বারোবাজারে সড়কে ঝরলো ১১ প্রাণ

0
78

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের বারোবাজারে ট্রাকের ধাক্কায় যাত্রীবাহী বাস উল্টে ১১ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত কমপক্ষে ৩৫ জন যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ও কালীগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বুধবার বিকেল ৩ টার দিকে যশোর – ঝিনাইদহ মহাসড়কের কালীগঞ্জ উপজেলার বারবাজার তেলপাম্পের কাছে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহতরা হলেন সরকারি এম এম কলেজের মাস্টার্স পরীক্ষার্থী চুয়াডাঙ্গার ডিঙ্গেদহের আব্দুর রশিদের কন্যা রেশমা (২৩), একই জেলার নাগদা গ্রামের জান্নাতুল বিশ^াসের পুত্র অলিউল আলম শুভ (২৬), কালীগঞ্জ উপজেলার সুন্দরপুর গ্রামের ইছাহক মন্ডলের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান (২৬) ও বড়ভাটপাড়া গ্রামের রনজিত দাসের পুত্র সনাতন কুমার দাস (২৬) ও ঝিনাইদহের নাথকুন্ডু গ্রামের অহেদ আলীর পুত্র ইউনুচ আলী (২৬), বাগুড়ার শৈলকূপা গ্রামের আব্দুল আজিজ(৭৫), মাগুরার বারুই গ্রাম জয়ন্ত রায়ের ছেলে উজ্জ্বল রায় (৪৯)। বাকিদের পরিচয় জানা যায়নি। 

প্রত্যক্ষদর্শী ও উদ্ধার কাজে অংশ নেয়া পুলিশসহ কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শেখ মামুনুর রশিদ  জানান, যাত্রীবাহি জে কে পরিবহনের ঢাকা মেট্রো ব- ১১-০২১৪ নম্বর বাসটি যশোর থেকে ঝিনাইদহের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। পথিমধ্যে কালীগঞ্জ উপজেলার বারবাজার তেল পাম্পের নিকটে পৌঁছে অপর একটি বাসকে ওভারটেক করতে যাচ্ছিল। এ সময় হঠাৎ তার সামনের দিক থেকে আসা একটি ট্রাককে পাশ দিতে গিয়ে ধাক্কা খায়। এতে দ্রতগামী বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার উপরেই আছড়ে পড়ে উল্টে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী সাদিকপুর গ্রামের সাজেদুল ইসলাম জানান,  মহাসড়কের উপরেই উল্টে পড়া যাত্রী ভরা বাসের ভেতর থেকে  শোনা যাচ্ছিল বাঁচাও বাঁচাও আহাজারী আর কান্নার রোল। রাস্তার উপর বয়ে যাচ্ছিল রক্তের স্রোত। কম আহত দুই একজন বের হচ্ছেন রক্তাক্ত অবস্থায়। আশপাশের গ্রামের মানুষ দৌড়ে আসে বাঁচাতে। বিপদগ্রস্তরা তাদের রক্তের কেউ না হলেও যেন কত আপনজন। অনেকে চোখের জল ফেলতে থাকেন। এ সময় অনেকের সাথে সাহায্যের হাত মেলান স্থানীয় সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার। তিনি নিজেই বাসের মধ্যে ঢুকে আহতদের উদ্ধার কাজে হাত লাগান।

অপর একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান রাস্তার ওপর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন এক ব্যক্তি। এ সময় দ্রুতগতিতে আসছিল বাস। ওই ব্যক্তিকে দেখে হঠাৎ ব্রেক করেন বাসচালক। এতেই ঘটে মারাত্মক দুর্ঘটনা। বাসটি রাস্তার ওপর উল্টে যায়। এসময় দ্রুতগতিতে আসা একটি ট্রাক বাসটির মাঝ বরাবর ধাক্কা দেয়। এতে বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়।

এদিকে নিহতদের লাশ কালীগঞ্জ হাসপাতালে আনার পর লাশের শনাক্তে উৎসুক জনতার ভীড় জমে। সারিবদ্ধ লাশ দেখে শোকে ভারী হয়ে উঠে পরিবেশ। নিহতের স্বজনদের মধ্যে ক্রন্দনরত সাইফুল ইসলাম কাঁদতে কাঁদতে জানায়, তার ভাইপো ইউনুচের আর বাড়ি ফেরা হলো না। জীবনের শেষ পরীক্ষা দিয়েই সে পরপারে চলে গেল।

দুর্ঘটনার পর ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ ও কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সূবর্ণা রানী সাহা ঘটনাস্থল ও হাসপাতাল পরিদর্শন করেছেন।

দুর্ঘটনার পর পরই ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজে অংশ নেওয়া সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার জানান,  এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। 

কালীগঞ্জ দমকল বাহিনীর স্টেশন অফিসার মামুনুর রশিদ বলেন, ‘আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখি বাসটি (ঢাকা-মেট্রো-গ-১১০২১৪) রাস্তার ওপর উল্টে পড়ে আছে। সেখান থেকে ১০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এছাড়া আহতদের যশোর ও কালীগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।