বেনাপোলে আল আমিন নয়ন হত্যার দায় শিকার করেছে জহুরুল কামরুন্নাহার দম্পত্তি

0
128

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বেনাপোল বন্দরে এনজিও কর্মী হিসাবে কর্মরত আল- আমিন হত্যাকান্ডের দায় শিকার করেছে জহুরুল ইসলাম ও কামরুন্নাহার কটিলা নামে দম্পত্তি। গত ২৭ ডিসেম্বর রোববার গভীর রাতে বেনাপোল পোর্ট থানার দুর্গাপুর গ্রামে এ হত্যা কান্ডটি সংঘটিত  হয়। এরপর পরের দিন ২৮ ডিসেম্বর যশোর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল মোবাইল ফোন এর সুত্র ধরে হত্যাকারী সন্দেহে ওই দম্পত্তিকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ এর জন্য। জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যার দায় এবং কি ভাবে হত্যা করেছে তা শিকার করে পুলিশের কাছে এবং ওই গ্রামের প্রতিবেশীদের কাছে।
আল আমিন এর ফুফু হাওয়া বেগম জানান, গত ৩০ ডিসেম্বর রাত্রে পুলিশ জহুরুল ও তার স্ত্রী কটিলাকে ঘটনাস্থলে যশোর থেকে নিয়ে আসে। এবং কি ভাবে হত্যা করেছে তা গ্রামবাসিদের সামনে উপস্থাপন করতে বলে। এসময় কটিলা বলে আমি গভীর রাত্রে আল আমিন এর শয়ন কক্ষের জানালা দিয়ে তাকে ডেকে বের করি। এরপর পুর্বপরিকল্পিত তাদের ( স্বামী স্ত্রী) পরিকল্পনা অনুযায়ী একটি নির্মিত ভবনের পাশে নিয়ে যাই। এসময় দেয়ালে আল আমিনর এর পিট ঠেকিয়ে সামনে থেকে তাকে আদর করতে থাকি। আর পিছন থেকে তার স্বামী জহুরুল নির্মিত ভবনের দেয়ালে দাঁড়িয়ে অন্ধকারে গলায় রশি ঢুকিয়ে টান দেয়। আমি সামনে থেকে তার মুখে একটি কাপড় ঢুকিয়ে দেই যাতে সে চিৎকার করতে না পারে। এরপর তার মৃত্যু নিশ্চিত করে আমরা সেখান থেকে চলে যাই। তাকে কেন হত্যা করা হলো এমন প্রশ্নে কটিলা  বলে তাকে ধর্ষন করেছে তার অপরাধে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এলাকাবাসি জানায় কটিলা আল আমিন এর  সম্পর্কে চাচী। তাদের মধ্যে একটি ভালো সম্পর্ক ছিল। তবে তাদের দৈহিক সম্পর্ক ছিল কি না তা আমরা জানি না। আর কটিলা যে বলছে তাকে ধর্ষন করেছে এমন সংবাদও তারা কোন দিন শোনে নাই।
যশোর ডিবি পুলিশ এর ওসি বলেন, জহুরুল দম্পত্তি তাদের কাছে শিকারোক্তি মুলক জবানবন্দী দিয়েছে। তাকে কি ভাবে হত্যা করা হয়েছে তা ঘটনাস্থলে যেয়ে গ্রামবাসির সামনেও উপস্থাপন করেছে ওই দম্পত্তি। আসামিদের নিকট থেকে নমুনা রশি ,দুটি মোবাইল ফোন ও গলিত রশি সহ একটি কড়াই আলামত হিসাবে  জব্দ করা হয়েছে।