বিপর্যস্থ যশোরের জনজীবন, ত্রাণ আর কর্মের খোজে স্বাস্থ্যবিধী উপক্ষীত

0
61

ডি এইচ দিলসান : ত্রাণহীন, কর্মহীন অর্থকষ্টে জর্জারিত যশোরের নিম্ন আয়ের মানুষ। যার গ্রাস থেকে রক্ষা পাচ্ছে না স্বল্প আয়ের শ্রমজীবী, বেসরকারি চাকরীজীবী এবং ছোট ব্যবসায়ীরাও। করোনার আগ্রাসনে যশোর শহরসহ গ্রামাঞ্চলেও পড়েছে এর প্রত্যাক্ষ প্রভাব। খোজ নিয়ে জানা গেছে টানা বাধ্যবাধকতায় সহায়-সম্বলহীন হয়ে পড়া মানুষগুলো ক্ষুধা ও অভাবের তাড়নায় করোনাভাইরাসের মরণ ছোবলের ভয়াবহতা উপেক্ষা করে এদিক-ওদিক ছুটছে কাজ বা ত্রাণ পাওয়ার নেশায়। জীবিকার প্রয়োজনে হন্যে হয়ে ছুটছে মানুষ অনিশ্চয়তার রাজপথে।
অনেক আগে তালিকা হলেও এক কেজি ত্রানের চালও জোটেনি অনেকের কপালে। এসব দারিদ্র্যপীড়িত মানুষের পরিবারে আবার সদস্য সংখ্যাও অনেক বেশি। এরা দীর্ঘদিন ধরে শুনে আসছে সরকারি-বেসরকারি ত্রাণের কথা। অথচ এলাকার মেম্বার, চেয়ারম্যানদের কাছে গেলে ত্রাণ নেই, সরকারি চাল-ডাল শেষ হয়ে গেছে এমন কথা তাদের শুনতে হয়। কোথাও ঋণ বা ধারে টাকা, চাল পাওয়াও যাচ্ছে না। কোনো এনজিও, সরকারি-বেসরকারি সংস্থা তাদের দিকে তাকাচ্ছেই না। স্বল্প যা দিচ্ছে তাও লোক দেখানো। দারিদ্র্যপীড়িত এসব মানুষ পুরোপুরি বঞ্চিত হচ্ছে সবকিছু থেকে। ক্ষুধার কাছে লকডাউন আসলে পরাজিত।
পেটে ভাত না থাকলে কিসের লকডাউন আর কিসের সচেতনতা? এমনটাই বলছিলেন যশোর এম এম কলেজ থেকে ¯œাতক পাশ করা কোমন্পানির চাকরীহারা রিক্সা চালক রবায়েত হোসেন।
এদিকে, মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষরাও অভাবে অসহায়। বিভিন্ন ব্যবসা-বাণিজ্য, রাজমিস্ত্রি, কাঠমিস্ত্রি, সিএনজি, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস, বাস-ট্রাক ইত্যাদি চালিয়ে যারা জীবিকা নির্বাহ করত তারা আজ প্রায় বেকার। বড় অসহায় হয়ে পড়েছে পরিবারপ্রধান। তা ছাড়া বিভিন্ন ঋণ, কিস্তি, সুদের টাকা এসবের জ্বালায় অস্তিত্বের সংকটে সবাই। এরা না পারে কইতে না পারে সইতে এমন অবস্থা। কারও কাছে ত্রাণের জন্য যাওয়াটা এ শ্রেণির মানুষদের জন্য চরম লজ্জার। বর্তমান সময়ে কোনো এনজিও, সরকারি প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এসব মানুষের পাশে তেমন দেখা যায় না। নামেমাত্র ত্রাণসামগ্রী আরও হতাশ করছে মানুষকে।
এদিকে করোনায় সব থেকে বড় ক্ষতি হয়েছে দেশের অপ্রাতিষ্ঠানিক কর্মসংস্থানে যুক্ত থাকাদের। রেস্টুরেন্ট, হকার ও ফুটপাতে দোকানি, ফল বিক্রেতা, রিকশাচালক, পরিবহনকর্মীসহ ইত্যাদি অনেক অপ্রাতিষ্ঠানিক ব্যক্তি কর্মহীন হয়ে পড়েছে। উপার্জনহীন হওয়া অপর একটি অংশ হচ্ছে পারিবারিকভাবেই অর্জিত সম্পদ দেখভাল করে জীবিকা নির্বাহকারী। এর মধ্যে ছোটখাটো ব্যবসার সঙ্গে জড়িতদের একটি অংশ পণ্য উৎপাদন করে বিপণনের মাধ্যমে আয় করে কেউবা দোকানেই সেগুলো বিক্রি করে উপার্জন করত। অন্য একটি অংশ রয়েছে যারা পণ্যের জোগানের কাজ করত। এবং পণ্য জোগানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এই অংশটিরও উপার্জন হুমকির মুখে।
বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির এক রিপোর্ট বলছে, লকডাউনে ৫ কোটি ৯৫ লাখ মানুষ শ্রেণিগত কাঠামোর পরিবর্তনের ফলে আয় কমে দরিদ্র হয়েছে। নতুন দরিদ্র হওয়া এই বিশাল সংখ্যাটি উচ্চ-মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তের মানুষ। অন্যদিকে নতুন করে ২ কোটি ৫৫ লাখ মানুষ হতদরিদ্র হয়েছে। করোনায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত হয়েছে মধ্যবিত্ত পরিবারের কর্মসংস্থানমুখী মানুষগুলো। কারণ এদিকে কর্মসংস্থান থেকে চাকরিচ্যুত ও কর্মহীন হওয়া বেকারের সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে, অন্যদিকে কর্মসংস্থানও কমেছে। ফলে বর্তমান পরিস্থিতিতে মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর কর্মসংস্থানমুখীদের জন্য ভবিষ্যৎ হবে আরও সংকটাপন্ন।
বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) গত ৫ মে থেকে ২৯ মে পর্যন্ত অনলাইনে ২৯ হাজার ৯০৯ জনের ওপরে একটি জরিপ চালায়। জরিপ থেকে প্রাপ্ত তথ্য বলছে, ফরমাল সেক্টরে কাজ করা ১৩ শতাংশ মানুষ চাকরি হারিয়েছে। ১১ হাজার টাকার কম আয়ের ৫৬ দশমিক ৮৯ শতাংশ পরিবারের আয় বন্ধ হয়ে গেছে এবং ৩২ শতাংশ মানুষের আয় কমে গেছে। ১৫ হাজার টাকা আয়কারী ২৩ দশমিক ২ শতাংশের আয় পুরো বন্ধ হয়ে গেছে এবং ৪৭ দশমিক ২৬ শতাংশের আয় কমে গেছে। ৩০ হাজার টাকার বেশি আয়কারী ৩৯ দশমিক ৪ শতাংশের কমেছে এবং ৬ দশমিক ৪৬ শতাংশের আয় বন্ধ হয়ে গেছে।
যশোর বড় বাজার ব্যবসায়ীক মালিক সমিতির সভাপতি মীর মোশাররফ হোসেন বাবু বলেন, করোনা মহামারিতে সারা বিশ্ব থমকে গেছে। আমরা নিয়ম না মানার কারনে সরকার বাধ্য হয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে। তিনি বলেন, দেশ ও দশের কল্যানে আমরা সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছি, তবে তিনি বলেন, এমনিতেই ব্যবসায়ীরা পথে বসার দ্বার প্রান্তে আছে, এই অবস্থা চলতে থাকলে অচিরেই দেশের অবস্থা ভয়াবহ হয়ে যাবে।
যশোর রেস্তরা মালিক সমিতির সভাপতি শফিকুর আজাদ বলেন, সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ আমাদের সেক্টর। তিনি বলেন ঘর ভাড়া কর্মচারী বেতনসহ আনুসাঙ্গিক খরচ মেটাতে গিয়ে অনেক রেস্তরা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা করোনা নিয়ন্ত্রন কমিটির সদস্য জাহিদ হাসান টুকুন বলেন, আমরা বুঝি নি¤œ আয়ের মানুষের সমস্যাগুলো। তিনি বলেন দেশ ও দশের স্বার্থে আমাদের আর কয়েকটা দিন একটু ধৈর্য্য ধরতে হবে। কারন বর্তমানে যশোরের অবস্থা খুবই খারাপ। তিনি বলেন খুব শিঘ্রই বিধী নিশেষ শিথিল হবে।