বাঘারপাড়ার আমজেদ মোল্লাসহ চারজনের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের মামলা করে হুমিকতে বাদী।

0
232

যশোর প্রতিনিধি : যশোরের বাঘারপাড়ার রাজাকার আমজেদ মোল্লাসহ চারজনের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে আদালতে মামলা করে বিপাকে পড়েছে বাদী ও সাক্ষীরা। মামলা তুলে নিতে বাদীকে হুমকি দেওয়ার অভিয়োগ পাওয়া গেছে। এতে বাদী এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে পলাতক ছিলেন। সাক্ষীরাও আতংকে রয়েছেন।

গত ৬ এপ্রিল মাগুরা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মাগুরার শালিখা উপজেলার সীমাখালি গ্রামের রজব আলী বিশ্বাসের ছেলে খোকন বিশ্বাস বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন। মামলার আসামিরা হলো- যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার প্রেমচারা গ্রামের মৃত. সোবহান মোল্লা, একই গ্রামের মৃত বুধোই মোল্লার ছেলে ওহাব ও একই উপজেলার খুদড়া গ্রামের মৃত মনসুর আলী মোল্লার ছেলে ফসিয়ার মোল্লা।
মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ১৫ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে মাগুরার সীমাখালি বাজারের পাশে তাদের বাড়ি সংলগ্ন আমবাগানের দাঁড়িয়ে ছিলেন আসামি আমজেদ রাজাকারের নেতৃত্বে আসামিগণসহ ১০/১২জন। আসামিরা তার পিতাকে অপহরণ করে যশোরের বাঘারপাড়া থানার চাঁদপুর গ্রামে ইফাজ মোল্লার আম বাগানে নিয়ে যায়। সেখানে বাদীর পিতাকে গামছা দিয়ে চোখ ও দড়ি দিয়ে হাত বেঁধে বাগানের দক্ষিণ পাশে নিয়ে দুপুর ১টার দিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে জবাই করে হত্যা করে। বাদী ও স্বাক্ষীগণ বিকেল ৫টার দিকে বাদীর পিতার লাশ গরুর গাড়ীতে করে নিজ বাড়িতে এনে কবর দেয়।
৬ এপ্রিল মাগুরা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শম্পা বসু অভিযোগ আমলে নিয়ে মামলাটি ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে’ প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন। আদালতের নির্দেশের পর আসামিরা বাদীকে নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বাদীকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে আসামিরা। এক সপ্তাহ পলাতক ছিলেন মামলার বাদী খোকন বিশ্বাস।
জানতে চাইলে মামলার বাদী খোকন বিশ্বাস বলেন, কুখ্যাত আমজেদ রাজাকারের নেতৃত্বে আমার বাবাকে তুলে নিয়ে গিয়ে জবাই করে হত্যা করা হয়। পিতা হত্যার বিচার চেয়ে আদালতে মামলা করেছি। মামলা করার পর থেকে আসামিরা প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। বাড়িঘর রেখে এক সপ্তাহ পালিয়ে ছিলাম। পরে আমার ভাইয়ের আমাকে বাড়িতে এনেছে। আমি পিতা হত্যার বিচার চাই।
বাঘারপাড়ার প্রেমচারা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধ আবু বক্কর বলেন, আমজেদ মোল্লা ছিল এই এলাকার রাজাকার ক্যাম্পের ইনচার্জ (ওসি)। তার নেতৃত্বে এই অঞ্চলে হত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট করেছে। তার সহযোগী ছিল আয়নাল, ফসিয়ার, আনার, সোবহান, নওশের। আমজেদ রাজাকারের নেতৃত্বে সুরো ও মুক্তারকে তুলে এনে বিজয় দাসের আমবাগানে গুলি করে হত্যা করা হয়।
মুক্তিযোদ্ধা আবু বক্কর আরও বলেন, আমি মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলাম বলে আমাদের বাড়িতে লুটপাট করে আমজেদ মোল্লার নেতৃত্বে রাজাকাররা। আমার পিতাকে রাজাকার ক্যাম্পে নিয়ে অমানুষিক নির্যাতন চালায়। রক্তাক্ত অবস্থায় পরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।
প্রেমচারা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ওহিদুর রহমান মোল্লা বলেন, আমজেদ মোল্লা এলাকার চিহ্ণিত রাজাকার। ১৯৭১ সালে তার নেতৃত্বে ৩৩জন রাজাকার নির্মম নির্যাতন চালিয়েছে। চানপুরের দুইজন, গাইদঘাটের দুইজনকে তুলে নিয়ে প্রেমচারা গ্রামের বিজয় দাসের আম বাগানে হত্যা করে করেছিল আমজেদ মোল্লার নেতৃত্বে রাজাকাররা। মুক্তিযোদ্ধা ওহিদুর রহমান মোল্লার বাড়িতেও লুটপাট, অগ্নিসংযোগ করে আমজেদ রাজাকার ও তার সহযোগীরা।
স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারাও আমজেদ মোল্লা ও তার সহযোগীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here