বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকা সত্বেও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যর দাম,নিয়ন্ত্রনহীন বাজার

0
644

এম আর রকি : বাজারে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকা সত্বেও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে পিয়াজ রসুন ও আলুর দাম। ক্রেতাগনকে জিম্বি করে সিন্ডিকেট করে অসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক মূনাফার আশায় প্রতিদিন নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। জেলা প্রশাসনের তদারকির অভাবে সকাল থেকে বেলা ২ টার মধ্যে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বাজারে দোকান্দারগণ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের দাম চড়া মূল্যে বিক্রি করে অধিক মূনাফা আদায় করছে। খুচরা দোকান্দারগণ অধিক মূল্যের জন্য বাজারে নাম করা প্রতিষ্ঠিত আড়ত মালিকদের দুষছেন। তারা ক্রেতাদের বলছেন আড়ত থেকে চড়া মূল্যে তাদের কাছ থেকে পিয়াজ,রসুন ও আলুসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিষপত্রের দাম নেওয়ায় তারা
অল্প লাভ করে ভোক্তাদের কাছে বিক্রি করছেন।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,গতকাল রোববার ১২ এপ্রিল যশোর বড় বাজারে পিয়াজ কোন কোন দোকানে খুচরা মূল্যে কেজি প্রতি ৪৫ টাকা আবার কোন দোকানে ৪০ টাকা,রসুন কেজি প্রতি ১১০ টাকা আবার কোথাও ১শ’ টাক এবং আলু কেজি প্রতি ১৯ থেকে ২২ টাকা পর্যন্ত কেনাবেচা হয়েছে। পিয়াজ,রসুন ও আলুর বাজার ছাড়াও অন্যান্য মালামাল কেজি প্রতি ৩ থেকে ৩০ টাকা বেশী দামে বিক্রি হচ্ছে। সকাল থেকে বেলা ২ টা পর্যন্ত বাজারে মুদি ও কাঁচা বাজার চালুর অনুমোদন থাকার সুযোগে ভোক্তাদের কাছে ইচ্ছা মাফিক দাম হাকিয়ে বিক্রি করছে। ভোক্তাদের ঠকিয়ে কতিপয় ব্যবসায়ীরা রাতারাতি কোটি টাকা মূনাফা অর্জন করছেন। বড়বাজার ছাড়াও যশোর শহরের বিভিন্ন এলাকায় গড়ে ওঠা ছোট খাটো বাজার গুলিতে চড়া মূল্যে নিত্য প্রয়োজনীয় মালামাল বিক্রি হচ্ছে। অথচ দেশের বিভিন্ন মোকাম থেকে প্রতিরাতে অন্যান্য সময়ের মতো ট্রাক পিকআপ ভরে পিয়াজ,রসুন,আলুসহ বিভিন্ন পন্য সামগ্রী আসতে দেখা যায়। সব মালামাল আসছে পূর্বেন্যায় অথচ দাম বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। অপরদিকে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যে সব হ্যান্ড ওয়াসসহ যা বিক্রি হচ্ছে তার মধ্যে নকলের পরিমান বেশী। ১১ এপ্রিল যশোরের জেলা প্রশাসন শহরের লোহাপট্টি এলাকায় অভিযান চালিয়ে নকল হ্যান্ডস্যানিটাইজার তৈরীর কারখানার সন্ধ্যান পান। উক্ত কারখানার মালিক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহকে ধরে ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। কার খানাটি সীল গালা করে দেওয়া হয়েছে। নকল স্যানিটাইজার প্রসাধনী স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হওয়ায় সেগুলি ধ্বংস করা হয়েছে। এভাবে,করোনা ভাইরাসকে পুঁজি করে যশোর বড় বাজার ও জেলার বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে নকল স্যানিটাইজার ও প্রতিষেধক পন্য তৈরীর কারখানা। তাই বাজার থেকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যে সব মালামাল কেনা হচ্ছে সেগুলি থেকে মানুষ যাতে বড় ধরনের রোগে আক্রান্তর শিকার না হয় সে ব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকার আহবান জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।তাই অবিলম্বে বাজার নিয়ন্ত্রন করতে জেলা প্রশাসকসহ পুলিশ প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছের ভোক্তারা।