বাংলা সাহিত্যের প্রথম উপন্যাসিকের জন্ম আজ

0
363

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ ২২ জুলাই। গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ২০৩তম দিন। এদিন পৃথিবী আলো করে এসেছিলেন বেশ কয়েকজন খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব। যারা তাদের নিজ নিজ ক্ষেত্রে রেখে গেছেন বিশেষ বিশেষ অবদান। মারাও গেছেন কেউ। যাদের বেশিরভাগই অপরিচিত নতুন প্রজন্মের কাছে। আসুন তবে চিনে নেই তাদের।

এদিনে যারা জন্মেছিলেন

ফ্রিডরিশ ভিলহেল্ম বেসেল: ১৭৮৪ সালের এদিনে জন্মেছিলেন বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও গণিতবিদ ফ্রিডরিশ ভিলহেল্ম বেসেল। যিতি গণিতে এক বিশেষ ধরণের ফাংশনের উপরে বড় অবদান রাখেন। যে ফাংশনগুলোকে বর্তমানে তার নামানুসারে বেসেল ফাংশনস (Bessel functions) নামে ডাকা হয়। এই ফাংশনগুলো কিছু বিশেষ অন্তরক সমীকরণে (differential equations) ব্যবহৃত হয়। পদার্থবিজ্ঞান ও প্রকৌশলবিদ্যায় প্রাথমিক ফাংশনগুলির (elementary functions) পরে সম্ভবত এই ফাংশনগুলিই সবচেয়ে বেশি দেখতে পাওয়া যায়। ১৮৪৬ সালের ১৭ মার্চ মারা যান বেসেল।

 

প্যারিচাঁদ মিত্র: প্যারিচাঁদ মিত্রকে বলা হয় বাংলা সাহিত্যের প্রথম উপন্যাসিক। তারঁ ডাকনাম টেকচাঁদ ঠাকুর। ১৮১৪ সালের এই দিনে কলকাতার এক বণিক পরিবারে জন্ম প্যারিচাঁদ মিত্রের। তাঁর বাবার নাম রামনারায়ণ মিত্র। তিনি ছিলেন কাগজ ও হুন্ডি ব্যবসায়ী। বহু প্রতিভার অধিকারী ছিলেন প্যারিচাঁদ মিত্র ওরফে টেকচাঁদ ঠাকুর। শৈশবে একজন গুরুমহাশয়ের নিকট বাংলা এবং একজন মুনশির নিকট ফারসি শিখেন তিনি। পরে ইংরেজি শেখার জন্য ভর্তি হন হিন্দু কলেজে।

প্যারিচাঁদ মিত্র ছিলেন বাংলার নবজাগরণের অন্যতম নেতা। তিনি কলকাতা পাবলিক লাইব্রেরির লাইব্রেরিয়ান ছিলেন। বাংলা, ইংরেজি ও ফার্সি ভাষা ভালো জানতেন তিনি। বিশেষ করে বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় বহু গ্রন্থ রচনা করে তিনি খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। ‘আলালের ঘরের দুলাল’ তার শ্রেষ্ঠ ও বাংলা সাহিত্যের প্রথম উপন্যাস। তিনি মহিলাদের জন্য একটি মাসিক পত্রিকা সম্পাদনা করেন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কাজেও যুক্ত ছিলেন। ১৮৮৩ সালে ২৩ নভেম্বর মারা যান বাংলা সাহিত্যের এ কালজয়ী উপন্যাসিক।

 

ত্রৈলোক্যনাথ মুখোপাধ্যায়: একজন বিখ্যাত বাঙালি কৌতুক লেখক ত্রৈলোক্যনাথ মুখোপাধ্যায়। ১৮৪৭ সালে তিনি বর্তমান পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগণার অন্তর্গত শ্যামনগরের কাছে রাহুতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম বিশ্বম্ভর মুখোপাধ্যায়। ত্রৈলোক্যনাথ মুখোপাধ্যায় সাহিত্যিক হিসাবেই বিখ্যাত। তিনি বাংলা সাহিত্যে এক নতুন রকমের উদ্ভট হাস্যরসের প্রবর্তক ছিলেন। তাঁর রচিত ‘ডমরু চরিত’ এবং ‘কঙ্কাবতী’ খুবই বিখ্যাত। ‘কঙ্কাবতী’ উপন্যাস সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন “এইরূপ অদ্ভুত রূপকথা ভাল করিয়া লেখা বিশেষ ক্ষমতার কাজ। এতদিন পরে বাঙ্গালায় এমন লেখকের অভ্যুদয়…যাঁহার লেখা আমাদের দেশের বালক বালিকাদের এবং তাঁদের পিতামাতার মনোরঞ্জন করিতে পারিবে।” ১৯১৯ সালের ১১ মার্চ মারা যান ত্রৈলোক্যনাথ মুখোপাধ্যায়।

 

মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী: ১৯২৬ সালের এই দিনে নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ থানার খালিশপুরে জন্ম মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরীর। তাঁর বাবা বজলুর রহমান চৌধুরী ও মা মাহফুজা খাতুন। তিনি একজন মননশীল প্রবন্ধকার, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের গবেষক, শিক্ষাবিদ ও বুদ্ধিজীবী ছিলেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের শেষলগ্নে পাকিস্তান সেনাবাহিনী, রাজাকার ও আল-বদর বাহিনীর বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের অংশ হিসেবে তিনি অপহৃত ও পরে ১৪ ডিসেম্বর শহীদ হন।

 

এদিনে মারা গিয়েছিলেন যিনি: হ্যারল্ড লারউড। ১৯০৪ সালে নটিংহ্যামশায়ারের নানকারগেট এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত পেশাদার ইংরেজ ক্রিকেটার। ১৯২৪ থেকে ১৯৩৮ সময়কালে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। দলে তিনি মূলত ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে পরিচিত ছিলেন। এছাড়াও, ডানহাতি ব্যাটিং হিসেবেও পারদর্শীতা দেখিয়েছিলেন তিনি। অনেক ধারাভাষ্যকারের মতে, তিনি তাঁর সময়কালের অন্যতম সেরা বোলার ছিলেন। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে মাত্র ২১টি টেস্ট ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন লারউড। ১৯৯৫ সালের ২২ জুলাই ৯০ বছর বয়সে মারা যান এ ইংলিশ ক্রিকেটার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here