বিশ্বের সবচেয়ে বড় মেরিন ড্রাইভের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

0
416

কক্সবাজার প্রতিনিধি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় মেরিন ড্রাইভের যাত্রা শুরু হয়েছে। শনিবার (০৬ মে) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কক্সবাজার উখিয়া উপজেলায় ইনানী বিচের এই মেরিন ড্রাইভ উদ্বোধন করেন তিনি। এসময় প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

ইনানীতে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বাস্তবায়িত (সম্প্রতি সমাপ্ত) কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের যাত্রা শুরু হলো। প্রকল্পের তত্ত্বাবধায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল কে এম মেহেদী হাসান জানান, এটি বিশ্বের দীর্ঘতম মেরিন ড্রাইভ (সাগরপারের সড়ক), যেটির দৈর্ঘ্য ৮০ কিলোমিটার।

এর আগে সকাল সোয়া ১০টায় তিনি কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সম্প্রসারিত রানওয়েতে ৭৩৭-৮০০ বোয়িং বিমান চলাচল উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রী ৭৩৭-৮০০ বোয়িং বিমান মেঘদূতে করে ঢাকা থেকে কক্সবাজারে আসেন।

দুপুর ২টা থেকে পৌনে ৩টার মধ্যে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ও কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজের ১০০ শয্যাবিশিষ্ট ছাত্রী নিবাস, কক্সবাজার সরকারি কলেজের একাডেমিক ভবন কাম এক্সামিনেশন হল, কক্সবাজারের উখিয়ায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজের দ্বিতল একাডেমিক ভবন এবং মহেশখালী-আনোয়ারা গ্যাস সঞ্চালন পাইপ লাইন উদ্বোধন করবেন।

প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়ন প্রকল্প (প্রথম পর্যায়) এলজিইডি অংশের আওতায় কক্সবাজার জেলার সদর উপজেলাধীন বাকখালী নদীর উপর খুরুস্কুল ঘাটে ৫৯৫ মিটার দৈর্ঘ্যের পিসি বক্সগার্ডার ব্রিজ, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও কক্সবাজার আইটি পার্কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

এক্সিলাটে এনার্জি বাংলাদেশ লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য মহেশখালী ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল, সামিট এলএনজি টার্মিনাল কো. (প্রা.) লি. কর্তৃক নির্মিতব্য মহেশখালীতে দ্বিতীয় ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল, মহেশখালী উপজেলায় এসপিএম (ইনস্টলেশন অব সিংগেল পয়েন্ট মুরিং) প্রকল্প, নাফ ট্যুরিজম পার্ক, কুতুবদিয়া কলেজের একাডেমিক ভবন ও কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের অফিস ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।

জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন জানান, প্রধানমন্ত্রী বিকেলে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জেলা আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দেবেন। একই দিন বিকেল ৫টা ১০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে আকাশ পথে কক্সবাজার ছাড়ার কথা রয়েছে তার। সফরে মোট ১৬টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

এদিকে মেরিন ড্রাইভের উদ্বোধনের ফলে বদলে যাচ্ছে সাগরদুহিতা কক্সবাজার। এতে পাহাড় আর সমুদ্রের অনন্য মিশেলের নান্দনিকতায় নতুন পালক যুক্ত হচ্ছে এবার। বিশ্ববাসীর জন্য আরও অবারিত হচ্ছে এই শহরের সৌন্দর্য। এক হাজার ৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে এই পর্যটন শহরে বিশ্বের সবচেয়ে বড় মেরিন ড্রাইভওয়ের উদ্বোধন ঘোষণা করা হল।

মুম্বাইয়ের ‘কুইন্স নেকলেস’ প্রকল্পকেও হার মানাবে বাংলাদেশের এই মেরিন ড্রাইভওয়ে। এর মধ্য দিয়ে দেশি-বিদেশি পর্যটকরা নতুন পরিবেশে দেখবেন সাগর, পাহাড় আর সড়কের অনন্য রূপ, পাহাড় থেকে নেমে আসা ঝরনার স্বচ্ছ জলরাশি, পাথুরে ইনানী সৈকত, পাটোয়ার টেকের পাথরে স্তূপের শোভা ও সড়কপাশের বিস্তীর্ণ উপকূলের ঝাউবাগানের সৌন্দর্য। পর্যটকদের আকর্ষণের নতুন কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে মেরিন ড্রাইভ সড়কটি। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে সুসম্পন্ন হয়েছে জাতীয় উন্নয়নে নতুন পালক যুক্ত হওয়া এই প্রকল্প।

প্রকল্পটি দেশের পর্যটন খাতের মেরুদণ্ড। তিন ধাপে নির্মাণ সম্পন্ন হওয়া মেরিন ড্রাইভওয়েটি বিশ্বে সবচেয়ে বৃহৎ। কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত ৮০ কিলোমিটার বিস্তৃত এই মেরিন ড্রাইভওয়ে নির্মাণে প্রাকৃতিক প্রতিকূলতাকে ছাপিয়ে আজ পূর্ণতা পেল মেরিন ড্রাইভ। নির্মাণকাজ করতে গিয়ে সমুদ্রের লোনাজল কখনো কখনো গ্রাস করেছে নির্মাণসামগ্রীকেও। তা সত্ত্বেও সুসম্পন্ন হয়েছে এর কাজ।

কক্সবাজার সড়ক ও জনপথ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৯৯ সালে প্রাথমিক পর্যায়ে ৪৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভওয়ে নির্মাণ প্রকল্প নেওয়া হয়। তখন প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছিল ২০৩ কোটি ২১ লাখ টাকা। ওই সময় সড়ক ও জনপথ বিভাগ কক্সবাজার কলাতলী পয়েন্ট থেকে সড়ক নির্মাণকাজ শুরু করলে কলাতলী মোড় থেকে পাইওনিয়ার হ্যাচারি পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার সড়ক সাগরের প্রবল ঢেউয়ে বিলীন হয়ে যায়।

পরবর্তী সময়ে এর দায়িত্ব পায় সেনাবাহিনীর প্রকৌশল নির্মাণ ব্যাটালিয়ন। সড়কটির দৈর্ঘ্য বেড়ে ৮০ কিলোমিটারে উন্নীত হয়। ২০১৪ সালের জুলাই থেকে নব উদ্যমে কাজ শুরু করে সেনাবাহিনী। কাজের মান বৃদ্ধির জন্য সেনাবাহিনীর প্রকৌশল বিভাগ মূল সড়ককে তিন ধাপে ভাগ করে টেকনাফের সাবরাং পর্যন্ত ৩২ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণকাজ সম্পন্ন করে।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় তথ্য মতে, ২০০৪-২০০৫ অর্থবছরে প্রকল্পটিকে তিনটি পর্যায়ে ভাগ করা হয়। প্রকল্পের আওতায় ৮০ কিলোমিটার মেরিন ড্রাইভের সঙ্গে ১৭টি সেতু এবং ১০৮টি কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে কলাতলী থেকে ইনানী ২৪ কিলোমিটার, দ্বিতীয় পর্যায়ে ইনানী থেকে শিলখালী পর্যন্ত ২৪ কিলোমিটার এবং তৃতীয় পর্যায়ে শিলখালী থেকে টেকনাফ পর্যন্ত আরও ৩২ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ করা হয়। সব মিলিয়ে মোট ৮০ কিলোমিটার মেরিন ড্রাইভ নির্মাণে ব্যয় হয়েছে এক হাজার ৪০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ২৪ কিলোমিটার নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৯৩ কোটি ৭৮ লাখ টাকা, দ্বিতীয় পর্যায়ে ২৪ কিলোমিটার নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৪৯১ কোটি ২৬ লাখ টাকা এবং তৃতীয় পর্যায়ে ৩২ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৪৫৫ কোটি ৬১ লাখ টাকা।

এছাড়া সওজ বিভাগ তথ্য মতে, মেরিন ড্রাইভ সড়কের দুই পাশে যুক্ত হয়েছে ওয়াকওয়ে, পর্যটকদের সুবিধার্থে সড়কজুড়ে ফ্লেক্সিবল পেভম্যান, শেড, গাড়ি পার্কিং ও মহিলা পর্যটকদের চেঞ্জিং রুমসহ অনেক সুবিধা। ৮০ কিলোমিটার সড়কজুড়ে তিনটি বড় আরসিসি সেতু, ৪২টি কালভার্ট, তিন হাজার মিটার সসার ড্রেন, ৫০ হাজার মিটার সিসি ব্লক এবং জিও ট্যাক্সটাই থাকছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here