বেনাপোলে মন্দির রক্ষা কমিটির প্রতিবাদের মুখেই প্রতিমন্ত্রীর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

0
416

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ যশোরের এতিহ্যবাহী বেনাপোল পাটবাড়ী আশ্রমের ৫ শত বছরের বেশী সময়ের স্থাপনা নিতাই গৌর সেবা কুঞ্জ অপসারণের তীব্র প্রতিবাদের মুখেই নতুন মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী শ্রী স্বপন ভট্টাচার্য ও ৮৫, যশোর-১ শার্শা আসনের সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিনএমপি । শুক্রবার ( ১৯ই মার্চ) সকাল ১১টায় গীতা পাঠ ও ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান ও অতিথিদের উত্তরীয় পরিয়ে বরনের মধ্যে দিয়ে নাট মন্দির কমপ্লেক্স এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন,সন্মননা প্রদান ও সুধি সমাবেশ শুরু হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী শ্রী স্বপন ভট্টাচার্য।

পাটবাড়ী আশ্রমের সভাপতি শ্রী তাপস কুমার বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, ৮৫ যশোর-১ শার্শা আসনের এম পি শেখ আফিল উদ্দিন,শার্শা উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক মঞ্জু, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট শ্রী শ্যামল সরকার(ঢাকা), শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মীর আলিফ রেজা, মোঃ ইব্রাহীম খলিল যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগ,নাভারন সার্কেলের সিনিয়ার সহকারী পুলিশ সুপার জনাব জুয়েল ইমরান

মন্দির রক্ষা কমিটিরি আহবায়ক শ্রী শান্তি পদ বিশ্বাস জানান,৮৫৭ সনে স্থাপিত ও ৫৭০ বছরের পুরাতন ঐতিহ্যবাহী শ্রী শ্রী নিতাই গৌর সেবাকুঞ্জ মন্দিরটি না ভেঙ্গে পুনঃসংস্কারের দাবী জানিয়েছেন অনেক প্রবীন স্থানীয় বিবেকবান হিন্দুরা। তাদের দাবী পুরাতন স্থাপনা ভাঙ্গলে হারিয়ে যাবে ৫৭০ বছরের পুরাতন নিদর্শন, তেমনি হারিয়ে যাবে ভক্তের ভক্তি শ্রদ্ধা। বিষয়টির সাথে ধর্মীয় আবেগ জড়িত থাকায় গত ১৪/০১/২১ ইং তারিখে শত বর্ষীয় প্রাচীন মন্দিরটি রক্ষা করতে যশোর জেলা প্রশাসক,শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ গুরুত্বপূর্ন জায়গায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

নিতাই গৌর সেবাকুঞ্জ মন্দির ভাঙ্গার বিষয়টি নিয়ে বেনাপোল পাঠবাড়ি মন্দির কমিটির সাধারন সম্পাদক সাংবাদিকদের জানান, পুরাতন মন্দির ভেঙ্গে নতুন মন্দির নির্মানের জন্য ৫ কোটি টাকার বাজেট ধরা হয়েছে, তাই মন্দির ভেঙ্গে নতুন করা হবে।

কমিটির সদস্য সচিব অশোক কুমার দে জানান,আমরা মন্দির না ভেঙ্গে সংস্কার চেয়ে বিভিন্ন মহলে আপত্তি জানিয়েছি, অধ্যবধী মন্দিরের পরিচালনা পরিষদ আমাদের দাবি নিয়ে কোন আলোচনা করেননি। সর্বশেষ আজ প্রতিমন্ত্রীর সামনে আমরা ব্যানার ধরে দাড়িয়ে আপত্তি জানিয়েছি।মন্দিরের বর্তমান পরিচালনা পরিষদ মন্ত্রী মহোদয় সহ আমন্ত্রিত অতিথিদের সহিত আমাদের উল্লেখ্য বিষয়ে মত বিনিময়ের সুযোগ তৈরী না করে দিয়ে একতরফা ভাবে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করিয়েছে।

এ ঘটনায় এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে মতানৈক্য সৃষ্টি হয়ে বিভাজন তৈরী হবে। উল্লেখ্য প্রত্নতত্ব আইন ২০১৫ এর মতে ১০০ বছরের অধিক কোন পুরাতন নিদর্শনা ভাঙ্গতে হলে প্রত্নতত্ব মন্ত্রানালয়ের অনুমোদন নিতে হবে ।