বাঘারপাড়া থানা পুলিশের ঈদ বানিজ্যের কৌশল অবৈধ অর্থের বিনিময়ে মুক্তির ঘটনা তদন্ত শুরু হয়েছে

0
365

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোরের বাঘারপাড়া থানা পুলিশ ঈদ উপলক্ষ্যে নুতন করে বানিজ্য শুরু করার এক পর্যায় কারাগার থেকে জামিনে বের হওয়া ব্যক্তিদের গ্রেফতার পূর্বক মোাটা অংকের উৎকোচে মুক্তির ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়েছে। খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত মহা পুলিশ পদিরর্শক একরামুল হাবিব বুধবার বিকেলে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন বলে নির্ভরযোগ্য সুত্রগুলো নিশ্চিত করেছেন।
গত কয়েকদিন খুলনা ও যশোরের পত্রপত্রিকায় বাঘারপাড়া থানা পুলিশ ঈদ উপলক্ষে কারাগারের প্রধান গেট থেকে জামিনে বের হওয়া ব্যক্তিদের ধরে থানা হাজতে রেখে মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করে। পরে চাহিদা মোতাবেক অর্থ পেয়ে মুক্তি দেয়। সূত্রগুলো জানায়, গত সোমবার ১৯ জুন যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে বের হওয়া আজিজুর রহমান (৪৭)নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে বাঘারপাড়া থানা পুলিশ নিয়ে যায়। সে বাঘারপাড়া উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের যশরত আলীর ছেলে। এছাড়া, গত ১৪ জুন যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রধান ফটক হতে বাঘার পাড়া উপজেলার ধুপখালি গ্রামের মৃত শুকুর সিদ্দিক মোল্যার ছেলে ইকরাম হোসেন,একই গ্রামের মৃত মুজিব মোল্যার ছেলে নাজিম,মৃত মোমিন মোল্যারছেলে জিয়ারত ও একই উপজেলার নলডাঙ্গা গ্রামের মালেক বিশ্বাসের ছেলে ওহিদুলকে গ্রেফতার করে । পরে রাতে বাঘার পাড়া থানা পুলিশ কোতয়ালি থানা থেকে আটক ব্যক্তিদের নিয়ে যায়। বাঘার পাড়া থানায় তাদেরকে আটকে রেখে মাথা পিছু ১লাখ টাকা করে চাওয়া হয়। এক পর্যায় দেন দরবারের মাধ্যমে মাথা পিছু ৩০ হাজার টাকা হারে ১লাখ ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে বাঘারপাড়া থানা হাজতে থাকা আটককৃতদের মুক্তি দেওয়া হয়। আটক ব্যক্তিদের পক্ষে যশোরের একটি পত্রিকায় কর্মরত একজন সংবাদ কর্মী বাঘার পাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে ফোন দেন। বাঘারপাড়া থানা কর্তা তার কাছে মোাটা অংকের উৎকোচ দাবি করে। এক পর্যায় ওই গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিকে ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেন। সুত্রগুলো জানিয়েছেন, পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর খুলনা রেঞ্জের পুলিশ কর্তাদের দৃষ্টিতে আসেন। বুধবার বিকেলে বাঘার পাড়া থানা কর্তাকে তলব করা হয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাঘারপাড়া থানা কর্তাসহ যারা এ ঘটনার সাথে জড়িত তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here