বাংলার নতুন বর্ষকে বরণ করতে ইতিমধ্যে মেতে উঠেছে যশোরবাসী

0
308

এম আর রকি : যশোরের সর্ব শ্রেনীর মানুষ বাংলা নতুন বছরকে গ্রহন করতে উৎসবে মেতে উঠতে প্রস্তুতি নিচ্ছে। গত এক সপ্তাহ যাবত যশোর বাজার এলাকায় অন্যান্য উৎসবের ন্যায় কেনাকাটার ভীড় শুরু হয়েছে। ছিট কাপর্ড়ে দোকান থেকে সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কেনাকাটার ধুম পড়ে গেছে। বাংলা নতুন বছর ১৪২৪ কে বরণ করে নিতে গ্রাম বাংলার হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্য তুলে ধরতে সব সংগঠনের কর্মকর্তা ও সদস্যরা ব্যস্ত দিন কাটাচ্ছে।
যশোরের বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,বাংলা নতুন বছরকে স্বাগত ও বরণ করে নিতে সকলে মহা ব্যস্ত দিন কাটাচ্ছে। বাংলার হারিয়ে যাওয়া বিভিন্ন ঐতিহ্য তুলে ধরতে সকলে এক যোগে কাজ করছে। যশোর বাজারের দোকান গুলিতে বাংলার বিভিন্ন গান বাজনার ছবি সম্বলিত চিত্র তুলে ধরা প্রিন্ট কাপড় বিক্রি হচ্ছে খুব। লাল সবুজ ও বাংলার সাথে মিল করে পোশাকের ধরণ বানাতে টেইলার্সের দোকান গুলিতে ভীড় শুরু হয়েছে। যশোরের অনেক টেইলার্সের দোকান গুলিতে গত এক সপ্তাহ যাবত নতুন অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। তার কারণ যে ইতিমধ্যে যে পরিমান অর্ডার নেওয়া হয়েছে। সেই পোশাক সরবরাহ করতে দারুনভাবে হিমশিম খাচ্ছে পোশাক তৈরী কারকেরা। বাংলার ঐতিহ্য ঢেঁকি.কুলা,ধামাসহ এদেশের বিভিন্ন শিল্প যা আজ আমাদের কাছ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে সেগুলির নমুনা সংগ্রহ করতে অতি ব্যস্ত সব সংগঠনের কর্মকর্তা ও সদস্যরা। মাছে ভাতে বাঙ্গালী বাংলার মানুষের প্রিয় মাছ ইলিশ ও পান্থা ভাত খাওয়ার পরিকল্পনা এখন আমাদের সমাজে হারিয়ে যেতে বসেছে। বাংলা নতুন বছরের সকালে বাংলার ঐতিহ্য খাদ্যর তালিকার প্রথমে পান্থা ভাত আর সু-স্বাদু ইলিশ খাওয়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে বিভিন্ন সংগঠগুলোর। এদিকে অর্থলোভী মাছ ব্যবসায়ীরা বাংলার নতুন বছরকে টার্গেট নিয়ে তাদের কাছে থাকা মজুদকৃত ইলিশ মাছের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। যে সাইজের মাছ আগে বিক্রি হচ্ছিল তিনশ’ থেকে সাড়ে তিনশ’ টাকায় সেই মাছ গতকাল রোববার থেকে বিক্রি হচ্ছে ছয়শ’ থেকে আটশ’ টাকা। ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে ইলিশ মাছ। এছাড়া,বাংলার ঐতিহ্যবাহী চিত্রকর্ম তুলে ধরতে শিল্পীরা দারুন ব্যস্ততম দিন কাটাচ্ছে। যশোর উদীচী,নন্দন যশোর,চারুপীট,কিংশুক,সুরবিতান,মাইকেল সংগীত একাডেমী,পুনশ্চৎ,যশোর সাংস্কৃতি গোষ্ঠীসহ প্রায় সকল সংগঠনের নেতাকর্মীরা বাংলা নতুন বছরকে তাদের মতো করে বরণ করতে কাজ করে যাচ্ছে। রংতুলিতে গোটা বাংলার হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যকে তুলে ধরতে চিত্রী শিল্পীরা কাজ করছে। যশোরের বিভিন্ন দেওয়াল গুলিতে বাংলার দৃশ্যমান ছবি তুলে ধরা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন রংবেরংয়ের আমন্ত্রণ পত্র করা হয়েছে। আমন্ত্রণ পত্রের সাথে দেওয়া হচ্ছে বাংলার ঐতিহ্য বিভিন্ন দৃশ্য সম্বলিত সামগ্রী। সব মিলিয়ে গোটা যশোরের সর্ব পেশার ও শ্রেনীর মানুষ বাংলার নব বর্ষকে সাদর গ্রহন করতে প্রস্তুত দিনাতিপাত করছে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here