বৃষ্টিতে আমন ধান নিয়ে বিপাকে যশোরের কৃষকরা

0
1817

এম আর মাসুদ : অগ্রহায়ণের শুরুতে টানা ৩ দিনের গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে আমন ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষক। এবারের আমন ধানের পিছু ছাড়ছে না যেন বৃষ্টি। পাকা ধানের সোনালী শীষ যখন বাতাসে দোল খেয়ে ম ম ঘ্রাণে সুভাষিত দিগন্ত মাঠ। কৃষকও ধান কাটা, বাধা, ঝাড়া নিয়ে ব্যস্ত ঠিক যেন তখনই ৩ দিনের এই বৃষ্টিপাতে কৃষক নাস্তানাবুদ হয়ে পড়েছেন। ফলে কৃষক পরিবারে নবান্নের উৎসবের পরিবর্তে বইছে দুঃচিন্তা। এ বৃষ্টিতে শীতকালীন শাক সবজি ও রবি শস্যেরও ক্ষতি হয়েছে কম বেশি।
চলতি মৌসুমে যশোর জেলায় আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল এক লক্ষ ২৫ হাজার ৩৯৫ হেক্টর জমি। চাষ হয়েছে এক লক্ষ ২৭ হাজার ৩৬৫ হেক্টর জমিতে। গত বছর জেলার লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক লক্ষ ২৪ হাজার ২৮১ হেক্টর জমি। চাষ হয়েছিল এক লক্ষ ২৬ হাজার ৬৮৫ হেক্টর জমিতে। জেলার কেশবপুর ও অভয়নগর উপজেলা বাদে বাকি ৬ টি উপজেলাতে লক্ষমাত্রাধিক জমিতে রোপা আমনের চাষ হয়েছে। ইতমধ্যে মাঠের প্রায় ৪০ ভাগ ধান কাটা হয়েছে। যার অধিকাংশই মাঠে রয়েছে। কেউ কেউ বেধে বাড়িতে আনলেও সেরে উঠতে পারেননি। তবে বৃষ্টি আর না হলে ধানের হয়ত মোটা আকারের ক্ষতি হবে না। কিন্তু বিচালি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সরেজমিনে দেখা গেছে ঝিকরগাছার অধিকাংশ মাঠে ধান কাটা রয়েছে। কথা হয় ঝিকরগাছা উপজেলার বল্লা গ্রামের চাষী হাফিজুর রহমানের সাথে। তিনি দুই বিঘা জমির আমন ধান কেটে বাড়িতে আনলেও বৃষ্টির কারণে ঝেড়ে উঠতে পারেনি। একই গ্রামের চাষী ইজহারুল ইসলাম জানান, বৃষ্টি আর না হলে ধানের তেমন ক্ষতি হবে না। কিন্তু নিচু জমির বিচালি নষ্ট হয়ে গেছে। তার দাবি গো খাদ্যের জন্য এ বছর যে দরে বিচালি বিক্রি হচ্ছে তাতে তার ৭ বিঘা জমির বিচালির মূল্য অন্তত ৫০ হাজার টাকা। মনিরামপুর উপজেলার কায়েমকোলা গ্রামের হারান আলী ১ বিঘা জমিতে ১৪ মণ ধান পেয়েছেন। কার্তিক মসের ২য় সপ্তায় ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টিপাতে ধান পড়ে যাওয়ায় ফলন একটু কম হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। বর্তমান যশোরের বিভিন্ন হাট বাজারে ধান বিক্রি হচ্ছে প্রকার ভেদে ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকা পর্যন্ত। গত ৩ দিনের বৃষ্টিপাতে আমন ধানের পাশাপাশি শীতকালীন শাক সবজিরও ক্ষতি হয়েছে কম বেশি। বিশেষ করে বেগুন, ফুলকপি, মূলা, করলাসহ শাকসবজি কীট পতঙ্গের আক্রমন ও কিছু পঁচে যেতে পারে। বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনে জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত ঝিকরগাছা উপজেলার বোধখানা গ্রামের কৃষক আলী হোসেন জানান, আর যদি বৃষ্টি না হয় তা হলে সবজির তেমন ক্ষতি হবে না। কিন্তু আমন ধানের ক্ষতি হয়েছে। এ বিষয়ে যশোর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী হাবিবুর রহমান জানান, বৃষ্টিতে আমন ধানের ক্ষতি হয়েছে। আর বৃষ্টি না হলে সবজিতে ক্ষতি হবে না, তবে রবি শস্য চাষ কিছুটা পিছিয়ে যাবে বৃষ্টির কারণে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here