বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এপ্লাসে উত্ত্বীর্ন ছেলেকে নিয়ে বিপদে ঝিনাইদহের সাবিত্রী রানী

0
276

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঝিনাইদহ : ১০ বছর আগে বাবা মারা গেছে। পরের বাড়ি কাজ করে যা পাই, তা দিয়ে দুই ছেলের লেখাপড়ার খরচ মিটিয়েছি। অদম্য দুই ছেলেই দিনের বেলা কাজ করে আর রাতে লেখাপড়া করে। মাত্র ১ শতক জমি আমার আর কোনো সম্বল নেই। কথাগুলো বলছিলেন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার চাঁচড়া গ্রামের অদম্য এক মেধাবীর মা সাবিত্রী রানী।

মেধাবী কিশোর বিশ্বাস এবারের এসএসসি পরীক্ষায় চাঁচড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগে এ প্লাস পেয়েছে। সে কালীগঞ্জ উপজেলার চাঁচড়া গ্রামের মৃত আনন্দ বিশ্বাসের ছেলে। কিশোর বিশ্বাস জানায়, এই ফলাফলের জন্য স্কুলের ও প্রাইভেট শিক্ষকের অবদান অনেক। ছোট থাকতেই বাবাকে হারাই। এরপর লেখাপড়া প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। মায়ের ইচ্ছায় পড়াশোনা চালিয়ে যাই।

স্কুল বন্ধ থাকলে বা প্রয়োজনে পরের ক্ষেতে দিনে কাজ করেছি আর রাতে পড়াশোনা। ডাক্তার হয়ে তার মতো অসচ্ছল ও গরিব মেধাবী ছেলেমেয়েদের পাশে দাঁড়াতে চায় কিশোর। কিশোরের মা সাবিত্রী রানী বলেন, বড় ছেলেও মাছের ব্যবসা করে আর কলেজে ২য় বর্ষে পড়ে। ছেলেদের পড়ালেখার জন্য সমাজের বিত্তবানদের কাছে সহযোগিতা কামনা করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here