বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় যশোরের এক নারীকে রড দিয়ে পিটিয়ে ও এসিড দিয়ে ঝলসে হত্যা

0
202

রাজয় রাব্বি : অভয়নগরে বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় কেয়া খাতুন (৩০) নামে এক নারী শ্রমিককে রড দিয়ে পিটিয়ে ও এসিড দিয়ে ঝলসে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার অভিযোগে শামীম হোসেন (৩৫) নামে কেয়ার এক সহকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার তালতলা এলাকায় যশোর-খুলনা মহাসড়ক সংলগ্ন এসএএফ ইন্ডস্ট্রিজ লিঃ নামে একটি চামড়ার মিলের ভেতরে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত কেয়া খাতুন উপজেলার পায়রা ইউনিয়নের কাদিরপাড়া গ্রামের মৃত আবুল কালামের মেয়ে। আটক শামীম হোসেন উপজেলার রাজঘাট মাইলপোস্ট এলাকার খন্দকার মোশারফ হোসেনের ছেলে। তারা উভয় একই মিলে শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিল।
প্রত্যক্ষদর্শী শ্রমিকরা জানান, সোমবার দুপুরে টিফিনের সময় মিলের ভেতরে ক্যান্টিনে পাশে কেয়া বসে ছিল। এসময় শামীম এসে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। প্রস্তাবে রাজি না হলে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে শামীম তার হাতে থাকা লোহর রড দিয়ে কেয়ার মাথায় আঘাত করে। কেয়া মাটিতে লুটিয়ে পড়লে মিলের ভেতর থেকে একটি মগে এসিড এনে তার শরীর ও মুখে ঢেলে দেয়। কেয়ার চিৎকারে ক্যান্টিনের ভেতরে থাকা শ্রমিকরা এগিয়ে এসে শামীমকে ধরে মিল কর্তৃপক্ষকে খবর দেয়। খবর পেয়ে কর্তৃপক্ষ আহত কেয়াকে খুলনা আদদ্বীন হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। এবং শামীমকে অভয়নগর থানা পুলিশের নিকট সোপর্দ করে।
নিহত কেয়ার মামা হাবিবুর রহমান মজুমদার জানান, ঘটনার দিন সন্ধ্যায় খুলনার আদদ্বীন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আমার ভাগ্নি কেয়া মারা যায়। সে স্বামী পরিত্যাক্তা ছিল। গত ১০ বছর ধরে ১১ বছর বয়সি একটি কন্যা সন্তান নিয়ে সে গ্রামে বসবাস করে আসছে। একই মিলে চাকরী করায় শামীম দীর্ঘ দিন ধরে আমার ভাগ্নি কেয়াকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। রাজি না হওয়ায় শামীম আমার ভাগ্নিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। খুনি শামীমের ফাঁসি দাবি করেন তিনি।
এ ব্যাপারে অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম শামীম হাসান জানান, পরকীয়া প্রেমের কারণে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। প্রাথমিক তদন্তে আটক শামীম ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। আজ মঙ্গলবার ২৬ (অক্টোবর) তাকে যশোর আদালতে প্রেরণ করা হবে। এসিড নিয়ন্ত্রণ আইনে শামীমের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।