বিশ্বে নিরাপরাধ মানুষ হত্যা ও জবাবদিহিতা

0
278

সিরিয়ার পশ্চিমাঞ্চলীয় সায়ারাত বিমানঘাঁটিতে কয়েকদিন আগে যে অর্ধ্বশতাধিক টমাহক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হইয়াছে, তাহাতে অন্তত ৬ জন নিহত হইয়াছেন। রাসায়নিক অস্ত্র মজুদ রহিয়াছে সন্দেহে এখানে হামলা চালানো হয়। প্রতিপক্ষ এই হামলার তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করিয়াছে। এমনকি পাল্টা যুদ্ধজাহাজও পাঠানো হইয়াছে। এখানে লক্ষণীয় বিষয় হইল, আন্তর্জাতিক সীমানা লংঘন করিয়াই এই ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হইয়াছে। ২০০৩ সালে পশ্চিমা জোট জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের অনুমোদন ছাড়া যেভাবে ইরাকে আগ্রাসন চালাইয়াছিল, তাহার সহিত এবারের ঘটনারও সাদৃশ্য পাওয়া যাইতেছে। আবার গত ফ্রেব্রুয়ারি মাসে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের চিন্তা করে। কিন্তু ইহাতে ভেটো দেয় একটি শক্তিশালী দেশ। সেই দেশ এবার সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করিয়াছে বলিয়া অভিযোগ উঠিয়াছে। অর্থাত্ সিরিয়া যুদ্ধে বিশ্বের দুই ক্ষমতাশালী দেশ যেকোনো প্রকারে জিতিবার জন্য মরিয়া হইয়া উঠিয়াছে। ইহাতে পদে পদে মানাবাধিকার লংঘিত হইলেও তাহার তোয়াক্কা করা হইতেছে না।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হইতেছে, পশ্চিমা মিডিয়াও আজ স্বাধীন নহে। ইরাক যুদ্ধের সময় ‘অ্যামবেডেড জার্নালিজম’ বলিয়া একধরনের নূতন সাংবাদিকতা আবিষ্কৃত হয়। এবার বিশেষত সিরিয়া যুদ্ধকে ঘিরিয়া আমরা যাহা লক্ষ করিতেছি, তাহাতে এই সাংবাদিকতার নূতন কী নাম হইবে—তাহা নিয়া বিশেষজ্ঞগণ চিন্তা-ভাবনা করিয়া দেখিতে পারেন। সিরিয়া যুদ্ধে এই পর্যন্ত চার লক্ষাধিক মানুষ প্রাণ হারাইয়াছেন। বাস্তুচ্যুত হইয়াছেন ১০ লক্ষাধিক মানুষ। কিন্তু এই যুদ্ধের যেন কোনো দাঁড়ি-কমা নাই। অনেকে বলিতেছেন, কোল্ড ওয়ার বা স্নায়ুযুদ্ধ আবার ফিরিয়া আসিয়াছে। কিন্তু শীতল যুদ্ধের নাম শুনিতেই আমাদের গা শীতল হইয়া আসে। ন্যাশনাল মিউজিয়াম অব আমেরিকান হিস্ট্রির তথ্য অনুযায়ী স্নায়ুযুদ্ধ চলে ১৯৪৬ হইতে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মাধ্যমে ইহার শেষ হয় এবং বিশ্বে একমেরুকরণের যুগ শুরু হয়। কিন্তু দ্বিমেরু বা একমেরু— কোনো বিশ্বেই শান্তির দেখা মিলে নাই। তাহারপরও শান্তির গান ঠিকই বাজিতেছে। আসলে এইসব শান্তির ললিত বাণী শোনাইতেছে ব্যর্থ পরিহাস।

আমেরিকার পিবিএসের (পাবলিক ব্রডকাস্টিং সার্ভিস) এক তথ্য অনুযায়ী গত বিংশ শতাব্দীতেই কেবল যুদ্ধ-বিগ্রহে ১০ কোটিরও বেশি লোক নিহত হইয়াছেন। ইহার অর্ধেকেরও বেশি নিহত হইয়াছেন গত দুই বিশ্বযুদ্ধে। তাই মানব ইতিহাসে এই শতাব্দীকে বলা হইতেছে সবচাইতে রক্তাক্ত শতাব্দী। কিন্তু একবিংশ শতাব্দীর শুরুতেই যুদ্ধ-বিগ্রহে যে ধ্বংসলীলা পরিলক্ষিত হইতেছে, তাহাতে ইহা শেষপর্যন্ত কোথায় গিয়া ঠেকিবে তাহা কেহ বলিতে পারেন না। টাইম ম্যাগাজিনের এক খবর অনুযায়ী কেবল ২০১৩ ও ২০১৪ সালে যুদ্ধের কারণে ২৮ ভাগ মৃত্যু বাড়িয়াছে। ২০১৪ সালে সিরিয়ায় ৭৬০০০, ইরাকে ২১০০০, আফগানিস্তানে ১৪৬৩৮ ও নাইজেরিয়ায় ১১৫২৯ জন মানুষ যুদ্ধের কারণে নিহত হন। তবে একক বা দুই বিশ্বমোড়লিপনার দিন শেষ হইয়া আসিতেছে। একজন ক্ষমতাবান প্রেসিডেন্ট তো এখন নিজেকে কেবল সেই দেশটিরই প্রেসিডেন্ট ভাবিতেছেন। নির্বাচনের আগে তিনি নিজের দেশকে তৃতীয় বিশ্বের সহিত তুলনাও করেন। নামিতে নামিতে কোথায় নামিয়াছেন তাহার কথাবার্তাই তাহার প্রমাণ। মূলত বিশ্বে বর্তমানে দুই ধরনের মোড়ল রহিয়াছেন। এক. বিশ্ব মোড়ল ও দুই. আঞ্চলিক মোড়ল। আঞ্চলিক মোড়লরা যেভাবে মাথাচাড়া দিয়া উঠিতেছেন, তাহাতে বিশ্বমোড়লদেরও একদিন প্রমাদ গুনিতে হইতে পারে। কিংবা বহুমেরুকরণের বিশ্বে যে নূতন বিশ্বব্যবস্থা দাঁড়াইবে, তাহাতে বদলাইয়া যাইতে পারে পৃথিবী। সেই ভারসাম্যপূর্ণ পৃথিবীতে বহু প্রত্যাশিত শান্তির দেখা মিলিলেও মিলিতে পারে। তখন অতীতের যুদ্ধ-বিগ্রহে নিরাপরাধ মানুষ হত্যার জন্য কাউকে না কাউকে কি জবাবদিহি করিতে হইবে না?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here