বীর শহীদদের প্রতিকৃতির প্রতি অশ্রদ্ধা কেন?

0
254

বছরের বিশেষ দিনগুলো বাঙালি জাতির জন্য অনেক ত্যাগ-তিতীক্ষার ফলস্বরূপ। আর এই একটি দিনের জন্য শিল্পী, কবি, সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবীসহ সকল আপামর ছাত্র-জনতা ব্যস্ত থাকে তাদের পবিত্র দিবসটিকে নতুন আঙ্গিকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দেওয়ার জন্য। আজ সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যেসব শহীদ ভাইবোনের রক্তের বিনিময়ে, সেসব শহীদকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে আজও এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বাঙালি মায়ের সন্তানেরা। নবীন-প্রবীণ শিল্পীদের মিলন মেলা দেখা যায় এই বিশেষ দিনটিতে। দেখা যায় তাদের অক্লান্ত পরিশ্রম আর মেধা দিয়ে তৈরি করা কারুকার্য। শিশু থেকে শুরু করে সব বয়সী বাঙালির মনে দোলা দেয় খ্যাতনামা শিল্পীদের চিত্রাঙ্কন কিংবা ভাস্কর্যের সৌন্দর্য ও তার ইতিহাস। চিত্রশিল্পীর হাতের ছোঁয়ায় দেখা যায় মায়ের ভাষা থেকে শুরু করে স্বাধীনতার সূর্যকে নতুন করে সৃষ্টি করা সেই বীর শহীদদের অবদানের ভাস্কর্য।

সম্প্রতি একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়া ‘ফেসবুকে’ দেখে নিজেকে সামাল দিতে কষ্ট হলো। যে প্রতিকৃতি কিংবা ভাস্কর্যতে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি প্রতিষ্ঠিত, সেই ভাস্কর্য কিংবা প্রতিকৃতিকে অবশ্যই শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা দেখাতে হবে। সকল ফটোগ্রাফার কিংবা চিত্রগ্রাহকরা অবশ্যই শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার জায়গা থেকে সংবাদ পরিবেশনের জন্য গুরুত্ব দেবে গণমাধ্যম কিংবা সোশ্যাল মিডিয়াকে। আবেগ আর ভালোবাসা থাকবে, কিন্তু খ্যাতনামা শিল্পীদের চিত্রশিল্পী কিংবা ভাস্কর্যকে অবমাননা না করে। বীর শহীদদের প্রতিকৃতিকে মূল্যায়ন করতে হবে একজন শিল্পীর সেই কষ্টার্জিত চিত্রকর্ম দিয়ে। বেপরোয়া কিংবা হুড়োহুড়ি না করে বিশেষ দিবসটিতে সুষ্ঠুভাবে চিত্র-ধারণ কিংবা সংবাদ পরিবেশনই হবে আমাদের কষ্টার্জিত আজকের সুজলা-সুফলা আর শস্য-শ্যামলা এই বাংলাদেশের প্রতি যথাযথ শ্রদ্ধা জ্ঞাপন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here