বিএনপি নেতা বক্তব্য ভাইরাল ‘ফিরে আসবে দেশনেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ’

0
28

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির গণসমাবেশে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান আজম খানের দেয়া বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। বক্তব্যের শুরুতে তিনি বলেন, ‘টেক ব্যাক বাংলাদেশ। ফিরে আসবে জিয়াউর রহমানের গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ। ফিরে আসবে দেশনেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। ফিরে আসবে দেশনায়ক তারেক রহমানের বাংলাদেশ।’
‘ফিরে আসবে দেশনেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ’

শনিবার (১০ ডিসেম্বর) রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠে বিএনপির গণসমাবেশে এ বক্তব্য দেন তিনি।

আজম খান বলেন, ‘আমাদের সাত জন সংসদ সদস্য একাদশ জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। জাতীয় পার্টির এমপিদের বলব আগামীকালের মধ্যে আপনারাও পদত্যাগ করুন, জনগণের কাতারে চলে আসুন। ওই কাওয়া কাদেরদেরকে এই দেশটাকে নিয়ে আর খেলা করতে দেব না। বাংলাদেশটা জনগণের, এর নেতৃত্ব দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার, আর আমাদের নেতা দেশনায়ক তারেক রহমান। টেক ব্যাক বাংলোদেশ, ফিরে আসবে জিয়াউর রহমানের গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ। ফিরে আসবে দেশনেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। ফিরে আসবে দেশনায়ক তারেক রহমানের বাংলাদেশ। তৈরি হয়ে যান পরবর্তী চূড়ান্ত কর্মসূচির মহাপ্রলয়ের জন্য, তৈরি হয়ে যান।’

এর আগে, দুপুর দেড়টার দিকে রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠের গণসমাবেশে উপস্থিত হয়ে বিএনপির ৭ জন সংসদ সদস্য (এমপি) একাদশ জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

পদত্যাগের ঘোষণা দেয়া ৭ এমপি হলেন: বগুড়া-৬ আসনের এমপি গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ, বগুড়া-৪ আসনের এমপি মোশারফ হোসেন, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের এমপি জাহিদুর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের এমপি আমিনুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের এমপি হারুনুর রশীদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের এমপি আবদুস সাত্তার ভূঞা এবং সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি রুমিন ফারহানা।

সমাবেশে এমপি গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বলেন, নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবিতে আন্দোলনে থাকা বিএনপি আর সংসদে যাবে না। দলের সব সংসদ সদস্য পদত্যাগপত্রে সই করেছেন। যেকোনো সময় তা স্পিকারের কাছে জমা দেয়া হবে।

পদত্যাগের বিষয়ে রুমিন ফারহানা বলেন, ‘স্বাক্ষর করা পদত্যাগপত্রের কপি ই-মেইলের মাধ্যমে স্পিকারের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি। রোববার (১১ ডিসেম্বর) জাতীয় সংসদে পাঠিয়ে দেব। আজ থেকে শেখ হাসিনার অবৈধ সংসদে আমরা নেই।’

তিনি বলেন, ‘সংসদে আমরা জনগণের পক্ষে কথা বলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু বারবার আমাদের মাইক বন্ধ করে দেয়া হয়। এ সংসদে থাকা আর না থাকা সমান।’