বিবর্তন যশোরের ৩২ বর্ষপূর্তি উৎসব শুরু

0
49

নিজস্ব প্রতিবেদক
আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নাট্যসংগঠন বিবর্তন যশোরের ৩২ বছর পূর্তি উপলক্ষে তিন দিনের উৎসবের প্রথম দিনে বৃক্ষরোপণ করা হয়েছে। সবুজ শহরের প্রত্যাশায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বৃক্ষরোপণের মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার এ কার্যক্রম শুরু হয়। ‘দুর্দিনের এই দুর্গশিরে উড়িয়ে দে বিজয়-কেতন’ শ্লোগানকে সামনে রেখে বৃক্ষরোপণের মধ্য দিয়ে উৎসবের সূচনা করা হয়।

মঙ্গলবার সরকারি মাইকেল মধুসূদন মহাবিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি ছিলেন মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. আব্দুল মজিদ। সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ৩২তম উৎসব কমিটির যুগ্মআহ্বায়ক নুরুজ্জামান বকুল, সদস্য সচিব দীপংকর বিশ্বা, বিবর্তন যশোরের সভাপতি নওরোজ আলম খান চপল, সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন ব্যানার্জী, অর্থ সম্পাদক হাফিজুর রহমান, পাঠাগার সম্পাদক শাহরিন সুলতানা নিশি, নির্বাহী সদস্য আসিফ খান, সদস্য মৃন্ময় চক্রবর্তী, নরেশ পাল, তন্ময় রায়, মোহন মল্লিক, শ্রেয়সী বিশ্বাস, রাজস্বী বিনতে রাজ্জাক প্রমুখ।

উৎসব বিষয়ে বিবর্তন যশোরের ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব দীপংকর বিশ্বাস জানান, ১২ অক্টোবর বিবর্তন যশোর ৩৩ বছরে পদার্পণ করছে। আর এ দিনটিকে স্মরণীয় করতে মঙ্গলবার সকালে বৃক্ষরোপণ এবং ২২ ও ২৩ অক্টোবর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সন্ধ্যায় দুইদিনের নাট্যোৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। উৎসবে ‘সোনার দেশের সোনার মানুষ’ দুইজনকে সম্মাননা জানানো হবে । একইসাথে বিবর্তন যশোরসহ যশোরের ৩টি সংগঠন উদীচী যশোর, তির্যক যশোর ও শেকড় যশোর নাটক মঞ্চায়ন করবে।
‘সামাজিক অসঙ্গতির বিরুদ্ধে নাটক’ – এ শ্লোগানকে ধারণ করে ১৯৮৯ সালের ১২ অক্টোবর বিবর্তন যশোর আত্মপ্রকাশ করে । সামাজিক বিশৃঙ্খলা, শোষণ, দুর্নীতি, মৌলবাদের আগ্রাসনে দেশ যখন আক্রান্ত, গণতন্ত্র এবং অধিকার আদায়ের দাবিতে চারদিক যখন উত্তপ্ত সেই সময় সৌন্দর্য্য চেতনায় পরিশীলিত একটি সুস্থ সমাজ সংস্কৃতির অঙ্গীকার নিয়েই বিবর্তন যশোর পথ চলা শুরু করে। বিবর্তন একটি আন্দোলন, একটি সমাজচেতনা, খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষের সমাজ সংস্কৃতির অভিব্যক্তি। ১৯৮৯ সালে ‘ইতিহাসের পাতা থেকে’ নাটকের মঞ্চস্থের মধ্য দিয়ে বিবর্তনের নাট্যচর্চা শুরু হয়। এ পর্যন্ত প্রায় একশত নাটকের (মঞ্চ, পথ ও শিশু) প্রায় চার সহ¯্রাধিক প্রদর্শনী হয়েছে দেশে ও দেশের বাইরে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো হলো- যুদ্ধ, পাইচো চোরের কেচ্ছা, পুরস্কার, বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ, মহাবিদ্যা, বিসর্জন, মনের আয়না, বিবাহ প্রস্তাব, রাজা প্রতাপাদিত্য, সিসিফাস, কৈবর্তগাথাঁ, হট্টমালার ওপারে, জন্তু, ব্রাত্য আমি মন্ত্রহীন ও আলোচিত মাতব্রিং। মাতব্রিং নাটকটি বিশ্ব অলিম্পিয়াড তিয়েটারে মঞ্চস্থ হয়। ভারতের দিল্লি, উড়িষ্যা, আসাম, বিহারসহ পশিচমবাংলার বিভিন্নস্থানে বিবর্তন এ পর্যন্ত ১৬ বার আন্তর্জাতিক নাট্য উৎসবে অংশগ্রহণ করে সুনাম কুড়িয়েছে।