বাংলাদেশ ও ভারতীয় সেনাদের যশোর চৌগাছার মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত গ্রাম পরিদর্শন

0
243

বিশেষ প্রতিনিধি : বাংলাদেশ-ভারত যৌথ সাইক্লিং অভিযানের অংশ হিসেবে মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় বাহিনীর শহীদ সেনাদের স্মৃতি বিজড়িত চৌগাছা উপজেলার মুক্তিনগর এবং মুক্তারপুর গ্রাম পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
বুধবার সকালে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ একমাত্র এমএনএ ও সাবেক আইনমন্ত্রী মসিয়ূর রহমানের নামে নামকরণ হওয়া গ্রাম মসিয়ূরনগরে অবস্থিত মুক্তিনগর শহীদ স্মরণী মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকা, এরপর আজমতপুর গ্রাম পরিদর্শন করেন তারা। এসময় বাংলাদেশ ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বাংলাদেশ পুলিশ ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব), আর্মড পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ ও চৌগাছা থানা পুলিশের কর্মকর্তারা তাদের সঙ্গে ছিলেন।
মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনী অংশ নেয়ার ঘোষণার পরই বর্তমান চৌগাছা উপজেলার শাহাজাদপুর সীমান্তÍ দিয়ে ভারতীয় বাহিনী পূর্ববঙ্গে ঢুকে আজমতপুর গ্রামে পাক বাহিনীর মুখোমুখি হয়। এখানে তাদের সাথে যুক্ত হয় বাংলার দামাল মুক্তিযোদ্ধারা। এরপর চৌগাছার মসিয়ূরনগর (তৎকালীন ছোট সিংহঝুলী) মুক্তিনগর শহীদ স্মরণী মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও ভারতীয় বাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হয়। সে সময় পাক বাহিনীর নিক্ষিপ্ত কয়েকটি সেল সিংহঝুলী গ্রামে এসে পড়ে। সেখানে এক শিশুসহ বেশ কয়েকজন নিরীহ মানুষ শহীদ হন। যুদ্ধের এক পর্যায়ে রসদ শেষ হয়ে গেলে উভয় পক্ষের সেনাদের মধ্যে মল্লযুদ্ধও হয়। সে যুদ্ধে পাকবাহিনী পরাজিত হয়। তারা পিছু হটে যশোর সেনানিবাসের দিকে ফিরে যায়। মুক্ত হয় চৌগাছা অঞ্চল। এ পরাজয়ে পাক বাহিনীর মনোবল ভেঙে পড়ে। সে কারণে চৌগাছাকে ‘স্বাধীনতার প্রবেশদ্বার’ বলা হয়ে থাকে। যুদ্ধকালীন সময়ে উভয় গ্রামে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কয়েকজন সেনা সদস্য শহীদ হন।বুধবারের পরিদর্শনকালে হাইওয়ে পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর কামরুজ্জামান ও চৌগাছা থানা পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর আহসানের নেতৃত্বে দুটি পৃথক দল দুই গ্রামে নিরাপত্তা নিশ্চিত করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here