বেনাপোলে আমদানি-রফতানি কার্যক্রমে গতিশীলতা বৃদ্ধি ও যানজট নিরসন প্রকল্পে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

0
240

আশানুর রহমান আশা,বেনাপোল: দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে আমদানি-রফতানি কার্যক্রমে গতিশীলতা বৃদ্ধি ও যানজট নিরসন কল্পে শনিবার বিকেলে প্রশাসন, ভারত বাংলাদেশ সিএন্ডএফ এজেন্ট ও বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের সমন্বয়ে এক জরুরী মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয় বেনাপোল কাস্টমস সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশন মিলনায়তনে।

বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি আলহাজ্ব মফিজুর রহমান সজনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন, বেনাপোল কাস্টম হাউসের ডেপুটি কমিশনার মারুফুর রহমান, বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আব্দুল ওয়াহেদ মিল্কী, ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের সহ অধিনায়ক মেজর নজরুল ইসলাম, বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অর্পূব হাসান, কোলকাতা কাস্টম হাউস এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি রাজু গোস্বামী, বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সিনিয়র সহসভাপতি আলহাজ¦ নুরুজ্জামান, সহভাপতি আলহাজ্ব খায়রুজ্জামান মধু, সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হক লতা, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন, বন্দর সম্পাদক শাহাবুদ্দিন, বাংলাদেশ -ভারত চেম্বার অব কমার্সের স্থলবন্দর উপকমিটির চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান, ঝিকরগাছা-শার্শা-বেনাপোল ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব শামছুর রহমান, সাধারন সম্পাদক মুছা মাহমুদ, বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট এজেন্সী মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আজিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুজ্জামান সনি, বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস স্টাফ এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দিন, পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্টস স্টাফ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী, যশোর জিলা ট্রাক ও ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়নের বেনাপোল শাখার সভাপতি শাহিন, বেনাপোল স্থলবন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মগর আলী, সাধারন সম্পাদক রাশেদ আলী প্রমুখ।

সভায় বেনাপোল বন্দরে যানজট নিরসনে এখন পর্যন্ত সমাধান হয়নি বলে দুঃখ প্রকাশ করা হয়। সভায় আমদানি-রফতানি কার্যক্রমে গতিশীলতা বৃদ্ধি ও যানজট নিরসনে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান জানানো হয়। সিদ্ধান্তগুলো হলো ভারতীয় কর্তৃপক্ষ খালি ট্রাকগুলো সময়মত গ্রহণ না করায় ভারত থেকে আসা পণ্যবাহী ট্রাকগুলো বেনাপোল বন্দরে পণ্য খালাস করে রাস্তার পাশে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। এর ফলে চেকপোস্ট থেকে বন্দর পর্যন্ত যানজট তৈরি হয়। এখন থেকে ভারতীয় খালি ট্রাক রাত ৯ টা হতে সকাল ৯ টা পর্যন্ত ভারতে প্রবেশ করাতে হবে। প্রত্যেকটি খালি ট্রাকের কাগজপত্র সময় মতো দিতে হবে। তা না হলে সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফ মালিক বা কর্মচারীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। বাংলাদেশী ট্রাক সংশ্লিষ্ট সংগঠন বা প্রতিষ্ঠানের অনুমতিপত্র ছাড়া বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করতে পারবে না। চেকপোস্টে কোন প্রকার ইজিবাইক দাঁড়ানো থাকবে না। সকল পরিবহন যাত্রী নামানোর পর বাসগুলোকে নিজস্ব জায়গায় বা পোর্ট পার্কিং এ রাখতে হবে। পরিবহন ছাড়ার কিছু সময় আগে কাউন্টারের সামনে রেখে যাত্রী উঠিয়ে কাউন্টার ত্যাগ করতে হবে। বাংলাদেশ হতে রফতানি কার্যক্রম সকাল ১১ টা পর্যন্ত চলবে এবং আমদানি কার্যক্রম সকাল-১১ টা হতে শুরু হবে।
ভারত থেকে বিপুল পরিমান নতুন চেসিস আমদানির ফলে এবং উক্ত আমদানিকৃত চেসিস রাখার উপর্যুক্ত জায়গা বন্দরে না থাকার কারনে সড়কের দুই পাশসহ বিভিন্ন স্থানে চেসিসগুলি অবস্থান নিয়ে থাকে। ফলে প্রতিনিয়ত যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। সেক্ষেত্রে বন্দরে একটি ট্রাক টার্মিনাল আছে সেখানে খালি এবং মালামাল বোঝাইকৃত ট্রাক রাখার পর যে পরিমান জায়গা অবশিষ্ট থাকবে ততটুকু জায়গার উপর ভিত্তি করে নতুন চেসিস ভারত থেকে আমদানি করা হলে এ সমস্যার সমাধান হবে। কাস্টমসের সামনে স্থাপিত যৌথ বাঁশকল সকাল ৭ টা থেকে রাত ১১ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে ও ভারতীয় ও বাংলাদেশী ট্রাক চালককরা মালামাল বোঝাইকৃত ট্রাক খালি না করা পর্যন্ত (বিশেষ কারণ ব্যতিত) অন্য কোথাও যেতে পারবে না। এসব সমস্যার সমাধান হলে বেনাপোলে অনেকটা যানজট মুক্ত হবে বলে সভায় সবাই একমত পোষন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here