বেনাপোলে চেকপোষ্টে আর্মস পুলিশ কর্তৃক ভারতীয় পাসপোর্ট যাত্রীকে মারধরের অভিযোগ

0
73

বেনাপোল সংবাদদাতা : বেনাপোল আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনালে আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে নিয়োজিত আর্মস পুলিশ ( এপিবিএন) এর বিরুদ্ধে পাসপোর্ট যাত্রী হয়রানি, ভারতীয় পাসপোর্ট যাত্রীকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। এসব হয়রানি ও মারধরের মুল ভুমিকায় রয়েছে এপিবিএন পুলিশ এর ইন্সপেক্টর মনিরুজ্জামান। শুক্রবার সকাল ৯ টার সময় ভারতীয় পাসপোর্ট যাত্রী অরুন দাস স্থানীয় বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি ও চেকপোষ্ট কাস্টমস কর্মকর্তাদের কাছে তার মারধরের বর্ণনা দেন।

অরুন দাস ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনার ছয় ঘরিয়া গ্রামের হারু দাস এর ছেলে।

অরুন দাস বলেন, সে বেনাপোল কাস্টমস ইমিগ্রেশন এর আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে বেনাপোল আন্তর্জাতিক প্যাচেঞ্জার টার্মিনালের বাইরে আসে। এসময় তাকে এপিবিএন এর ইন্সপেক্টর ডেকে নিয়ে নানা বিষয় জিজ্ঞাসাবাদ করে বলে তোর কাছে ভারতীয় মদ আছে। সে জানায় তার কাছে কোন অবৈধ পণ্য নাই। প্রয়োজনে আপনি আমাকে চেক করে দেখতে পারেন। এ ভাবে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে এপিবিএন জাহিদ নামে এক পুলিশ সদস্য ইন্সপেক্টর মনিরুজ্জামানের মদদে মারধর করে।

পাসপোর্টযাত্রীদের গায়ে হাত এবং তাদের হয়রানি করার নিয়ম এ পিবিএন পুলিশ বা অন্য কোন সংস্থার আছে কি না জানতে চাইলে বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি এবং কাস্টমস সুপার বলেন না এমন কোন বিধি বিধান নাই যে পাসপোর্ট যাত্রীর গায়ে হাত দেওয়া যায়। তারা বলেন বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোষ্ট হওয়ায় এ পথে দেশী বিদেশী পর্যটক সহ অনেক ভিআইপি যাত্রী ভারতে যাতায়াত করে থাকে। কাজেই সরকারী সকল সংস্থার কর্মকর্তাদের সহনশীল হয়ে কাজ করতে হবে। কারন এটা রাষ্ট্রের প্রধান ফটক এবং ভারতে ঢোকার প্রধান প্রবেশদ্বার। এর সাথে জড়িয়ে আছে দেশের ভাবমুর্তি।

বিষয়টি এপিবিএন এর পুলিশ ইন্সপেক্টর মনিরুজ্জামন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমার সাথে উচ্চস্বরে কথা বলেছে তার জন্য আমার এপিবিএন পুলিশ সদস্য জাহিদ তাকে কয়েকটি চড় থাপ্পড় দিয়েছে। বিদেশী নাগরিক এবং বৈধ পাসপোর্টযাত্রীর গায়ে হাত দেওয়া যায় এরকম কোন ্আইন আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান। এছাড়া কাস্টমস ইমিগ্রেশন এর আনুষ্ঠানিকতার পর পাসপোার্ট যাত্রীদের আপনার জিজ্ঞাসাবাদ করার কোন নিয়ম আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন সন্দেহ হলে করতে পারেন।

এদিকে স্থানীয় একাধিক প্রত্যাক্ষদর্শীর অভিযোগ এপিবিএন পুলিশ সদস্যরা ইচ্ছামত খেয়াল খুশিমত পাসপোর্টযাত্রীদের গায়ে হাত তোলেন। এর আগেও এরকম অনেক ঘটনা ঘটেছে। আন্তর্জাতিক টার্মিনালে এর আগে আনছার সদস্যরা নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা অবস্থায় কোন বিশৃঙ্খলা হয়নি। এপিবিএন পুলিশ সদস্যরা কয়েক দফা বিগত দিনগুলিতে পাসপোার্টযাত্রীদের গায়ে হাত তুলার অভিযোগ রয়েছে।
বেনাপোল চেকপোষ্ট কাস্টমস সুত্র জানায় বন্ডেড এলাকার ৫ কিলোমিটর এর মধ্যে কোন বৈধ পাসপোর্টযাত্রীকে কোন সংস্থা হয়রানি করতে পারেন না।