বাগান পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন শার্শা উপজেলার প্রায় ২০ হাজার কৃষিশ্রমিক

0
369

আরিফুজ্জামান আরিফ-বাগআঁচড়া : গুটি আসছে শার্শার আম গাছে।বাগান পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন উপজেলার প্রায় ২০ হাজার কৃষিশ্রমিক।আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এ বছর অন্যবারের চেয়ে বেশী ফলন হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।খোজ খবর নিয়ে জানা গেছে,বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন জাতের আম উৎপাদন হলেও সবচেয়ে বেশি হয় বাগআঁচড়া, দিঘা, জামতলা, ছোট বসন্তপুর, চালিতাবাড়িয়া, নারকেলবাড়িয়া, বড়বাড়িয়া, বাগুড়ীবেলতলা, গোগা, সামটা, বারিপোতায়, জানিয়েছেন শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হীরক কুমার সরকার।
এসব এলাকায় গিয়ে বাগান ঘুরে দেখা গেছে, কৃষিশ্রমিকরা এখন মুকুল রক্ষা, গুটি ঝরা বন্ধ করা, বালাই থেকে রক্ষার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছেন।বড়বাড়িয়া গ্রামের শাহাজান আলি বলেন, গত বছরের তুলনায় এবার দ্বিগুণ মুকুল এসেছে। তবে কিছুদিন ধরে হপার পোকার আক্রমণ লক্ষ্য করছি। মুকুল রক্ষার কীটনাশক স্প্রে করা হচ্ছে।তার নিজস্ব ২০ বিঘা জমিতে আমবাগান রয়েছে বলে তিনি জানান।জামতলার গোলাম আজম এ বছর বিশ লাখ টাকা দিয়ে ১৭টা বাগান কিনেছেন বলে জানান।তিনি বলেন, আবহাওয়া অনুকূল থাকলে এ বছর সাড়ে তিন থেকে চার লাখ টাকা লাভ হবে বলে আশা করছি।এ বছর প্রচুর মুকুল এসেছে। এখন এগুলো হপার পোকা ও ছত্রাকের আক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য প্রতিনিয়ত খেয়াল রাখছি। বিভিন্ন ধরনের তরল কীটনাশক স্প্রে করা হচ্ছে। এতে মুকুল সতেজ থাকবে। ফলন ও বাম্পার হবে।প্রতিবিঘা বাগান ৩০ থেকে ৪৫ হাজার টাকায় কেনাবেচা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, এছাড়া বিঘাপ্রতি আরও ১০-১২ হাজার টাকা খরচ হয়। আবহাওয়া ঠিক থাকলে খরচ বাদে লাভ হবে বিঘাপ্রতি হাজার দশেক।উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হীরক কুমার সরকার জানান,”শার্শা উপজেলায় এ বছর এক হাজারের বেশি খামারি আম চাষ করছেন। আমের কারবার নিয়ে এ অঞ্চলের ২০ হাজার মানুষের মৌসুমি কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে।গত বছরের তুলনায় এ অঞ্চলে এবার মুকুল এসেছে বেশি। আবহাওয়া অনুকূল থাকলে আর বিভিন্ন ধরনের পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষা করা গেলে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।আর এ আশায় বুক বাধছে আম চাষীরা।তাকিয়ে আছে উজ্বল সম্ভাবনার দিকে”। আর প্রতিবছর এই আম মৌসুমে বাগআঁচড়া কলেজ রোডে ও বাগুড়ী বেলতলা বাজারে গড়ে ওঠে প্রায় একশত আমের আড়ত।জমে ওঠে জমজমাট এ আড়ত ব্যবসা।ঢাকা,বরিশাল,মাদারীপুর,কানসার্ট,রাজশাহী, চট্রগ্রাম,কুমিল্লা সহ দেশের বিভিন্ন এলাকার শতশত আম ব্যাপারীরা এসে ভিড় জমায় এলাকার এসব আড়ত গুলোতে।প্রতিদিন এখান থেকে প্রায় ৫০/৬০গাড়ী আম লোড হয়ে দেশের বিভিন্ন স্হানে চালান হয়।এলাকার মানুষের এ আম ব্যাবসাকে কেন্দ্র ঘিরে বেড়ে যায় কর্মচঞ্চলতা।দিনরাত ২৪ ঘন্টাই জমজমাট থাকে ব্যাবসায়িক কেন্দ্রগুলো।প্রতিদিন প্রায় কোটি টাকার লেনদেন হয় এখানে।
কৃষি কর্মকর্তা আরো জানান, উপজেলায় শুধু হিমসাগর, ল্যাংড়া, ফজলি, গোপালভোগ, আম্রপালি, রুপালি ও মল্লিকারই ২৭৫টি বাগান রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here