বৃিষ্ট উেপক্ষা কের ক্রেতাদের পদচারনায় জমে উঠেছে যশোরের ঈদ বাজার

0
295

ডি এইচ দিলসান : আর মাত্র কয়েকদিন পরেই মুসলমানদের বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। ইতিমধ্যে জমে উঠেছে দেশের ঈদ বাজারগুলো। অভিজাত বিপণিবিতান থেকে শুরু করে ফুটপাত পর্যন্ত সর্বত্রই ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে অবিরাম বিকিকিনি। অতিরিক্ত ক্রেতা সামলাতে বিক্রেতাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। তারপরও থেমে নেই বেচাকেনা। বৃষ্টি উপেক্ষা করে ক্রেতারা ছুটছে ঈদ বাজারে।


রোববার থেকে টানা ২ দিন টানা বৃষ্টির মধ্যেও পাল্লা দিয়ে ঈদের কেনাকাটা করছে যশোরবাসী। সরজমিনে সোমবার সকালে যশোরের ঈদ বাজার ঘুরে দেখা গেছে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির মধ্যেও ঠেলাঠেলি করে পছন্দের পোষাকটি ক্রয় করছে ক্রেতারা।
যশোরের মুবিজ সড়কের সুই-সুতা, কাপুড়িয়া পট্টির মনষা বস্ত্রালয়, অন্যন্য সড়কের রং ফ্যাশন, শাড়ী ঘর, জেস টাওয়ার, তাঁত কুটির, বিদিশা, লিবার্টি স্যু, লেডিস কর্ণারসহ বিভিন্ন অভিজাত বিপণীতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঈদের কেনাকাটা শুরু হয়েছে। বৃষ্টিতে কেনাকাটার উপর কোন প্রভাব পড়ছে না বলে জানান ব্যবসায়ীর।
যশোরের মুজিব সড়ক অভিযাত বস্ত্রবিপনী গুলোতে গিযেও একই চিত্র দেখা গেছে। প্রত্যেকটা সো-রমে ভিড় লেগেই আছে।
এ ব্যাপারে সুতোয় বোনা ফ্যাশান হাউজের সত্তাধিকারী কামাল হোসেন বলেন, এবার ঈদের কেটাবেচা ভালো। তিনি বলেন বৃষ্টি উপেক্ষা করেও ক্রেতারা আসছে।
তবে লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে, অভিযাত বিপনীর ছেয়ে বেশী বিক্রি হচ্ছে সাধারণ ঈদ মার্কেটে। যশোরে গরীবের মার্কেট হিসেবে পরিচিত কালেক্টরেট মার্কেটে ভিড় বেশী। এক ব্যবসায়ী বললেন, এবার শিশু ও কিশোরদের পাঞ্জাবী, জুতা, স্যান্ডেল ও টি শার্ট এবং থ্রি-পিস বিক্রি হচ্ছে বেশী। বড়দের জিনিসপত্রও বিক্রি হচ্ছে কম। ইমিটেশনের কানের দুল, চুড়ি ও পারফিউমের দোকানেও ভিড় আছে। ঈদমার্কেটে সাধারণত সকালে আর কিাল থেকে রাতপর্যন্ত ভিড় হচ্ছে। দুপুরে রাস্তাঘাট দোকা পাটে লোকজনের উপস্থিতি একেবারেই কম।
যশোর কাপুড়িয়া পট্টিতে ঈদের সপিং করতে আসা চৌগাছার এক গৃহবধূ বলেন, শেষের দিকে জিনিসপত্র কেনা কষ্টকর হবে, তাই এবার আগেভাগেই ঈদের কেনাকাটা করছি, তবে দাম বেশী, তবে দোকানীরা বলছেন, আমরা যেমন কিনছি তেমন বিক্রয করছি। দোকানীরা আরো বলেন রমজানের তৃতীয় দিন থেকে বাজারে ক্রেতাসাধারণকে আসতে দেখা যাচ্ছে। রমজানের আগেও কেউ কেউ এসেছেন। যদিও মূল বেচাকেনা শেষের দিকেই হয় প্রতিবারই।

এইচ এম এম রোডে সপিং করতে আসা সুইটি জানান, কেনাকাটা তো করতেই হবে। তাই আগে-ভাগেই করাই ভালো। সাধ আছে সাধ্য নেই, ঈদের ক্ষেত্রে তা যেন প্রযোজ্য নয়। যেভাবেই হোক পরিবার-পরিজনের জন্য নতুন জামা কাপড় ও জিনিসপত্র কেনার ব্যাপারে কার্পন্য করা ঠিক হবে না। তাই ছুটে এসেছি। একই ধরণের কথা বললেন কাপুড়িয়া পট্টির মনসা বস্ত্রালয়ে চৌগাছার এক কলেজ শিক্ষক। তিনি বললেন, যাকাতের কাপড় কেনা ও বিলি করতে সময় লাগবে, তাছাড়া পরিবারের পছন্দসই কাপড় জুতা স্যান্ডেল কিনতে তো সময় লাগবে, তাই সময় হাতে নিয়ে ঈদ মার্কেটে নেমেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here