বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে অগ্রগতি বাড়াতে হবে

0
288

পিডিবি চট্টগ্রাম অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন বলেন, আগামী মাসের শেষ সপ্তাহের মধ্যেই রক্ষণাবেক্ষণ কাজ সমাপ্ত হলে লোডশেডিং তেমন থাকবে না। বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধানে পিডিবি কর্তৃপক্ষের সাথে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বৈঠকে তিনি এ আশ্বাস দেন। নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন চৌধুরীর চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে পিডিবির প্রধান প্রকৌশলীর সাথে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ জানতে চান ‘বর্তমান সরকারের আমলে বিদ্যুতের এতো উন্নয়ন কিন্তু এই উন্নয়নের সুফল জনগণ ভোগ করতে পারছে না কেন? কেন এতো ঘন ঘন লোডশেডিং? জবাবে পিডিবি চট্টগ্রাম অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন বলেন, আগামী মাস থেকে লোডশেডিং থাকবে না।

তাঁর এ আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা আশান্বিত যে বিদ্যুতের লোডশেডিং হবে না। বিদ্যুৎ ব্যবস্থার যে অবস্থা, তাতে উৎপাদন বা বিতরণ, যে কোনো প্রক্রিয়ার সমস্যার কারণে যদি এ বিপর্যয় হয়, তা বুঝতে পারার মতো কোনো উপায় নেই। কোথায় কী সমস্যা সৃষ্টির কারণে আজ পুরো বিদ্যুৎ ব্যবস্থা আমাদের চোখের সামনে ভেঙে পড়ছে, তা বুঝতে পারার মতো কোনো ব্যবস্থা যেমন নেই, তেমনি এ প্রক্রিয়ায় দক্ষ ও অভিজ্ঞ জনবলও কমে গেছে। প্রযুক্তিগত সমস্যাগুলো বুঝতে পারা ও তা মোকাবিলা করার জনবল দ্রুত হ্রাস পাচ্ছে। দক্ষ ও অভিজ্ঞ জনবল ঘাটতি বা শূন্যতা পূরণের জন্য নতুনভাবে অনুরূপ জনবল তৈরি হচ্ছে না। সে জনবল তৈরির বিষয়টি গুরুত্বও পাচ্ছে না। ফলে বিদ্যুৎব্যবস্থার মেরামত ও সুরক্ষায় সমন্বয়হীনতা ও সংকট বাড়ছে। এ বিষয়টি আমলে না নিয়ে বিদ্যুৎ বিপর্যয় রোধ করা অসম্ভব বলে মনে করেন অভিজ্ঞ মহল।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, বিতরণ লাইনে লোড বা বিদ্যুৎ প্রবাহ মাত্রাতিরিক্ত বৃদ্ধি পেলে বা বৃদ্ধির প্রবণতা দেখা দিলে জেনারেটরের গতি হ্রাস পায় বা হ্রাসের প্রবণতা দেখা দেয়। তাতে বিতরণ লাইনে প্রবাহিত বিদ্যুতের ফ্রিকোয়েন্সি হ্রাস পায় বা হ্রাস পাওয়ার প্রবণতা দেখা দেয়। ফলে ওই লাইনে থাকা ‘লো ফ্রিকোয়েন্সি রিলে’ এ লাইনে বিদ্যুৎ প্রবাহ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ করে দেয়। অর্থাৎ লোডশেড হয়। এভাবে ‘লো ফ্রিকোয়েন্সি’র প্রভাব থেকে বিদ্যুৎ ব্যবস্থাকে সুরক্ষিত রাখা যাচ্ছে না। বিদ্যুৎ বিতরণ ‘সিবিএ’ ও ‘রাজনৈতিক’ চাপে থাকায় সুরক্ষার এসব ব্যবস্থা অকার্যকর এবং বিদ্যুৎ ব্যবস্থা অরক্ষিত। আলোচ্য বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণ এখানেই।

বাংলাদেশে এখন চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে বলে দাবি করছে পিডিবি। তাদের দাবি, ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত অর্থাৎ গত আট বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা ৬১ ভাগ বেড়েছে। কিন্তু জনগণের প্রশ্ন, তাহলে এখনও বিদ্যুৎ নিয়ে এত কথা কেন? যদিও বলা হচ্ছে, বর্তমান সরকারের অল্প সময়ের মধ্যে বিদ্যুতের এতো উন্নয়ন–সফলতা শুধু অপ্রত্যাশিতই নয়, অভাবনীয়ও। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, বর্তমানে সাড়ে আট হাজার থেকে সাড়ে ৯ হাজার মেগাওয়াটের বিপরীতে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৩৭৯ মেগাওয়াটে। এ ক্ষমতা ২৪ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে বিদ্যুতের বিতরণ লাইনের পরিমাণ চার লাখ এক হাজার কিলোমিটার, সঞ্চালনের লাইনের পরিমাণ ১০ হাজার ৪৩৬ সার্কিট কিলোমিটার এবং গ্রিড উপকেন্দ্রের ক্ষমতা ২৮ হাজার ৫৬৯ এমভিএ। ২০২১ সালে বিদ্যুতের বিতরণ ও সঞ্চালন লাইনের ক্ষমতা দ্বিগুণ করার পরিকল্পনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে বিতরণ লাইনের পরিমাণ চার লাখ ৭৮ হাজার কিলোমিটার এবং সঞ্চালন লাইনের পরিমাণ ২০ হাজার ৫৮১ সার্কিট কিলোমিটারে উন্নীত হবে। এটা আন্তর্জাতিক ভাবেও প্রশংসিত হয়েছে। কিন্তু এই উন্নয়নের ফল জনগণ ভোগ করতে পারছে বলে মনে হয় না। এতো বিদ্যুৎ বিপর্যয় ও ঘনঘন লোডশেডিং, যা অসহ্য। এছাড়া দুর্নীতি অনিয়ম ও অবহেলার অভিযোগ নিরন্তর। এসব দুর্নীতির সঙ্গে যারা জড়িত, তাদেরকে অবশ্যই চিহ্নিত করতে হবে। রেকর্ড পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষেত্রে সরকারের সাফল্যকে ধরে রাখতে না পারলে তা হবে দুঃখজনক। জনবলের স্বল্পতা এবং রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষেত্রে কিছু সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও আমরা বিদ্যুৎ উৎপাদনের সাফল্যকে উপভোগ করতে চাই। অত্যাধুনিক সরঞ্জামের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে অগ্রগতি আরো বাড়াতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here