বিধবা নিঃসন্তানের জমি আত্মসাত প্রচেষ্টার অভিযোগে ঝিকরগাছা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

0
295

ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি : যশোরের ঝিকরগাছা প্রেসক্লাবে অসহায় বিধবা ও নিঃসন্তান সত্তোরোর্দ্ধ বয়সী খাইরুন্নাহার বেগম নামে এক বৃদ্ধা সোমবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে তার জমি আত্মসাত প্রচেষ্টার অভিযোগ করেন। খায়রুনাহার বেগম যশোর সদর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের মৃত গোলাম মোস্তফার স্ত্রী ও ঝিকরগাছা উপজেলার রাজাপুর গ্রামের মৃত-আব্দুল আজিজ বিশ্বাসের কণ্যা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, খাইরুন্নাহারের ভাইপো সাইফ হাসান বিপ্লব। লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার স্বামীর রেখে বিপুল পরিমান স্থাবর সম্পদ-সম্পত্তি থাকা স্বত্বেও বর্তমানে আমার ভাইয়ের ও আমার পালিতপুত্র ভাইয়ের ছেলে শহিদুল ইসলাম পল্লব এর আশ্রয়ে আশ্রিত হয়ে আছি। আমার বিপুল সম্পদ-সম্পত্তি থাকাসত্ত্বেও সম্পদ লোভীদের আক্রোশের শিকার হয়ে অর্ধাহারে, অনাহারে ও প্রায় বিনাচিকিৎসায় আমাকে জীবন কাটাতে হচ্ছে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কান্নাজড়িত কণ্ঠে খাইরুন্নাহার বেগম অভিযোগ করেন, স্বামীর বসতভিটা থেকে পরিকল্পিত ভাবে বিতাড়িত করাসহ সমুদয় সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রতিকার দাবি করে আমি বাদী হয়ে যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি পিটিশন মামলা নং-১১৫৪/১৭ দায়ের করি। উল্লেখিত মামলার বিবাদী হলেন, আমার দেবর মৃত গোলাম রব্বানীর ছেলে ফয়জুল কবীর কচি, ফখরুল কবীর বুলবুল, রুহুল কবীর রুহুল, মুস্তাফিজুর রহমান, সর্ব পিং- মৃত- গোলাম রব্বানী, সাং- ১২ জেল রোড, কোতয়ালী, যশোর। বিবাদী পক্ষ কর্তৃক ওই সম্পত্তি থেকে আমাকে বঞ্চিত করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে গত ২৬/১২/২০১৬ইং তারিখে পুলিশ সুপার, ২৪/০৭/২০১৩ ইং তারিখে যশোর কোতয়ালী মডেল থানাসহ বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে প্রতিকার দাবী করে পিটিশন মামলা দায়ের করেছি। তাছাড়া আমার ভাইয়ের ছেলে শহিদুল ইসলাম পল্লবের নামে হেবামুলে ০১-১৬ (এক একর ষোল) শতক জমি রেজিষ্ট্রি করে দিলেও বিবাদী পক্ষ তাকেও ওই সম্পত্তি জবর দখল এর প্রচেষ্টা করে যাচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও অভিযোগ করেন আমি শারীরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়াই আমার সেবা শ্বশ্রুতার কথা বলে নানা অজুহাতে আমাকে বাহাদুরপুর গ্রামের স্বামীর বাস্তভিটা দোতলা বাড়ি থেকে বিতাড়িত করে ভাইয়ের বাড়ি ঝিকরগাছার রাজাপুরে আশ্রয় নিতে বাধ্য করে। এ পর্যায়ে আমার স্বামীর নিজ নামীয় ও পৈত্রিক আবাদ যোগ্য অন্যান্য জমির ফসলাদি থেকে গত ৩/৪ বছর ধরে আমাকে বঞ্চিত করে আসছে। উল্লেখিত বিষয়ে আদালতে আমার দায়েরকৃত মামলার প্রেক্ষিতে গত ০৪/১২/২০১৭ইং তারিখে ৩৯৯১নং স্বারকে তফশীল বর্ণিত সম্পত্তির প্রকৃত দখলকার বিষয়ে সরেজমিন তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিল করতে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযোগের তদন্তের নির্দেশ দেন যশোর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে। অতঃপর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ, এস, আই (নিঃ) শেখ মিজানুর রহমানকে তদন্তভার ন্যাস্ত করেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন ০৩/১২/২০১৭ ইং তারিখে সংশ্লিষ্ট আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, কোতয়ালী থানাধীন ১০৫ নং শেখহাটি মৌজার জমি আর, এস নং ডিপি -৭১৫ নং সাবেক দাগ-৫২ নং, হাল দাগ-৫০ নং,জমির পরিমাণ ০২ একরের মধ্যে ০১ একর নালীশি উত্তর পার্শ্ব এবং ১০৬ নং বাহাদুর মৌজার আর, এস খতিয়ান নং ডিপি-৭৪৮ নং, সাবেক দাগ-১৩৬১ নং, ১৩৬২নং হাল দাগ-৪২৫২ নং জমির পরিমাণ ০১ একর ০৩ শতকের মধ্যে ৬০ শতক নালীশি পূর্ব পার্শ্ব। তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। মৃত স্বামীর ওয়ারেশ সূত্রে প্রাপ্ত তফশীল বর্ণিত নালীশিয় জমি অন্য লোকের দ্বারা বর্গা চাষের মাধ্যমে ধান চাষসহ অন্যান্য ফসল উৎপাদন ও আহারণ করে দীর্ঘদিন যাবৎ সকলের জ্ঞাতসারে শান্তিপূর্ণভাবে ভোগদখল করে আসছেন। তিনি উল্লেখ করেন যেহেতু বাদী বর্তমানে ঝিকরগাছা থানার রাজাপুর গ্রামে বসবার করেন সেহেতু যে কোন সময় বিবাদী পক্ষ কর্তৃক উক্ত জমি বেদখল হওয়ার সম্ভবনাসহ খুন-জখমের আশংকা রয়েছে। আদালতের আদেশ ব্যতীত বিবাদীদের প্রতিহত করা বাদী পক্ষের সম্ভব নয়। বাদী বিধবা নিঃসন্তান বিধায় বিবাদীগণ বাদীর ওয়ারেশ সুত্রে পাওয়া সম্পত্তি জবর দখল করে আছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here