বিপন্নতা ও বিষণ্নতামুক্ত পৃথিবীর প্রত্যাশায়

0
367

ড. মিল্টন বিশ্বাস : ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ শুরু হলো। একটি বছর খুব দ্রুতই শেষ হয়। কারণ বছরজুড়ে পৃথিবীতে এতো ঘটনা ঘটতে থাকে যে, মানুষের পক্ষে সময়ের হিসাব-নিকাশ করে জীবন সাজানো কঠিন হয়ে পড়ে। আর কেবল পৃথিবী কেন এখন বিশ্বব্রহ্মাণ্ড খুব কাছের আমাদের। এজন্য অজানা বিশ্বলোকের ঘটনাও মানব জীবনকে প্রভাবান্বিত করে। তবু নতুন বছর নতুন প্রত্যাশায় জেগে ওঠে। জীবন নতুন সময়ের বৃত্তে আবর্তিত হয়। ২০১৮ সময়বৃত্তে শুভ কিছু অপেক্ষা করছে— এই স্বপ্নে মানুষ বড় বেশি আন্দোলিত হতে চায়। কিন্তু ভালো কিছু নির্মাণ করতে মানুষকেই নিরন্তর চেষ্টা করতে হয়। কিছু মানুষের কর্মপ্রচেষ্টায় এগিয়ে চলে পৃথিবী। সেই মানুষই আমাদের আদর্শ। ভালো মানুষ, আদর্শ মানুষ ক্রমে ক্রমে বৃদ্ধি পাবে এই প্রত্যাশা নিয়ে নতুন বছরের পথ চলা শুরু হলো। কিন্তু বাস্তবতা আরো বেশি নিষ্ঠুর। আমাদের মতো বেশি মানুষের দেশে সর্বত্র হয়রানি ও নাজেহাল হওয়া একটা স্বাভাবিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে। যদিও ডিজিটাল বাংলাদেশ জীবনকে অনেকটা সহজ করে দিয়েছে, তবু সাধারণ মানুষের চলার পথ খুব সহজ-সরল নয়। একদিকে জঙ্গিবাদী তত্পরতা অন্যদিকে রাজনৈতিক সহিংসতা মানুষকে হরহামেশা বিপন্ন করে। নতুন বছর বিপন্নতা ও বিষণ্নতা মুক্ত হবে এই প্রত্যাশা আমাদের।

২০১৭ সালে বিশ্বজুড়ে বীভত্স সব ঘটনায় আমরা হতভম্ব ছিলাম। কেবল ২৪ আগস্ট থেকে মিয়ানমার সীমান্ত অতিক্রম করে ধেয়ে আসতে থাকা রাখাইন মুসলিমদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়া ছিল পৃথিবীর অন্যতম ঘটনা। মিয়ানমার ক্রমাগত ধিক্কৃত হলেও সেখানকার রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রতি তাদের সরকারের বোধোদয় হয়েছে বলে মনে হয় না। বরং চীন-রাশিয়া আমাদের বন্ধু হওয়া সত্ত্বেও প্রকারান্তরে মিয়ানমারের আচরণকে সমর্থন দিয়ে এসেছে। অন্যদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্টের উত্কণ্ঠা ও উত্তর কোরিয়ার উপর্যুপরি পরমাণু বোমার হুমকি আমাদের দেশকেও স্পর্শ করেছে। বিশ্বব্যাপী জঙ্গি সংগঠনগুলো কোণঠাসা হলেও অনেক দেশেই অভিনব পন্থায় মানুষ মারা হয়েছে। কোথাও-বা গাড়ি চালিয়ে, কোথাও-বা বোমা হামলায় হত্যা করা হয়েছে হাজার হাজার মানুষ। ২০১৭ সালে যৌন হয়রানির প্রশ্নে মুখ খুলতে শুরু করেছেন বিশ্বের নারীরা; প্যারাডাইস পেপারসে আবারও ক্ষমতাশালীদের গোমর ফাঁস হয়েছে, আরবে বইতে শুরু করেছে উদারনীতির হাওয়া। কিন্তু নতুন মেরুকরণে মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক শক্তিগুলোর মধ্যে যোগ হয়েছে নতুন উত্তেজনা। সিরিয়াকে ঘিরে ক্রেমলিন-পেন্টাগনের দাবা খেলা আর জেরুজালেম প্রশ্নে ট্রাম্পের নতুন পদক্ষেপের পর আরব বিশ্বে নতুন অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। বেশ কয়েকটি জঙ্গি দল ২০১৭ সালে পাকিস্তানে বেশ কয়েক দফা হামলা চালিয়েছে। আর বিশ্বজুড়ে ভূমিকম্প, খরা ও বন্যার দুর্যোগ তো ছিলই।

বিশ্বব্যাপী নানা ঘটনা-দুর্ঘটনার মধ্যে আমাদের দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকলেও বিভিন্ন এলাকায় সাম্প্রদায়িক হামলা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ অর্জনকে কিছুটা হলেও ম্লান করে দিয়েছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের নেতাদের অপকর্মের কারণে দুর্নাম কুড়াতে হয়েছে দলকে। তবে জঙ্গিবাদ দমনে ব্যাপক সাফল্য রয়েছে বর্তমান সরকারের। আর প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় এদেশের সক্ষমতা দেখেছি আমরা। বিশেষত বন্যা ও বন্যা-উত্তর ফসলহানির কথা সকলের মনে আছে। দেশের ভেতর বড় বড় প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলেছে। তবে শিক্ষাক্ষেত্রে প্রশ্নফাঁসের একাধিক ঘটনা সরকারের শুভ প্রচেষ্টাকে মুখ থুবড়ে ফেলেছে। বিদ্যুত্ উত্পাদনে নিউক্লিয়ার যুগে প্রবেশ করেছি আমরা। অন্যদিকে ডিজিটাল যুগে ফোর জি’তে প্রবেশ ঘটেছে আমাদের। যদিও বিচার বিভাগ নিয়ে নানামুখী সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল ২০১৭ সালে।

এসব এবং আরো অনেক ঘটনা মূল্যায়ন করে আমরা বলতে পারি, নতুন বছরের সূচনা মুহূর্তে আমাদের প্রত্যাশা ২০১৮ সাল থেকে সহিংসতা, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদমুক্ত বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে সগৌরবে দাঁড়িয়ে থাকবে। আমরা দেখতে চাই দেশের মানুষ নিরাপদে যার যার ধর্ম পালন করছে; বাঙালির আবহমান উত্সবসমূহ নির্বিঘ্নে উদযাপিত হচ্ছে। অর্থনৈতিক দিক থেকে আমরা নিজেরা স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছি। দরিদ্র জনগোষ্ঠী নিজেদের আয় বৃদ্ধি করে সচ্ছলতা এনেছে নিজ পরিবারে। দেখতে চাই সুশাসন প্রতিষ্ঠা হওয়ায় সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকারগুলো রক্ষা পাচ্ছে। অপরাধীদের দ্রুত বিচারের মাধ্যমে শাস্তি দেওয়া সম্ভব হচ্ছে। নতুন বছরে এসব আশা আর আকাঙ্ক্ষায় দুলে উঠুক আমাদের জীবন। কিন্তু সাম্প্রদায়িক ও জঙ্গিগোষ্ঠীর নানা অপতত্পরতার ইতিহাসও আমাদের মনে রাখতে হবে। ডজনখানেক শীর্ষ জঙ্গি নিয়ে পুলিশের ঘুম হারাম এখন, ছদ্মবেশে ঘুরছে জঙ্গি সদস্যরা, জায়গা বদল করছে ঘনঘন। বিভিন্ন জায়গায় তাদের নাশকতার প্রস্তুতি ও ধ্বংসাত্মক কাজের সন্ধান পাওয়া গেছে। র্যাব ও পুলিশের অভিযানে অনেকে ধরাও পড়েছে। এই অভিযান কেবল নয়, বিচার ও শাস্তি হওয়া পর্যন্ত আমাদের দেখতে হবে জঙ্গি সদস্যরা নির্মূল হচ্ছে কিনা। আবার কেবল আইনি প্রক্রিয়া নয় সামাজিকভাবে তাদের প্রতিরোধ করাও জরুরি। একইসঙ্গে সাংস্কৃতিক কর্মকা্ল বৃদ্ধি করে তরুণ সমাজকে দেশপ্রেমের মন্ত্রে উজ্জীবিত করতে হবে। যেমন তরুণ সমাজ জেগেছিল ২০১৩ সালে। সে সময় শাহবাগে ‘গণজাগরণ মঞ্চে’ তরুণ প্রজন্মের জমায়েতে উপস্থিত হয়ে জনপ্রিয় লেখক প্রফেসর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছিলেন, তরুণ সমাজ নিজেরাই জেগে উঠেছে। তরুণরা নিজেরাই ঠিক করেছে কী করতে হবে। একাত্তরেও এমনটি হয়েছিল। কাউকে বলে দিতে হয়নি। তিনি আরো বলেছিলেন, রায় ঘোষণার পর আমার মন খারাপ হয়ে গিয়েছিল। মনে হতাশা জমেছিল, ক্ষোভ জেগেছিল। এখন মনে দুঃখ নেই, হতাশা নেই তবে ক্ষোভ আছে। দুঃখ নেই এজন্য, রায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে গেছে আমার দেশের তরুণ প্রজন্ম। একাত্তরে তরুণরাই দেশ স্বাধীন করেছিল। ’৫২ সালেও বলে দিতে হয়নি তাদের কী করতে হবে। তিনি আন্দোলনরত সারাদেশের তরুণদের উদ্দেশে চিত্কার দিয়ে বলেছিলেন, এখন তোমরা যা সিদ্ধান্ত নেবে আমরা তোমাদের পেছনে পেছনে যাব। তোমরা আমাদের রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ উপহার দাও, কলঙ্কমুক্ত বাংলাদেশ উপহার দাও।

২০১৮ সালে আমরা সহিংসতা, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদমুক্ত বাংলাদেশ দেখতে চাই। এজন্য দরকার বর্তমান তরুণ প্রজন্মের প্রগতিশীল উদ্দীপনা। রাজনৈতিক বৃত্তের বাইরে তরুণদের সন্ত্রাস প্রতিরোধের আন্দোলনকে জোরদার করে তুলতে হবে। কারণ সরকারি দলের ওপর আস্থা থাকলেও স্বাধীনতা-বিরোধীরা এখনো সক্রিয়। যতদিন স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির দাপট শেষ না হচ্ছে, তত দিন গণদাবিতে সোচ্চার থাকা দরকার। আর যুদ্ধাপরাধীদের সমর্থক ্এই অপশক্তিকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। তাদের অপতত্পরতা বন্ধের জন্য আমাদের ঐক্যের প্রয়োজন। বাংলাদেশের মাটিতে এই প্রতিক্রিয়াশীল অপশক্তির কোনো স্থান হবে না। তাদের শেকড় যত গভীরে থাকুক তরুণ সমাজ তা উত্পাটন করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। নতুন বছরে প্রতিষ্ঠিত হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ। ২০১৯ সালের জাতীয় নির্বাচনেও তারই প্রতিফলন দেখা যাবে বলে আমার বিশ্বাস।

n লেখক : অধ্যাপক এবং পরিচালক, জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তর, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here