ্গি তৎপরতা বলে যা দেখা যাচ্ছে সেটা এ দেশে বিদ্যমান সামগ্রিক পরিস্থিতির থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। উপরন্তু তার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে সম্পর্কিত।

বাংলাদেশে নানা ধরনের সন্ত্রাসী ও জঙ্গি তৎপরতা বেশ কিছুদিন থেকে চলে এলেও এখানে আত্মঘাতী জঙ্গির কোনো অস্তিত্ব ছিল না। আত্মঘাতী জঙ্গির উদ্ভব হয় তখনই, যখন এ ধরনের জঙ্গিবাদ উচ্চ পর্যায়ে ওঠে। জীবন দেওয়া সহজ ব্যাপার নয়। কোনো জঙ্গি যখন তার বিভ্রান্ত ধর্মচিন্তার বশীভূত হয়ে ইসলামের সেবার নামে ও বেহেশতে যাওয়ার লক্ষ্যে জীবন দিতে প্রস্তুত হয়, তখন তাকে ফেরানো প্রায় অসম্ভব। সততা ও বিভ্রান্তি; যার বশবর্তীই হোক, একজন মরিয়া অবস্থায় এসে না দাঁড়ালে জীবন দেওয়ার কথা ভাবতে পারে না। লক্ষ্য অর্জনের জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হয়ে অন্য কোনো পথের দেখা না পেয়েই মানুষ আত্মঘাতী হয়।

যেভাবে এখন সারা দুনিয়ায় জঙ্গিরা আত্মঘাতী হচ্ছে এটা জেনে অবাক হতে হয়। দেখা যাবে যে, এরা নিজেদের জীবনদানের মাধ্যমে প্রকৃতপক্ষে তাদের দ্বারা কার্যত বিধর্মী বা অন্য কোনো মানবতাবিরোধী শক্তিকে আঘাত ও ক্ষতিগ্রস্ত করছে না। এরা এমন সব জায়গায় আঘাত হানতে গিয়ে জীবন দিচ্ছে, যেখানে মৃত্যু হচ্ছে নিরীহ মানুষদের, যারা সাধারণ জীবনযাপনের বাইরে কিছু করে না। এদের এই কাজের সব থেকে বিপজ্জনক দিক হচ্ছে, এদের আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু বিষয়ে এদের ভয়াবহ বিভ্রান্তি। এরা যা করে তা দেখে মনে হয়, নিরীহ লোকেরাই দুনিয়ায় সর্বনাশের মূল এবং নিরীহ মানুষ খতম করলেই তারা মস্ত সওয়াবের কাজ করবে! যেভাবে এই আত্মঘাতীদের আক্রমণে স্কুল, কলেজ, বাজার-হাট, খাওয়ার জায়গা থেকে নিয়ে হাসপাতাল পর্যন্ত এরা আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে নারী, শিশু, বৃদ্ধ থেকে নিয়ে সব ধরনের নিরীহ মানুষ হত্যা করছে_ তার থেকে এটা মনে করা ছাড়া কোনো উপায় নেই। অনেক সময় দেখা যায়, বেহেশতে যাওয়ার জন্য দুই-একজন নিরীহ লোক হত্যার জন্যও তারা জীবন দিচ্ছে! তাদের নিজেদের দিক থেকেও একে এক বড় ট্র্যাজেডি ছাড়া আর কী বলা যায়?

ইতিহাসে ধর্ম প্রচারের অনেক পদ্ধতি এবং উপায় দেখা গেছে। বাংলাদেশেও ইসলাম ধর্ম প্রচার হয়েছে সুফি এবং সাধকদের দ্বারা। জোর-জবরদস্তির কোনো ব্যাপার ঘটেনি। নবাব, সুলতানরাও ইসলাম ধর্ম প্রচারের জন্য কোনোভাবে বল প্রয়োগ করেননি। ক্ষেত্রবিশেষে কোথাও এর ব্যতিক্রম হলেও হতে পারে। কিন্তু দৃশ্যমান না হলে তরবারি চালানো অন্যদের মধ্যেও দেখা যায়নি। মুসলমান ধর্ম সংস্কারের জন্য ওয়াহাবি-ফারাবি ইত্যাদি আন্দোলন হয়েছে বাংলাদেশ, দক্ষিণ এশিয়া এবং মধ্যপ্রাচ্যে। কিন্তু তার জন্য কারও আত্মঘাতী জঙ্গি হওয়ার প্রয়োজন হয়নি। এ ধরনের কাজের মাধ্যমে ইসলামের প্রচার, বিভ্রান্তি ও বিধর্মীদের শাস্তি দেওয়ার কথা ধর্ম প্রচারক এবং ইসলামের অনুসারী ও প্রচারকদের মনে হয়নি।

একটু লক্ষ্য করলেই দেখা যাবে, ইসলাম প্রতিষ্ঠার নামে, হত্যাকাণ্ড করে বেহেশতে যাওয়ার লোভে আত্মঘাতীদের উদ্ভব অতি সাম্প্রতিক ব্যাপার। বিশ শতকের একেবারে শেষ অথবা একুশ শতকের গোড়া থেকেই দেখা যায় ইসলাম ধর্মের নামে আত্মঘাতীদের তৎপরতা। এটা কোনো অজানা ব্যাপার নয় যে, এভাবে আত্মঘাতী তৈরির জন্য এ সময়ে প্রাতিষ্ঠানিকভাবেই উদ্যোগ নেওয়া হয় মধ্যপ্রাচ্যের কোনো কোনো দেশে, আফগানিস্তানে, পাকিস্তানের পেশোয়ার ও ওয়াজিরিস্তানে। এটাও অজানা নয় যে, প্রাথমিকভাবে এই ঘরানার ধার্মিকদের অর্থসহ অন্যান্য সাহায্য দিয়ে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদীরাই তৈরি করেছে। ইরাক ও সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেট নামে সংগঠন খাড়া করে প্রেসিডেন্ট বুশের সময় থেকে যেসব তথাকথিত ইসলামী জঙ্গি সংগঠন তৈরি করা হয়েছে, তারাই জন্ম দিয়েছে আত্মঘাতী জঙ্গিদের। কাজেই এদের তৎপরতার সঙ্গে প্রকৃত ইসলাম ধর্ম প্রচার, ধর্ম সংস্কার ইত্যাদির কোনো সম্পর্ক নেই। কিন্তু সাম্রাজ্যবাদীরা এভাবেই এদেরকে তৈরি করেছে এবং তার পর এখন এই ঘরানার লোকেরা অন্য কারও সাহায্য ছাড়া নিজেরাই ভ্রান্ত চিন্তাধারার শিকার হয়ে আত্মঘাতী হচ্ছে। এখানে বলা দরকার যে, যারা এভাবে আত্মঘাতী হামলা করছে তারা সাধারণ অর্থে ক্রিমিনাল নয়। বিভ্রান্তিবশত তারা অধিকাংশই এ কাজ করছে। কিন্তু তাদের পেছনে যারা আছে তারাই আসল ক্রিমিনাল। ধর্মের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। ইরাকে আইএসের প্রধান আবুবকর বাগদাদী নামে ব্যক্তির সঙ্গে ধর্মের কোনো সম্পর্ক আছে মনে করার কারণ নেই। ধর্ষণ, চুরি-দুর্নীতি, সাম্রাজ্যবাদীদের সঙ্গে মিলে জনগণের বিরুদ্ধে হীন চক্রান্তসহ এমন কোনো কাজ নেই যা এই আবুবকর বাগদাদী করেনি। এসব বদ লোকের মাধ্যমে জঙ্গি তৎপরতার জন্মদান করে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ এখন বেকায়দা অবস্থায় তাদের বিরোধিতা করলেও ধর্মকে কেন্দ্র করে নৈরাজ্যিক পরিস্থিতি দুনিয়ার অনেক জায়গাতেই তৈরি হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে আত্মঘাতীসহ সব ধরনের জঙ্গি তৎপরতাই এখন অনেক ক্ষেত্রে স্বাধীনভাবে হচ্ছে। এদিক দিয়ে বাংলাদেশ হলো সাম্প্রতিকতম দৃষ্টান্ত। এখানে কিছুদিন থেকে ইসলামী জঙ্গি তৎপরতা মাঝে মধ্যে দেখা গেলেও আত্মঘাতী বলে কিছু ছিল না। এখন আত্মঘাতীদের আবির্ভাব এখানে জঙ্গি তৎপরতার ক্ষেত্রে এক নতুন মাত্রা যুক্ত করেছে। এ কথা স্পষ্টভাবে বলা দরকার যে, পাকিস্তান-উত্তর বাংলাদেশে নতুনভাবে ধর্মের যে প্রভাব দেখা দিয়েছে, অল্প বয়স্করা পর্যন্ত যেভাবে ধর্মের দিকে ঝুঁকেছে, সাধারণভাবে এর উৎপত্তি জনগণের মধ্যে সৃষ্টি হওয়া ব্যাপক ও গভীর হতাশার মধ্যে। যারা বাংলাদেশের শাসক শ্রেণির লোক এবং প্রকারান্তরে জনগণের শোষক ও নির্যাতক অথবা তাদের সহযোগী তারা ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে এখানে একটা স্বাধীন রাষ্ট্র, একটা মানচিত্র, একটা পতাকা ইত্যাদি পাওয়াকেই আসল পাওয়া মনে করে সন্তুষ্ট। তারাই এ দেশকে লুটেপুটে খাচ্ছে এবং জনগণের ওপর নির্যাতন করছে অথবা নির্যাতনে সহায়তা করছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সময় সাধারণ লোক একটা স্বাধীন দেশ চাইলেও মানচিত্র, পতাকা ইত্যাদি নিয়ে তারা কোনো মাথা ঘামায়নি। তাদের আকাঙ্ক্ষা ছিল ভাত-কাপড়ের, শিক্ষাদীক্ষার, সুচিকিৎসার, কাজের ও জীবিকার নিশ্চয়তার, জীবনের নিরাপত্তা এবং স্বাধীনভাবে এক সুখী ও শান্তিপূর্ণ জীবনের। স্বাধীন বাংলাদেশে এসব কিছুই তারা পায়নি। পাওয়া গেলেও তা হলো ছিটেফোঁটা। এখানে ১৯৭১ সাল-পরবর্তী সময়ে দেশের অনেক উন্নয়ন হলেও সে উন্নয়নের ফল লাভ করেছে অতি অল্পসংখ্যক লোকে। যারা দেশ শাসনের সঙ্গে যুক্ত তারা লুটপাট, চুরি-দুর্নীতি, সন্ত্রাস, দস্যুবৃত্তি ইত্যাদির মাধ্যমে নিজেদের সুখ-শান্তির জন্য সবকিছু গুছিয়ে নিয়েছে। উন্নয়নের বড় বড় পরিকল্পনা তারা গ্রহণ করেছে। যত বড় পরিকল্পনা, তাদের দুর্নীতির সুযোগ তত বেশি। এক হিসেবে বলা চলে, চুরি-দুর্নীতি বড় আকারে করার মধ্যেই তারা বড় প্রজেক্ট তৈরি করে। তার জন্য বিদেশ থেকে অর্থ ঋণ নেয় বিশাল বড় আকারের।

সাধারণভাবে শাসক শ্রেণির এই কর্মকাণ্ড এবং তাদের দ্বারা সৃষ্ট পরিস্থিতি জনগণের মনে গভীর ও ব্যাপক হতাশার সৃষ্টি করেছে। মুক্তিযুদ্ধের সময় তাদের আকাঙ্ক্ষা ছিল আকাশচুম্বী। স্বাধীন বাংলাদেশের আকাশে ওড়া তাদের পক্ষে সম্ভব হয়নি। ডানা কাটা অবস্থায় তারা মাটিতেই লুটোপুটি খাচ্ছে। এই পরিস্থিতি থেকে হতাশা এবং হতাশা থেকে অনেক ধরনের অস্বাভাবিক প্রবণতার জন্ম মানুষের মধ্যে হয়েছে। সাধারণ মানুষের মধ্যেও অনেক ক্ষেত্রে দুর্নীতি, সন্ত্রাস ইত্যাদি দেখা যাচ্ছে। ধর্মের নতুন চর্চাও এরই সঙ্গে সম্পর্কিত। এই দুনিয়ায় মানুষ যা পাওয়ার আশা করেছিল তা না পেয়ে পরকালে বা আখেরাতে তা পাওয়ার জন্যই ধর্মের দিকে তারা ঝুঁকছে। এ কারণে বাংলাদেশে এখন যতখানি ব্যাপকভাবে ধর্মচর্চা হচ্ছে তার কোনো ব্যাখ্যা সম্ভব নয়। শুধু তাই নয়, এই ধর্মচর্চার সঙ্গে উদ্ভব ঘটেছে জঙ্গিবাদ এবং সর্বশেষে আত্মঘাতী জঙ্গিদের। বাংলাদেশে সাধারণভাবে ধর্মনিরপেক্ষ-সন্ত্রাসবাদ যেভাবে এখন ব্যাপক হয়েছে, সেই পরিস্থিতি থেকে ইসলামী জঙ্গি সন্ত্রাস এবং আত্মঘাতীদের উদ্ভবকে বিচ্ছিন্নভাবে দেখে এর কোনো ব্যাখ্যা দিতে যাওয়া এক অবাস্তব ব্যাপার। কাজেই এখানে জঙ্গিবাদ এবং এখন আত্মঘাতীদের আবির্ভাব বাইরে থেকে আমদানি হয়েছে_ এটা মনে করার কোনো ভিত্তি নেই। দেশে বিরাজমান হতাশাজনক পরিস্থিতির মধ্যেই এর নিশ্চিত উদ্ভব। এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনার কোনো সুযোগ এখানে নেই। কিন্তু সেটা না থাকলেও বাংলাদেশে ধর্মকে কেন্দ্র করে এখন যা কিছু ঘটছে তার কারণ অনুসন্ধান এখন জরুরি হয়েছে। আত্মঘাতী জঙ্গিদের উদ্ভবকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতেই ব্যাখ্যা করতে হবে। তার জন্যও এই অনুসন্ধান অপরিহার্য।
সভাপতি, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here