বাঘারপাড়ায় কাল বৈশাখি ঝড়ে ফসলের ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি ও বিদ্যুৎবিভ্রাটে জনর্দূভোগ চরমে

0
623

অনুপম দে,বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি:বাঘারপাড়া উপজেলায় কাল বৈশাখি ঝড় ও অতি বর্ষনে বোরো ধান, আম লিচুসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এর ফলে কৃষকদের মাঝে হতাশা বিরাজ করছে। কৃষকের মুখের হাসি ফুরিয়ে গেছে।এছাড়া ভেঙ্গে ও উপড়ে পড়েছে অসংখ্য গাছপালা। যে কারনে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে গোটা উপজেলা ।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে বাঘারপাড়া পৌরসভাসহ উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নে রোববার রাতে ও সোমবার সকালে প্রচন্ড ঝড় ও বৃষ্টির কারনে ধানের শীষ বের হওয়া বোরো ধান হেলে মাটির সাথে শুয়ে পড়েছে। কোথাও আবার পানির নিচে নিমজ্জিত হয়েছে ধান ক্ষেত। জলেশ্বর বিলের ধান ক্ষেত পানিতে টইটুম্বুর হয়ে গেছে। শীষ বের হওয়া আধা পাকা বোরো ও কাটার উপযোগি জিরা ধান হেলে পানিতে ডুবে যাওয়ায় ফলন কম হওয়ার শংকায় রয়েছেন কৃষকরা। এমনকি ধান না হওয়ার আশংখা করছেন কৃষকরা। ধলগ্রামের কৃষক হুসাইনের সাথে কথা হয়। তিনি হতাশার সুরে বলেন‘দুই বিঘার মত জিরা ধান কেটে কিছু ঘরে তুললেও এখনও তার পৌনে ৩ বিঘা ধান পানির নিচে রয়েছে । যে কারনে শংকা রয়েই গেছে’। একই ধরনের শংকার কথা বলেন কৃষক প্রভাত,অজিত বিশ্বাস,সীমা বিশ্বাস ও রাজীব কুমার। এর মধ্যে রাজীবের ৫ বিঘা আর মহিলা কৃষক সীমা বিশ্বাসের ১ বিঘা জমির ধানই পানির নিচে পড়ে থাকায় দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা। এ ব্যাপারে বাঘারপাড়া উপজেলা উপ-সহকরী কৃষি কর্মকর্তা আহমেদ আলী জানান,এ বছর ১৪ হাজার ২’শ ৯৫ হেক্টর জমিতে বোরোর আবাদ হয়েছে। যার মধ্যে রোববারের ঝড়ে আক্রান্ত হয়েছে ১১ হাজার ৪’শ ৩৫ হেক্টর। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছে মুগডাল ১২৫ হেক্টর,তিল ২০০ হেক্টও ও মরিচ ৩৫ হেক্টর। দুই এক দিনের মধ্যে পানি সরে গেলে ক্ষতির পরিমান কম হবে বলেও জানান এই কৃষি কর্মকর্তা। অন্য দিকে ঝড়ে গাছপালা ভেঙ্গে ও উপড়ে পড়ায় বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে কয়েকটি এলাকা। বাঘারপাড়া পল্লী বিদ্যুতের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার ইউনুস আলী জানান উপজেলার করিমপুর,হাবুল্যা ও শেখের বাতানে তিনটি বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে গেছে। যে কারনে ওই তিন এলাকার ৩ শতাধিক পরিবারে বিদ্যুৎ সরবরাহে বিঘœ ঘটেছে। মঙ্গলবার উল্লেখিত এলাকায় বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here