বেনাপোলে নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডে ব্যবহার হচ্ছে ছদ্মবেশী প্রাইভেট

0
130

ভ্রাম‍্যমান প্রতিনিধিঃ যশোরের বেনাপোল সীমান্তে নানা ধরনের অপরাধ মূলক কর্মকান্ডে ব্যাবহৃত হচ্ছে ছন্মবেশী এক প্রাইভেটকার । সম্পূর্ন বে-আইনি ভাবে প্রাইভেটকারটিতে একাধিক রং ব্যাবহার করে বিভিন্ন এলাকার সড়কে দাপিয়ে বেড়ালেও অজানা রহস্যে প্রাইভেটকারটির ব্যাপারে কোন আইনি পদক্ষেপ গ্রহন করেন না যথাযথ কর্তৃপক্ষ।

গত শনিবার (০৬ ই জুন) বিকালে সিলভার রং ও হলুদ রং সন্মলিত ( হলুদ রঙের লম্বালম্বি স্টাইফ) প্রাইভেট কার যোগে প্রকাশ্য দিবালোকে বাহাদুরপুর ইউনিয়নের বাহাদুরপুর –লক্ষনপুর সড়ক হতে ফিল্ম স্টাইলে মাধ্যমিক পড়ুয়া স্কুল ছাত্রীকে অপহরন করা হয়েছে বলে অভিযোগ মিলেছে।

ঘটনার বর্ননায় অপহৃত স্কুল ছাত্রীর মামা জিয়াউর রহমান জানান, তার স্কুল পড়ুয়া ভাগনী(বয়স ১৪) কে অজ্ঞাতনামা যুবকেরা রাস্তার উপর হতে উঠিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে তিনি ঘটনা স্থলে পৌছান। পরবর্তীতে পথচারী মারফত তিনি গাড়ীর রং ও গাড়ীর নাম্বার জানতে পারেন যাহার নম্বর যশোর গ-১১-০০৬১ ( সিলভার ও হলুদ রং )। বিষয়টি জানিয়ে ইতিমধ্যেই তাহারা বেনাপোল পোর্টথানায় লিখিত অভিযোগ দ্বায়ের করেন বলে আরো জানান তিনি।

অভিযোগটির তদন্ত কর্মকর্তা বেনাপোল পোর্ট থানার এস আই রোকনুজ্জামান জানান,অপহৃত মেয়েটির পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে উদ্ধার তৎপরতা চলমান রয়েছে।বর্ননা অনুযায়ী গাড়িটি সনাক্ত হয়েছে, তবে সিলভার ও হলুদ রং এর প্রাইভেটকার সহ মালিক নিজেই পালিয়েছে। প্রকৃতপক্ষে গাড়িটি আটক বা ভিকটিম উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত কোন কিছুর জট খুলছে না বলে আরো জানান তিনি।

বেনাপোল সীমান্তের একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেন বিগত কয়েক মাস ধরে শার্শা ও বেনাপোল সীমান্তে মাদক বহন ও অপহরনের মত নানা অপরাধ মূলক কর্মকান্ডে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ছদ্মবেশী এই প্রাইভেট কারটি। গোপন সুত্রে জানা যায়,গাড়ীটির চালক শান্ত বাবু।

সীমান্ত জুড়ে এই অপরাধ মুলক কর্মকান্ড পরিচালনার নেপথ্যে রয়েছে ঢাকা, যশোর ও বেনাপোল ব্যাপী একটি শক্তিশালী চক্র। চক্রটির সাথে সম্পকৃত রয়েছে যশোরে কর্মরত এক এ এস আই বলে গুঞ্জন রয়েছে। তাই মহাসড়কে সম্পূর্ন বে আইনী ভাবে বিভিন্ন রং ব্যাবহার করে গাড়ী চালালেও জবাবদিহি করতে হয়না প্রশাসন কে।

একাধিক রং ব্যাবহার বিষয়ে জানতে চাইলে যশোর বিআরটি এর সহকারী ইন্সপেক্টর আব্দুল মতিন জানান,গাড়ীর কাগজপত্র বা ব্লু বুকে উল্লেখিত একক রং ব্যাতীত একাধিক রং ব্যাবহার সম্পূর্ন বে-আইনী এবং অপরাধ মূলক কর্মকান্ড, যা শাস্তিযোগ্য। এলাকার আইন-শৃক্ষলা রক্ষা ও অপরাধ দমনে দ্রুত ছদ্মবেশী চক্রটির হোতাদের মুখোস উন্মোচন করার দাবী এলাকাটির সুশীল সমাজের।