বিচারহীনতায় ৯ বছর পার হলো যশোরের চাপাতলা মালোপাড়ায় সাম্প্রদায়িক হামলা

0
30

#নির্বাচনী বছর হওয়াতে নতুন করে তাদের বাসা বেঁধেছে আতংক অজানা ভীতি
# থমকে আছে বিচার প্রক্রিয়া
#২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি সা¤্রদায়িক হামলার তাÐবের এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল গ্রামটি। সেই বিভীষিকাময় দিনের ৯বছর প‚র্ণ হলো আজ’

প্রতিবেদক : ঠিক ৯ বছর আগের সাম্প্রদায়িক হামলার তাÐবের কথা মনে পড়লে এখনো গা শিউরে ওঠে যশোরের অভয়নগর উপজেলার চাপাতলা গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষদের। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি সংসদ নির্বাচনে জামায়াত-বিএনপিকর্মীদের নির্বাচন-পরবর্তী তাÐবের এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল পাড়াটি। বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ওই ঘটনায় দেশব্যাপী নিন্দার ঝড় ওঠে। সেই বিভীষিকাময় দিনের ৯ বছর প‚র্ণ হলো আজ বৃহস্পতিবার। ওই ঘটনার পর চাপাতলা মালোপাড়া গ্রামের জীবনযাত্রা স্বাভাবিক রূপে ফিরলেও মনের ক্ষত এখনো শুকায়নি সেখানকার বাসিন্দাদের। নির্বাচনী বছর হওয়াতে নতুন করে তাদের বাসা বেঁধেছে চাপা আতংক আর অজানা ভীতি!
এদিকে, সংঘটিত এ সাম্প্রদায়িক হামলার এতো বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও এ মামলার বিচারকাজ সম্পন্ন হয়নি। এ মামলার চার্জ গঠন নিয়ে সরকারপক্ষের আইনজীবীদের বিরোধিতা এবং উচ্চ আদালতে আপিলের কারণে বিচার প্রক্রিয়া অনেকটাই থমকে রয়েছে। স্থানীয়দের চাওয়া, ‘এবারে ভোটের দিনে নিরাপত্তার ব্যবস্থা ও হামলায় জড়িতদের দ্রæত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি।
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি। ভোটদেয়া শেষে যার যার বাড়িতেই ছিলেন যশোরের অভয়নগরের মালোপাড়ার মানুষ। সন্ধ্যায় হঠাৎ করেই পাল্টে যায় ওই এলাকার চিত্র। হামলাকারীরা বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করা ছাড়াও শতাধিক বাড়িঘরে ভাঙচুর এবং ঘরে থাকা মালপত্র লুটপাট করে। পুড়িয়ে দেয় ১২টি বাড়ি। হামলায় আহত হয় অন্তত ২৫ জন। জামায়াত-বিএনপির চালানো সেদিনের ওই সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় তছনছ হয়েছিল পুরো গ্রাম। এ সময় আতঙ্কিত গ্রামবাসী পার্শ্ববর্তী ভৈরব নদ সাঁতরে ও ইঞ্জিনচালিত নৌকায় করে পার হয়ে দেয়াপাড়া গ্রামের পালপাড়া এলাকার প‚জামÐপে আশ্রয় নেন। পরদিন প্রশাসন ও রাজনৈতিক-সামাজিক নেতৃবৃন্দের সহায়তায় গ্রামে ফিরলেও সন্ধ্যা নামার আগেই নারী-শিশুদের অনেকেই ফের পাড়ি জমাতেন নদীর ওপারে। যারা ভিটে আঁকড়ে পড়েছিলেন তাদের প্রতিটি মুহ‚র্তও কাটত আতঙ্কের মাঝে। দশম জাতীয় নির্বাচনকে ঘিরে সারাদেশে ঘটে যাওয়া দুঃসহ সহিংসতার মধ্যে অন্যতম ছিল চাপাতলা মালোপাড়ার ঘটনাটি। হামলার পর দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষ পাশে দাঁড়ায় তাদের। ছুটে আসেন দেশবরেণ্য ব্যক্তিবর্গ, মন্ত্রী-এমপি, দেশি-বিদেশি সংস্থা ছাড়াও স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তোলপাড় হয় সারাদেশ, নড়ে বসে প্রশাসন। মালোপাড়ার এক কিলোমিটারের মধ্যে বসানো হয় দুটি পুলিশ ক্যাম্প।
বিভীষিকাময় দিনের পর ৯ বছরে কেমন আছে চাপাতলা মালোপাড়ার হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষেরা। গত বুধবার সরেজমিনে এলাকার প্রায় ২০ থেকে ২৫ পরিবারের সঙ্গে কথা হয়। তারা সবাই স্বাভাবিক জীবন যাপন করছেন। ৯ বছরে অনেক পরিবর্তনও হয়েছে ঐ পল্লীতে। সহিংসতার শিকার মালোপাড়ার মানুষ গত ক’বছরে পেয়েছেন পাকা রাস্তা, কোটি টাকা ব্যয়ে সরকারের তৈরি করে দেওয়া নতুন ঘরবাড়ি ছাড়াও সরকারি-বেসরকারি অনেক সাহায্য সহযোগিতা। এতে খুশি সেখানকার মানুষেরা। তবে মামলার বিচার না হওয়ায় ক্ষোভও আছে এখানকার বাসিন্দাদের। কয়েকজন জানান, এই মালোপাড়ায় ১৫১ টি হিন্দু সম্প্রদায় পরিবার বাপ দাদার আমল থেকে বসবাস করে আসছে। তারা এখানে শান্তিপ‚র্ণভাবে পরিবার নিয়ে বাস করছে। অথচ যখন নির্বাচন আসে তখন তাদের এই মালোপাড়া নিয়ে শুরু হয় রাজনীতি। আর এই রাজনীতির রোষানলে পড়ে সৃষ্টি হয়েছিল ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি বিভীষিকাময় দিন। তাদের ভাষ্য, রাতে ঘুমালে দুঃস্বপ্ন ভেসে ওঠে বিভীষিকাময় সেই রাতের ঘটনা। তাদের ধারণা, সরকার পরিবর্তনের সাথে সাথে তাদেরকে বাপ দাদার ভিটে মাটি ছেড়ে চলে যেতে হবে বেশিরভাগ পরিবারগুলো।
মালোপাড়ার বাসিন্দা ষাটর্ধ্ব প্রবাস সরকার। সেই দিনে স্মৃতি চারণ করে বলেন, এখন নিরাপদে থাকলেও সবসময় আতংকে দিন পার করি। কখন কি হবে জানি না। নির্বাচন আসলে একটু আতংক কাজ করে। তিনি বলেন, প্রশাসনের তত্ববাধায়নে থাকলেও তাদের মধ্যে রয়েছে নানান উৎকণ্ঠা। নিরাপত্তার জন্য এখনো স্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করা সম্ভব হয়নি। দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী শংকরি সরকার বলেন, সেই সময়ে ঝাপ দিয়ে নদী পার হওয়ার কথা মনে আছে। রিতা রায় নামে এক বাসিন্দা বলেন, এখনো পুলিশ পাহারা দিয়ে নানা অনুষ্ঠান করতে হয়। হাসিনা সরকার ক্ষমতায় না থাকলে আমরা থাকতে পারতাম না। এলাকায় প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে কোন কথা বলি না। সব সময় চাপা আতংক কাজ করে। মালোপাড়ার রবিন বিশ্বাস, মীরা বিশ্বাস, অনুপ সরকার, নীপা বিশ্বাসরা সেই উৎকন্ঠার স্মৃতি ভুলে যেতে চাই। তবে ভুলতে পারেন না। তারা জানান, তাÐবের সঙ্গে জড়িতদের অধিকাংশ আসামি জামিনে মুক্ত রয়েছে। ভুক্তভোগীদের আশঙ্কা সময়ের পরিবর্তনে এলাকায় প্রশাসনের যে নজরদারি রয়েছে তা আর থাকবে না। তখন হয়তো তারা আবার এ রকম ঘটনার শিকার হবেন। সেদিনের হামলায় আহত বিশ্বজিৎ সরকার বলেন, মালোপাড়া এখন তাই সবুজ টিন আর সাদা দেয়ালের এক নতুন জনপদ। এখন শুধু বিচার পেলেই খুশি আমরা।’

থমকে আছে বিচার প্রক্রিয়া
এ হামলার ঘটনায় পরদিন পুলিশ ৩৯ জনের নাম উল্লেখসহ ৫ শতাধিক ব্যক্তিকে আসামি করে দটি মামলা দায়ের করে। এ মামলায় বিভিন্ন সময়ে আটক দেখানো হয় শতাধিক ব্যক্তিকে। মামলাটি অভয়নগর থানা ও গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হাত ঘুরে তদন্তের দায়িত্ব পায় সিআইডি। হামলার বছরপ‚র্তির আগের দিন অর্থাৎ ২০১৫ সালের ৪ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা যশোর সিআইডির পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম ১০০ জনকে অভিযুক্ত করে যশোরের জেলা জজ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ২০১৯ সালে যশোরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (১ম) আদালতে পাঠানো হয়। বর্তমানে সেখানেই মামলাটি বিচারাধীন। তবে মামলার চার্জ গঠনকালে ওই আদালতের তৎকালীন বিচারক আব্দুল হামিদ এজাহারনামীয় ছাড়া চার্জশিটে থাকা বাকি আসামিদের অব্যাহতি দেন। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মামলাটি বিচারের জন্য অ্যাডভোকেট বিমল ও অপর অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট আবু সেলিম রানা অব্যাহতি প্রদানে আপত্তি জানালেও আদালত তা গ্রহণ করেননি। এরপর এ নিয়ে তারা ২০২১ মার্চ মাসে হাইকোর্টে আপিল করেন। বর্তমানে নিম্ন আদালতে মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণ প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান যশোরের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট এম ইন্দ্রিস আলী।
এদিকে, সংঘটিত এ সাম্প্রদায়িক হামলার এতো বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও এ মামলার বিচারকাজ সম্পন্ন না হওয়ায় ক্ষুদ্ধ পূজা পরিষদসহ সামাজিক আন্দোলনের সাড়ে জড়িত ব্যক্তিরা। জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দিপাঙ্কর দাস রতন বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার না হওয়ায় দুস্কৃতিকারীদের আরো উৎসাহী করা হয় বলে তিনি মনে করেন। এতোদিন পরেও বিচার না হওয়ায় আমরা হতাশ। দ্রæত এই হামলার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। মালোপাড়ার বাসিন্দা ও প্রেমবাগ ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক বিশ্বজিৎ সরকার বলেন, এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামিরা বিভিন্ন সময় মালোপাড়ার কয়েকজনকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিচ্ছে। তাদের মধ্যে কেউ কেউ এখনো আটক হয়নি। এই বিষয়ে অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম শামিম হাসান বলেন, ওনারা এখন সবাই ভালো আছে। তাদের নিরাপত্তার জন্য একটি পুলিশ ফাঁড়িও রয়েছে। সামনে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আতংকেও কিছু নেই বলে জানান তিনি। মামলা আদালতে চলমান।