বেনাপোলের বিতর্কিত ডাক্তার মিন্টুর সুরক্ষা ডায়গনস্টিক সেন্টারে ভ্রাম্যমান আদালতের সিলগালা

0
148

বেনাপোল প্রতিনিধি : বেনাপোলের বিতর্কিত ডাঃ মিন্টু রহমান ওরফে মিন্টুর পরিচালনাধীন সুরক্ষা ডায়গনস্টিক সেন্টারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে নানা অনিয়ম পরিলক্ষীত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দিয়েছে। একই সময় ভূয়া ডাক্তার মিন্টু ও তার ব্যাবসায়িক অংশীদ্বার মোঃ বিল্লাল হোসেনকে নগদ ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড প্রদান অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত।
বুধবার ( ৬মার্চ ) সকালে বেনাপোল রেলস্টেশন এলাকায়া অবস্থিত সুরক্ষা ডায়গনস্টিক সেন্টারে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজার নেতৃত্বে এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ ইউসুফ আলী, বেনাপোল পোর্টথানার অফিসার ইনচার্জ কামাল হোসেন ভূইয়া সহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের পেশকার শান্তিপদ বিশ্বাস বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে আনুমানিক সকাল ১১টার দিকে সুরক্ষা ডায়গনস্টিক সেন্টারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। অভিযান কালীন সময়ে ক্লিনিক পরিচালনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নাথাকা,অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও নির্ধারীত ডাক্তার ডায়গনস্টিক সেন্টারে উপস্থিত না থাকা সহ নানা অনিয়ম পরিলক্ষীত হলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন আইন-২০০৯ এর ৫২ ধারা মোতাবেক প্রতিষ্ঠানের দুই মালিককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ৩ মাসের অর্থাদন্ডাদেশ প্রদান করা হয়। দন্ডাদেশের জরিমানার টাকা পরিশোধ পূর্বক তাদের কে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে আরো জানা গেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ইউসুফ আলী জানান,ইউনো মহোদেয়ের কাছে অভিযোগের প্রেক্ষিতে সুরক্ষা ডায়গনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালালে প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় নানা এুটি পরিলক্ষিত হয়।আইন অনুযায়ী কর্তৃপক্ষকে প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় প্রয়োজনীয় সকল কাগজাদি হালনাগাদ করে অনুমতি সাপেক্ষ্যে পুনরায় প্রতিষ্টান চালু করার সিদ্ধান্ত জানিয়ে ডায়গনিস্টিক সেন্টারটি সিলগালা করা হয়।

উল্লেখ্য বেনাপোলের তথা কথিত ডাক্তার মিন্টু দীর্ঘ ১৮ /২০ বছর পূর্বে গ্রাম ডাঃ মন্টুর পিওন ও পরবর্তীতে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডি এমএফ চিকিৎসক আব্দুল মান্নানের কমপাউন্ডার হিসাবে দীর্ঘ বৎসর ধরে চাকরী করেছেন বলে স্থানীয় একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেন।প্রাতিষ্টানিক ভাবে অধ্যায়ন করতে দেখা না মিললেও অর্থ বিনিময়ে সনদ সংগ্রহ করে চিকিৎসক হিসাবে বেনাপোলে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।ব্যাবসায়িক পার্টনার হিসাবে প্রলোভন দেখিয়ে ছিট কাপড় ব্যবসায়ী বিল্লাকে যুক্ত করে গড়ে তলেছেন অনুমোদনহীন ডায়গনস্টিক সেন্টার। বিতর্কিত ডাক্তার মিন্টুর অপচিকিৎসা দেওয়া নিয়ে অনেকের অভিযোগ থাকলেও একটি প্রভাবশালী মহলকে ম্যানেজ করেই চলছে তার লোক ঠকানো চিকিৎসা ব্যবসা। অভিযোগের বিষয়ে বিতর্কিত চিকিৎসক মিন্টুর সহিত যোগাযোগের চেষ্ঠা চালিয়ে সাহ্মাৎ না মেলায় ও মুঠো ফোনের নাম্বার বন্ধ থাকায় বিবৃতি জানা সম্ভব হয়নী।

ধুরন্ধর কথিত ডাক্তার মিন্টু কর্তৃক প্রতারিত ব্যবসায়িক বিল্লাল হোসেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তার ব্যবসায়িক পার্ট নারের অনিয়মের কারেনে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাকে জরিমানা গুনতে হয়েছে। তিনি এ ব্যবসার কিছু বোঝেন না। মিন্টু ডাক্তার নানা প্রলোভন দেখিয়ে তাকে ডায়গনস্টিক সেন্টারে ব্যাবসায়িক অংশীদার হিসাবে যুক্ত করে ৯লাখ টাকার বিনিয়োগ করান। পরবর্তী সময়ে মিন্টু চুক্তি ভঙ্গ সহ প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় নানা অনিয়ম করলে তিনি প্রশাসনিক সহায়তায় সু বিচার পেতে বেনাপোল পোর্ট থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। এমন কি গত ৩ মার্চ বিজ্ঞ কুসলী দ্বারা বিল্লাল হোসেন ডাক্তার মিন্টুর নামে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়ে উকিল নোটিশ প্রেরণ করেন বলে জানা গেছে। বিল্লাল হোসেন আরো বলেন মিন্টু একজন নাম সর্বস্ব ডাক্তার হয়েও ডায়গনস্টিক সেন্টার পরিচালনা করায় নানা প্রশাসনিক ঝামেলার মুখে পড়ে তিনি অংশিদারীত্ব ছেড়ে দিতে চাইলে মিন্টু নানা বিধ কুট কৌশল খাটিয়ে আমাকে সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার চেষ্ঠা চালিয়ে আসছে।