বেনাপোলে মিথ্যা ঘোষনার ২ কোটি টাকা মূল্যের ক্যাপিটাল মেশিনারিজ’র একটি চালান আটক করেছে শুল্ক গোয়েন্দা

0
307

আশানুর রহমান আশা-বেনাপোল: বেনাপোল বন্দরে মিথ্যা ঘোষনা দিয়ে ভারত থেকে আমদানি করা ২ কোটি টাকা মূল্যের ক্যাপিটাল মেশিনারিজের একটি চালান আটক করেছে শুল্ক গোয়েন্দা সদস্যরা।

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বন্দরের ওপেন ইয়ার্ড থেকে খালাশের সময় গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পন্য চালানটি আটক করা হয়।
বেনাপোল শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের পরিচালক ডেপুটি কমিশনার সাদেক হোসেন জানান, মিথ্যা ঘোষণায় বেনাপোল বন্দর দিযে আমদানি করা ক্যাপিটাল মেশিনারিজের একটি চালান খালাস নেয়া হবে। চালানটির পণ্য মিথ্যা ঘোষণায় ওজন ও এইচ এস কোডের ব্যাপক গরমিল রযেছে। সে অনুযাযী, শুল্ক গোয়েন্দা বন্দরে নজরদারি বৃদ্ধি করে। এক পর্যাযে, বন্দরের ওপেন ইয়ার্ডে থাকা ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইলেকট্রিক ফার্নেস ঘোষণায় আনা ক্যাপিটাল মেশিনারিজের পণ্য চালানটি খালাশের সময় আটক করে পুন: পরীক্ষা করে ব্যাপক গড়মিল পাওয়া যায়। পণ্যচালানটির মেনিফেস্ট নম্বর- ৩৩৬৭৭/১১, তারিখ ১৩-০৭-১৭, বিল অব এন্ট্রি নম্বর-৪১১৭৬, তারিখ ১৭-০৭-১৭। পন্য চালানটির ঢাকার আমদানিকারক মোহাম্মদী স্টিল ওয়ার্কস, নারায়ণগঞ্জ এবং এর সিএন্ডএফ এজেন্ট গণি এন্ড সন্স, বেনাপোল।
কাস্টম হাউস বেনাপোল কর্তৃক আমদানিকারকের ঘোষণা অনুযায়ী পরীক্ষণ ও শুল্কায়ন কার্যক্রম সম্পন্ন করে খালাসের আদেশ দেয়া হয় কিন্তু শুল্ক গোয়েন্দার হস্তক্ষেপে চালানটির খালাস কার্যক্রম বন্ধ করা হয়। পরে শুল্ক গোয়েন্দা ও কাস্টম হাউসের প্রতিনিধির উপস্থিতিতে পুনরায় চালানটির কায়িক পরীক্ষা করে আমদানিকারকের ঘোষণা অনুযায়ী ২০০ কেজি ট্রান্সফরমার অয়েল এর স্থলে ৮৩৬ আনা হয় কেজি।

বেশী আনা হয়েছে ৬৩৬ কেজি। এবং ৫০ কেজি লুব্রিকেন্ট এর স্থলে ২৫ হাজার ২০ কেজি গ্রিজ পাওয়া যায। আটককৃত পণ্যের মূল্য প্রায় ২ কোটি টাকা এবং শুল্ক ফাঁকির পরিমান ৭০ লাখ টাকা। পন্য চালানটি মাত্র ১২ লক্ষ টাকা শুল্ক পরিশোধ করে বন্দর থেকে গোপনে খালাশ নিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু শুল্ক গোয়েন্দার হস্তক্ষেপের কারণে বড় ধরনের রাজস্ব ফাঁকির ঘটনা ধরা পড়েছে। কিভাবে বন্দর থেকে খালাশ নেয়া হচ্ছিল ও কোন কোন কাস্টমসের আরও এবং এআরও পরীক্ষন কর্মকর্তারা পান্য চালনাটি পরীক্ষা করে মিথ্যা প্রতিবেদন দাখিল করে শুল্ক ফাঁকিতে সহায়তা প্রদান করেছিল তা তদন্ত করতে শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তারা তদন্ত শুরু করেছেন।
বেনাপোল কাস্টমস এর কমিশনার শওকাত হোসেন জানান, পন্যচালানটি শুল্ক ফাঁকি দিয়ে খালাশ কাজে যে সব কর্মকর্তারা সহায়তা করেছিল তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফ এজেন্ট গনি এন্ড সন্স এর লাইসেন্স বাতিল করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সিএন্ডএফ এজন্ট গনি এন্ড সন্স’র বিরুদ্ধে রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে একাধিকবার লাইসেন্স সাময়িক বাতিল করা হয়েছিল, এই বার যে গুরুতর অপরাধ করেছে তা স্থায়ীভাবে লাইসেন্স বাতিল করার জন্য বলা হয়েছে বলে জানান কমিশনার ।
শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতর দি কাস্টমস এ্যাক্ট ১৯৬৯ অনুযায়ী একটি মামলা দাযের করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here