বাজারসহ গ্রাম-গঞ্জে ব্যাঙ্গের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে লাইসেন্সবিহীন ত্তষুধের দোকান

0
237

উত্তম চক্তবর্ত্তী : যশোরের মনিরামপুর উপজেলার বাজারসহ গ্রাম-গঞ্জের  ওষুধ ব্যবসায় মুনাফার হার কত ? এ নিয়ে বিভিন্ন রকম হিসাব রয়েছে ব্যবসায়ীদের মধ্যে । সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, নতুন ব্যবসায়ীদের সাধারণত গড় লাভ থাকে ১০-১২ শতাংশ, আর পুরনোদের ৩০-৩৫ শতাংশ । অদ্ভুত এই হিসাব ওষুধ ব্যবসায়ীদের নিজেদের । পুরনো ফার্মেসি মালিকদের অনেকেই মুনাফার কারসাজিতে অভিজ্ঞ । সে কারণে সাধারণু মানুষের ‘পকেট কাটার’ নানা কৌশল অবলম্বন করে লাভও করতে পারছেন বেশি । অন্যদিকে, লোকসানের কারণে ওষুধের দোকান বন্ধ হয়ে গেছে এমন নজির খুব কম । বরং  নিয়মিত বাড়ছে ওষুধের দোকান । ওষুধ প্রশাসনের কার্যকর তদারকির অভাবে বাজারসহ সারা উপজেলায় লাইসেন্স ছাড়াই গড়ে উঠেছে শতাধিক  ফার্মেসি । ওষুধ বিক্রির পর টাকা দেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় অনেকটা অল্প পুঁজিতেও ব্যবসা করতে পারছে ফার্মেসিগুলো । এ কারণে উপজেলার জনবহুল এলাকাগুলোতে খুব সহজেই গড়ে উঠছে নতুন নতুন ফার্মেসি । নিয়ন্ত্রক সংস্থা ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের লাইসেন্সধারী ওষুধের দোকান অল্প কিছু হবে । বাজারের প্রায় বেশিরভাগ ফার্মেসীগুলোতে ড্রাগ লাইসেন্স থাকলেও অনেকের আবার নবায়ন নেই ।  উপজেলার বাজারে কয়েকজন ফার্মেসি ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ওষুধ ব্যবসায় লাভ লোকসান নির্ভর করে অভিজ্ঞতার ওপর । নতুন ব্যবসায়ীদের লাভ থাকে ১০-১২ শতাংশ, আর পুরনোদের গড়ে ৩০-৩৫ শতাংশ । পুরনো ব্যবসায়ীদের অধিকাংশই ‘বুদ্ধি’ খাটিয়ে পাল্টে দেন মুনাফার চিত্র । কাছাকাছি নামের যে ঔষধগুলো রয়েছে সে ওষুধটি অনেক ফার্মেসি মালিক ক্রেতাদের অসচেতনতার সুযোগে গছিয়ে দিচ্ছেন । মুনাফা করছেন কয়েকগুণ । কিন্তু অসুস্থতায় আরোগ্যের আশায় সেবন করলেও রোগীর সমস্যা কাটে না । জানা গেছে, ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন দেখিয়ে কোনো ফার্মেসিতে ‘রোলাক’ কিনতে চাইলে এক সঙ্গে রাখা ‘কেটো রোলাক’ গছিয়ে দেওয়া হয় । খুচরা কিনতে চাইলে কেচি দিয়ে এমনভাবে কাটা হয় যাতে শুধু ‘রোলাক’ লেখাটি চোখে পড়ে না । এক্ষেত্রে শিক্ষিত মানুষের পক্ষেও কারসাজি ধরা সম্ভব নয় । ফার্মেসি কর্মীদের কারসাজিতে ৫ টাকার ওষুধ কিনতে হচ্ছে ২৫ টাকায় । কিন্তু এর কার্যকারিতা পাওয়া যাচ্ছে না । ব্যথা উপশমের আরও একটি ওষুধ রকেট । খুচরা বাজারে ১০টির প্রতি পাতার দাম ১০০ টাকা । প্রায় একই রকম দেখতে অন্য একটি ওষুধ ডবল । এটির প্রতি পাতার দাম মাত্র ১০ টাকা । এক সঙ্গে বেশি কিনলে আরও অনেক কমে পাওয়া যায় । দুটি ওষুধের মোড়ক দেখে পার্থক্য করা কঠিন । কিন্তু একটির বদলে অন্যটি ক্রেতাকে গছিয়ে দিলে মুনাফা পাওয়া যায় চার-পাঁচগুণ । এটা বিশেষ করে গ্রামগঞ্জের ফার্মেসিগুলোর চিত্র । মফস্বলের ওষুধের দোকানগুলোর অবস্থা আরও ভয়াবহ । সেখানে নকল, ভেজাল ও নিুমানের ওষুধের ছড়াছড়ি । তদারকির কোনো ব্যবস্থাই নেই ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here