বাড়িতে চাকরির কথা বলে ঢাকায় আসে ‘জঙ্গি’ সাইফুল

0
238

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর পান্থপথে হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনালে পুলিশের অভিযানে নিহত ‘জঙ্গি’ সাইফুল ইসলাম বাড়িতে চাকরির কথা বলে ঢাকায় যায় বলে জানিয়েছেন তার দুই বোন ইরানী ও তামান্না। সাইফুল খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার সাহস ইউনিয়নের নোয়াকাঠি মাঠের হাট মসজিদের ইমাম মাওলানা আবুল খায়েরের ছেলে ও খুলনা বিএল কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র।
পুলিশের দাবি, সাইফুল নব্য জেএমবির সক্রিয় সদস্য। ধানমন্ডি-৩২ নম্বর কেন্দ্রিক শোক মিছিলগুলোতে হামলার টার্গেট ছিল তার।

রাজধানীর পান্থপথে হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনালে অভিযানের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের পুলিশ মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক এক ব্রিফিংয়ে বলেন, নিহত ‘জঙ্গির’ নাম সাইফুল ইসলাম। তার বাড়ি খুলনার ডুমুরিয়া থানায়। তার বাবা একটি মসজিদের ইমাম। ওই জঙ্গি নিজেও মাদ্রাসার ছাত্র ছিল, খুলনা বিএল কলেজের ছাত্র ছিল, এক সময় শিবির করত।

তবে, নিহত সাইফুল ‘জঙ্গি’ ছিল বলে বিশ্বাস করতে চাইছে না তার পরিবার ও গ্রামবাসী। তাদের মতে, ‘দরিদ্র পরিবারের সন্তান সাইফুল খুবই ভালো ছেলে। দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে সাইফুল সবার বড়। বাবার অনুপস্থিতিতে সে মাঝে মধ্যে মসজিদে ইমামতি করতো। তার আচরণে কখনো তাকে জঙ্গি বলে মনে হয়নি। ’

এদিকে, পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের বাবা আবুল খায়েরসহ ৪ জনকে আটক করেছে বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ডুমুরিয়া উপজেলার সাহস ইউনিয়নের নোয়াকাঠি গ্রাম থেকে আবুল খায়েরকে আটক করা হয়। একই ঘটনায় সাইফুলের পূর্ব পরিচিত মো. সানি (২২), ইসান (২১) ও এজাজ মোল্লা (২৫) নামের আরো তিন যুবককে আটক করা হয়। তবে তাদেরকে আটকের কথা স্বীকার করেনি পুলিশ। আর জিজ্ঞাসাবাদের পর আবুল খায়েরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

সরেজমিনে মঙ্গলবার সকালে নিহতের বাড়িতে গেলে দেখা যায়, টিনের ছাপড়া ও মাটির দেওয়ালের ঘরটিকে ঘিরে উৎসুক গ্রামবাসী ভিড় জমিয়েছেন। ঘরে আসবাবপত্র বলতে দু’টি চৌকি (খাট), কাঠের একটি আলনা, একটি বড় স্টিলের ট্রাংক (বাক্স), একটি টেবিল। এই বাড়িতে সাইফুল বাবা-মা ও দুই বোনকে নিয়ে থাকতেন। তবে পড়াশোনার জন্য সাইফুল অধিকাংশ সময় খুলনা মহানগরীর দৌলতপুরের হোস্টলে থাকতো বলে জানা গেছে।

স্থানীয় মসজিদে ইমামতি করায় সাইফুলের বাবা আবুল খায়ের এলাকায় সজ্জন ও সন্মানিত ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত। মা আসমা বেগম বাক প্রতিবন্ধী। ইমামতির সামান্য বেতন ও এলাকার মানুষের মুষ্টি চালে তাদের সংসার চলে। আর্থিক দৈন্যতায় ছেলে-মেয়েরা লিল্লাহ বোর্ডিংয়ে থেকে পড়াশোনা করেছে।

সাইফুলের চাচা আবদুর রউফ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সাইফুল জঙ্গি নয়, ভালো ছেলে। এটা ভুল হয়েছে। ’ স্থানীয় শিক্ষক মো. আইয়ুব আলী সরদার জানান, ‘সে (সাইফুল) পড়াশোনায় মেধাবী ছিল। উলা দাখিল মাদ্রাসা থেকে ‘গোল্ডেন এ’ প্লাস পেয়ে দাখিল পাস করেছে। বাবার অনুপস্থিতিতে মাঝে মধ্যে সে ইমামতি করতো। তার আচরণে জঙ্গি বলে মনে হয়নি। ’

জানা যায়, সাইফুলের সাথে সর্বশেষ গত রবিবার মোবাইল ফোনে তার বোন ডুমুরিয়া আলীয়া মাদ্রাসার ছাত্রী ইরানীর কথা হয়। ইরানী পুলিশকে জানিয়েছে, ঢাকায় টিউশনি যোগাড় করে দেবে বলে সাইফুলের এক বন্ধু তাকে ঢাকায় নিয়ে যায়। টিউশনি করে যে টাকা পাবে তা’ দিয়ে পড়াশোনার খরচ চালাতে পারবে বলে সাইফুল তাকে জানিয়েছিল। মঙ্গলবার তার বাড়িতে আসার কথা ছিল বলে ইরানী জানায়। এর আগে, গত ৭ আগস্ট খুলনা থেকে বাসযোগে সাইফুল ঢাকায় যায়।

খুলনা পুলিশ সুপার (এসপি) নিজাম উদ্দিন মোল্লা জানিয়েছেন, সাইফুলের বাবা ডুমুরিয়া উপজেলার সাহস ইউনিয়ন জামায়াতের কোষাধ্যক্ষ। তাকে সকালে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হলেও কিছুক্ষণ পর ছেড়ে দেওয়া হয়। তবে ঘটনার পর থেকে তার কোন খোঁজ-খবর পাওয়া যায়নি বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও বন্ধ রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here