বেতার ও টেলিভিশনে শুদ্ধ সংবাদ পাঠ

0
210

ভাষা ও সংস্কৃতি একটি জাতির সৃষ্টিমুখর হূদয় সৌন্দর্যের সম্মিলিত যোগফল। জাতির চিন্তাধারা, ভাবধারা ও কর্মধারার জীবন্ত প্রতিচ্ছবি তার ভাষা। যে জাতি জীবন্ত, সে প্রতিনিয়ত রক্ষা করে চলে তার ভাষা তথা সংস্কৃতির বহমান ধারাকে। ভাষাতেই প্রকাশ পায় জাতীয় প্রাণময়তা আর এই ভাষাকে যখন অবরুদ্ধ করা হয়, জাতির সৃষ্টিমুখর প্রাণস্পন্দনকে থামিয়ে দেওয়ার প্রয়াস চলে, তখন বজ্রকণ্ঠে ধ্বনিত হয় প্রতিবাদের সুর। বাংলা ভাষা আজ সমাজের সর্বস্তরে স্বীকৃত। শিক্ষা সংস্কৃতির সর্বক্ষেত্রে আজ বাংলা ভাষার অবাধ বিচরণ। প্রতিদিনের ভাবের আলাপন, সুখ-দুঃখ, আশা-নিরাশা, আনন্দ-বেদনার বহিঃপ্রকাশ এই বাংলা ভাষায়।

সর্বস্তরে বাংলা ভাষার শুদ্ধ ব্যবহার নিশ্চিত করা প্রত্যেক নাগরিকের নৈতিক দায়িত্ব ও কর্তব্য। বাংলাদেশের জাতীয় ভাষা বাংলা সকল রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যবহারের নির্দেশনা রয়েছে। বাংলা ভাষাকে শিক্ষা ও জ্ঞান-বিজ্ঞানের বাহন করা হয়েছে এবং বাংলার পাশাপাশি কিছু কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইংরেজি মাধ্যম চালু রয়েছে। তবু বাংলাদেশের সর্বস্তরে বাংলা ভাষার শুদ্ধ ব্যবহার ও প্রমিত উচ্চারণ একান্ত প্রয়োজন। বিদেশি আদর্শের মাধ্যমে শিক্ষা দিয়ে শিক্ষার্থীদের চৌকস করে তোলার চেষ্টা হচ্ছে।

কথায় বলে, শুদ্ধ উচ্চারণ সভ্য সমাজে প্রবেশের পরিচয়পত্র। আসলে প্রমিত উচ্চারণ মানুষের ব্যক্তিত্ব প্রকাশের একটি অন্যতম উপাদান। মাতৃভাষার শুদ্ধ ও সুন্দর ব্যবহার কেবল ভাষার সম্মানই বয়ে আনে না, সেই সঙ্গে ব্যবহারকারীর জীবন প্রতিষ্ঠায় একটি বড় অনুষঙ্গ হিসেবে কাজ করে। যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ভাষা। আর এই ভাষার প্রধান উপকরণ হচ্ছে শব্দ। অর্থাত্ অর্থপ্রকাশক শব্দের ব্যবহারই মানুষের মনোভাব প্রকাশের ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকে। ভাষা মানুষের সামাজিক জীবনের ভাব প্রকাশের একমাত্র বাহন। ভাষার মৌলিক গঠন উপাদান হচ্ছে অর্থবোধক ধ্বনি। ধ্বনি একটি বাচনিক প্রক্রিয়া, যা শ্রবণীয়। মানুষের মুখে তা উচ্চারিত হয় এবং অপরের কানে তা অর্থবহ হয়ে প্রবেশ করে। অর্থহীন ধ্বনি উচ্চারণ করা যায় বটে, তবে তা মানব সমাজের কোনো কাজে আসে না। তাই ভাষার উচ্চারণের শুদ্ধতা রক্ষিত না হলে এর মূল উদ্দেশ্যই ব্যর্থ হয়। তাই শুদ্ধ উচ্চারণ একদিকে যেমন সঠিকভাবে মনোভাব প্রকাশে সহায়ক, তেমনি শব্দের অর্থবিভ্রান্তি ও বিকৃতি ঘটার সম্ভাবনা থেকেও মুক্ত রাখে। আমাদের দেশে বাংলাভাষার যথাযথ উচ্চারণ বিষয়ে শিশুশিক্ষা পাঠ্যক্রমে কোনো নির্দেশনা নেই। শিক্ষিত, এমনকি প্লিত ব্যক্তিরাও বিষয়টি নিয়ে চিন্তাভাবনা করেন না। নিজেদের উচ্চারণের শুদ্ধতা সম্পর্কে ভাবেন না। ফলে তারা ভাষার সৌন্দর্য বিষয়ে ওয়াকিবহাল নন, আর আমাদের চারপাশে বেতার ও টেলিভিশনে অশুদ্ধ উচ্চারণ শুনতে শুনতে কান ঝালাপালা হয়ে যায়।

বাংলা একটি জীবন্ত ভাষা। গতি এর ধর্ম, নিরন্তর রূপান্তরেই এর ঋদ্ধি, ফলে কোনো সূত্রের সাহায্যে এ ভাষার ব্যাকরণ, ভাষাতত্ত্ব, ধ্বনিতত্ত্ব বা উচ্চারণতত্ত্বকে চিরস্থায়ী বন্ধনে আবদ্ধ করা আদৌ সম্ভব নয়। তবে আঞ্চলিকতাকে পরিহার করে প্রমিত ও শুদ্ধ কথ্যভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য সরকারি উদ্যোগের অপ্রতুলতা আজকাল ছেলেমেয়েদের মধ্যে হতাশার জন্ম দিয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে ২৪টি টেলিভিশন ও ১৮টি রেডিও চ্যানেল চালু রয়েছে, সমপ্রতি আরো ১৩টি নতুন টিভি চ্যানেল স্থাপনের অনুমতি প্রদান করা হয়েছে। এ সকল প্রচার মাধ্যমে বাংলাভাষার শুদ্ধ উচ্চারণে অনুষ্ঠান উপস্থাপনা ও সংবাদ পাঠ করার বিষয়টি মাথায় নিয়েই ইতোমধ্যে কিছু উদ্যোগ গৃহীত হয়েছে।

মাতৃভাষা আয়ত্ত করা অন্য ভাষার চেয়ে অতি সহজ। পরভাষার মাধ্যমে শিক্ষালাভে শিক্ষার্থীর দৈহিক ও মানসিক শক্তির যথেষ্ট অপচয় হয়, সে শিক্ষার সাথে জীবনের ঘনিষ্ঠ যোগও থাকে না। দেশ কালের সঙ্গে ইতিহাস ও ঐতিহ্য, শিক্ষা ও সংস্কৃতির যে যোগ রয়েছে তার সঙ্গে গভীর মেলবন্ধন রচনা করতে পারে মাতৃভাষা বাংলা, আর তা যদি হয় শুদ্ধ ও সঠিক ব্যবহার। স্বদেশের মাটি ও মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ, তাদের প্রতি দায়বদ্ধতার চেতনা গড়ে ওঠে মাতৃভাষা বাংলার মাধ্যমে। দেশের ব্যাপক সংখ্যক মানুষকে পরভাষায় শিক্ষিত করা সম্ভব নয়। বিদেশি ভাষা শিক্ষার সুযোগ ও সামর্থ্য কেবল মুষ্টিমেয় বিত্তশালী ও মধ্যবিত্তের মধ্যেই সীমিত থাকে, কাজেই মাতৃভাষা বাংলা সার্বজনীন এবং এর গুরুত্ব অপরিসীম। আজকের জাপান, জার্মানি ও ফ্রান্স এসব দেশে জ্ঞানার্জন থেকে শুরু করে সর্বস্তরে তাদের মাতৃভাষার শুদ্ধ ও সঠিক ব্যবহারের ফলে উন্নতির চরম শিখরে আরোহণ করতে পেরেছে। তারা শিক্ষা-সংস্কৃতি, জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চাসহ কোনো কিছুতে আর পিছিয়ে নেই। তাই আমাদের প্রাণপ্রিয় বাংলাদেশেও সর্বস্তরে বাংলা ভাষার শুদ্ধ ও সার্বজনীন ব্যবহার নিশ্চিত করে উন্নয়নের লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে হবে। যারা মাতৃভাষার মর্যাদা দিতে পারে না তারা জাতীয় উন্নয়নও করতে পারে না। সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী বলেছেন, “পৃথিবীতে যখন যে জাতি গৌরবের পতাকা উড়াইয়াছেন তখনই দেখিতে পাইবেন, সে জাতি নিজ মাতৃভাষাকে পরিপুষ্ট সমলঙ্কৃত পরিপূর্ণ এবং সমুজ্জল ও সুমার্জিত করিয়া তুলিয়াছেন।” বর্তমান বিশ্বে যে সব দেশ অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধি লাভ করেছে তার মূলে রয়েছে মাতৃভাষাপ্রীতি, দেশাত্মবোধ ও শ্রম সাধনা। সুতরাং বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সর্বস্তরে বাংলা ভাষার শুদ্ধ ব্যবহার ও প্রমিত উচ্চারণ একান্ত প্রয়োজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here