বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীতে যশোরে বর্ণিল আয়োজন

0
41

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তিতে এবার যশোরে বর্ণিল আয়োজনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। প্রথম স্বাধীন জেলা হিসেবে যশোরের রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়। সেই যশোরে বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীতে থাকছে ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানমালা। ৬ ডিসেম্বর ‘যশোর মুক্তদিবসে’ এই অনুষ্ঠানমালা শুরু হবে। বুধবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বিজয় দিবস ও বিজয়ের ৫০ বছরে উদযাপনে প্রস্তুতি সভায় এসব সিন্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে মুক্তিযোদ্ধা, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তারাসহ সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। প্রশাসনের এবারের ‘বিজয়ের আনন্দ উৎসব’ যেন যশোরবাসীর হৃদয়কে আপ্লুত করবে এমনটি প্রত্যাশা আয়োজকদের।
জানা যায়, আগামী ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয়ের ৫০ বছর। একই সাথে বছরটি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছর। ফলে এবারের উদযাপনে যোগ হয়েছে ভিন্নমাত্রা। তাই জেলা প্রশাসক ও যশোরের সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দদের আয়োজনে নেওয়া হয়েছে নান্দনিক অনুষ্ঠানমালা। রাষ্ট্রীয় সকল কর্মসূচির সাথে যোগ করা হয়েছে যশোরের ঐতিহ্য কৃষ্টি কালচারাল অনুষ্ঠান।
এদিকে, বাংলাদেশের বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তি ও বিজয়দিবসে ‘সাংস্কৃতিক উৎসব’ করবে যশোরের সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো। জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রায় ১৪দিন ব্যাপী যশোর শহর ও প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলে থাকবে নানান অনুষ্ঠানমালা। এসব অনুষ্ঠানের মূল উদ্যেশ্য থাকবে স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় চেতনাবোধ সৃষ্টি করা। ৫ ডিসেম্বর ৫০ জন চিত্রশিল্পী পৌরপার্কে মুক্তিযুদ্ধে যশোর রোড শিরোনামে ছবি আঁকবেন। ৬ ডিসেম্বর বিকাল ৩ টায় যশোর রোড সংলগ্ন পুলেরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে যশোর মুক্ত দিবস ও মাসব্যাপী বিজয় উৎসবের উদ্বোধন করবেন মাননীয় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য। উদ্বোধনের পরে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা সহকারে টাউন হল ময়দানে আসবে। টাউন হল ময়দানের রওশন আলী মঞ্চে ৬ হতে ১১ ডিসেম্বর সাংস্কৃতিক উৎসব চলবে। জেলার সকল সাংস্কৃতিব সংগঠনের শিল্পীদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠান চলবে প্রতিদিন বিকেল ৫টা হতে রাত ১০টা পর্যন্ত। ৭ ডিসেম্বর থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিকাল ৪টা থেকে ৫টা শিশুদের পরিবেশনায় আবৃত্তি, নৃত্য, সঙ্গীত, নাটক। বিকাল ৫.১৫ মিনিট থেকে রাত ৭.৪৫ মিনিট পর্যন্ত যশোর শহরের সাংস্কৃতিক সংগঠন সমূহ। রাত ৭.৪৫ মিনিট থেকে ৮.১৫ মিনিট পর্যন্ত উপজেলার সাংস্কৃতিক সংগঠন সমূহ। ৮.১৫ মিনিট থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত লোক সঙ্গীত। পরিবেশনায় যশোরের প্রত্যন্ত অঞ্চলের লোকশিল্পী। ১১ ডিসেম্বর বিকেল ৪টা থেকে টাউন হল ময়দানে সংস্কৃতি সমাবেশ ও সন্ধ্যা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত জেলা-উপজেলা ও লোক শিল্পীদের পরিশেনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। ১৭ ডিসেম্বর যশোর জেলার ৭টি উপজেলা শহরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এর পরে ১৮ ডিসেম্বর হতে ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রতিটি উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে আরো একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।
যশোর মুক্ত দিবস থেকে শুরু করে ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষে প্রস্ততি সম্পর্কে যশোরের জেলা প্রশাসন তমিজুল ইসলাম খান বলেন, যশোর একটি ঐতিহ্যবাহী জেলা। মহান স্বাধীনতা থেকে শুরু করে বিজয় দিবসে নানান গুরুত্ব বহন করে। মহান মুক্তিযুদ্ধে এই জেলাই প্রথমে হানাদার মুক্ত হয়েছিলো। তাই সেই হানদারমুক্ত দিবস থেকে বিজয়ের ৫০ বছর উদযাপন পর্যন্ত থাকবে নানান অনুষ্ঠান। রাষ্ঠ্রীয় সকল অনুষ্ঠানের সাথে এবার যুক্ত হয়েছে সাংস্কৃতিক ধারক-বাহকের জেলা যশোরের সাংস্কৃতিক সংগঠনের বন্ধুরা। জেলা প্রশাসন ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে প্রায় ১৪ দিন থাকবে নানান অনুষ্ঠান। এসব অনুষ্ঠানকে ঘিরে বিজয়ের মাসে শহরের উৎসব আনন্দে বিরাজ করবে। শহরের বিভিন্ন সড়ক ও সরকারি ও বেসরকারি ও পৌরসভার উদ্যোগে সাজানো হবে।