বিল কপালিয়ায় টিআরএম চালু ও ভবদহ গেটের ২১ ভেন্ট ও ৯ ভেন্টের মাঝ দিয়ে সরাসরি নদী সংযোগের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

0
379

নিজস্ব প্রতিবেদক : বুধবার দুপুরে মাঘীপূর্ণিমার আগে ক্রাশ প্রোগ্রামে বিল কপালিয়ায় টিআরএম চালু অথবা ভবদহ গেটের ২১ ভেন্ট ও ৯ ভেন্টের মাঝ দিয়ে সরাসরি নদী সংযোগের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির। সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে প্রধান উপদেষ্টা ইকবাল কবির জাহিদ বলেন, নিন। গত ১০ই ডিসেম্বর পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে মাননীয় পানি সম্পদ মন্ত্রী মো: আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম বীরবিক্রম, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক ও এ্যাড. মোস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি সহ পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় ও পাউবোর উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অনেক যুক্তিতর্কের মাধ্যমে তাদেরকে পরিস্থিতির ভয়াবহতা বোঝানো গেছে। শেষ পর্যন্ত জনগনের অব্যহত আন্দোলনের প্রেক্ষিতে টিআরএম বিরোধী চক্রান্ত ভেদ করে আবারও বিল কপালিয়ায় টিআরএম প্রকল্প বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড এর কর্মকর্তারা বলছেন আগামী ২০১৯ সালে বিল কপালিয়ায় টিআরএম বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে। এক কথায় বিষয়টি ঝুলে গেল। ততদিনে পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটবে। ততদিন ভবদহের ভাটিতে ৫০/৬০ কিলোমিটার নদী ভরাট হয়ে যাবে। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ থেকেই জলাবদ্ধতা শুরু হবে এবং আগামী জুনের মধ্যে নদী ব্যাপক ভাবে ভরাট হয়ে অঞ্চল বিপর্যয়ের মুখে পড়বে। টিআরএম করার পরিস্থিতিই হুমকির সম্মুখিন হবে। তাই তখন আর টিআরএম করার বাস্তবতাই হয়তো থাকবে না।
সে আশঙ্কা মাথায় নিয়ে ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটি এ দাবি করতে বাধ্য হচ্ছে যে আর বিলম্ব না করে ক্রাশ প্রোগ্রামের ভিত্তিতে এবার মাঘীপূর্ণিমা অর্থাৎ ৩১ জানুয়ারির আগেই বিল কপালিয়ায় টিআরএম চালু করা হোক। আর তা যদি না হয় তাহলে ২১ ভেন্ট ও ৯ ভেন্টের মাঝ দিয়ে সরাসরি নদী সংযোগ দেয়া হোক। তাতে তেমন খরচও লাগবে না। ফেব্রুয়ারি মাস থেকে উঠে আসা পলিতে নদী ভরাট হবে না। ভবিষ্যতে এলাকার সম্ভ্যাব্য বিলে টিআরএম করার পরিস্থিতিও অক্ষুন্ন থাকবে। এলাকা জলাবদ্ধ হবে না। ফসল ফলানো সম্ভব হবে। মানবিক বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। জনজীবন স্বাভাবিক হয়ে উঠবে। তিনি আরো বলেন,
আপনারা অবগত আছেন, ২০১২ সালে সরকারি কর্মকর্তাদের ওপর হামলার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার বিল কপালিয়ায় টিআরএম প্রকল্প বাতিল করে। তার পরিণতিতে ২০১৬-১৭ সাল থেকে এলাকা পুনরায় ব্যাপক জলাবদ্ধতার শিকার হয়। চার উপজেলার ১৩ হাজার হেক্টর জমির ফসল ঘরে তোলা সম্ভব হয়নি। স্বাভাবিক ভাবে আবাদ করার পরিস্থিতিও নষ্ট হয়েছে। ঘটেছে মানবিক বিপর্যয় যা এখনও অব্যাহত রয়েছে।
জনগনের জীবনমরণ আন্দোলনের পর এবছর ১৬ই মার্চ মাননীয় পানি সম্পদ মন্ত্রীর উপস্থিতিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে একটি জাতীয় কর্মশালায় বিল কপালিয়ায় পুনরায় টিআরএম প্রকল্প প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। কিন্তু পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় ও পাউবো’র যুক্তিহীন দীর্ঘসূত্রিতা না হলে এবার মাঘী পূর্ণিমার আগে টিআরএম করা সম্ভব হতো। উ™ভুত এই পরিস্থিতির জন্য কর্তৃপক্ষই দায়ী।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যশোরে আসছেন। আমরা তাঁর দৃষ্টি আকর্ষণ করে ভবদহের বিপন্ন জনগণকে মহাবিপর্যয়কর পরিস্থিতি থেকে উদ্ধারের জন্য এবারই মাঘী পূর্ণিমার আগেই ক্রাশ প্রোগ্রামে বিল কপালিয়ায় টিআরএম চালু অথবা ২১ এবং ৯ ভেন্টের মাঝ দিয়ে সরাসরি নদী সংযোগে নির্দেশ দানে আকুল আবেদন জানাচ্ছি। এ সময় অরো উপস্থিত ছিলেন, ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক গাজী আব্দুল হামিদ, মাসুদ হাসান আহবায়ক পায়রা ইউনিয়ন কমিটি অভয়নগর, স্বদেশ সরকার আহ্বায়ক দুর্বাডাঙ্গা ইউনিয়ন কমিটি মণিরামপুর, অনিল বিশ্বাস আহবায়ক কপোতাক্ষ বাঁচাও আন্দোলন, জিল্লুর রহমান ভিটু ভৈরব বাঁচাও আন্দোলন কমিটি, জেলা সম্পাদক ওয়ার্কার্স পার্টি, নাজিম উদ্দিন জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশন জেলা সভাপতি, জাকির হোসেন হবি ভৈরব বাঁচাও আন্দোলন কমিটি কেন্দ্রীয় সদস্য ওয়ার্কার্স পার্টি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here