বেনাপোলে পরিবহন ধর্মঘট ৫ ঘন্টা পর প্রত্যাহার

0
261
অনলাইন ছবি।

আশানুর রহমান আশা-বেনাপোল: বেনাপোলে পরিবহন ধর্মঘট ৫ ঘন্টা পর প্রত্যাহার করে নিয়েছে পরিবহন শ্রমিক সংগঠনগুলো। প্রশাসন পরিবহন শ্রমিক সংগঠন ও মেয়র সমর্থিত আওয়ামীলীগের নেতাদের সাথে ফলপ্রশু আলোচনার পর বেলা সাড়ে ১১ টার সময় ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছে। ধর্মঘট প্রত্যাহার করায় স্বাভাবিক হয়েছে যান চলাচল। স্বস্তির নি:শ্বাস ফেলেছে সাধারন মানুষসহ পাসপোর্টযাত্রীরা।

বেনাপোলে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী হামলায় গ্রীনলাইন পরিবহনের কাউন্টার ভাংচুর ও ৪ জন পরিবহন শ্রমিককে পিটিয়ে আহত করার ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার সকাল থেকে অনির্দিস্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয় পরিবহন শ্রমিক সংগঠনগুলো। সকালের দিকে বেনাপোলের প্রধান সড়কের ওপর পরিবহন বেরিকেট দিয়ে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ করে বিক্ষোভ মিছিল করে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা। আভ্যন্তরীন ও দুরপাল্লার মধ্যে সকল যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে শতশত পাসপোর্ট যাত্রী আটকা পড়ে বেনাপোল চেকপোস্টে।

বেনাপোল সোহাগ পরিবহনের ম্যানেজার শহিদুল ইসলাম জানান, সকাল ১১টার দিকে বেনাপোলের সকল পরিবহনের ম্যানেজার, পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন, মেয়র সমর্থিত আওয়ামীলীগের নেতারা ও পোর্ট থানার কর্মকর্তারা এক বৈঠকে বসেন। সেখানে দীর্ঘ আলোচনার পর ঘটনার সাথে জড়িতরা মুচলেকা দিয়ে এ ঘটনার জন্য দু:খ প্রকাশ ও ভবিষ্যতে এ রকম কোন ঘটনা ঘটাবে না সিদ্ধান্ত হলে বেলা সাড়ে ১১ টায় ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয় শ্রমিক সংগঠনগুলো।

বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি (তদন্ত) শামিম আহম্মেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, উভয় পক্ষের সাথে ফলপ্রশু আলোচনার পর বিষয়টি সুরাহা করা হয়েছে। পরিবহন শ্রমিকদের দাবি মেনে নেওয়ায় তারা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছে। বেনাপোলে সকল যান চলাচল স্বাভাবিক করা হয়েছে।

বেনাপোল গ্রীনলাইন পরিবহনের ম্যানেজার রবীন বলেন, শুক্রবার বিকেলে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনকে সফল করার লক্ষ্যে বেনাপোল পৌর ছাত্রলীগের মেয়র সমর্থিত নেতাকর্মীরা বেনাপোল বন্দরে মিছিল বের করে। মিছিলটি যখন বেনাপোল পরিবহন স্ট্যান্ডে আসে, সে সময় গ্রীনলাইন পরিবহনের একটি বাসের বক্সে যাত্রীদের ল্যাগেজ ওঠাচ্ছিলেন মোহন (৩৫) নামে একজন শ্রমিক। এসময় ছাত্রলীগ কর্মীদের সঙ্গে তার সামান্য কথাকাটির এক পর্যায়ে ছাত্রলীগ কর্মীরা উত্তেজিত হয়ে মোহনকে বেধড়ক মারপিট করে। তাকে ঠেকাতে এগিয়ে এসে ওই বাসের চালক জামাল, সুপারভাইজার আলাল ও হেলপার লিয়াকত ও ছাত্রলীগ কর্মীদের মারপিটের শিকার হন। পরে ছাত্রলীগ কর্মীরা বিজিবি ক্যাস্পের সামনে গ্রীনলাইন পরিবহন কাউন্টার ভাংচুর করে। এ ঘটনার প্রতিবাদে ও জড়িতদের আটকের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয় বেনাপোলের পরিবহন শ্রমিকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here