বেনাপোলে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পণ্য আমদানি বেড়েছে

0
71

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত কয়েক বছর ধরে মিথ্যা ঘোষণায় শুল্ক ফাঁকি দিয়ে পণ্য আমদানির প্রবণতা বেড়েছে বেনাপোল স্থলবন্দরে। এতে কমেছে রাজস্ব আদায়।

স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের হিসেব মতে, ২০১৭-১৮ থেকে ২০১৯-২০ অর্থ বছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪ হাজার ৭০১ কোটি টাকা রাজস্ব কম আয় হয়েছে। অন্যদিকে, হিলি স্থলবন্দরে দিয়ে ভারত থেকে পণ্য আমদানি-রপ্তানি চলছে পুরোদমে। বেড়েছে রাজস্ব আদায়ও।

মোংলা

স্বাস্থ্যবিধি মেনে মোংলা বন্দরে চলছে কন্টেইনার ওঠানামা। ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাই থেকে এখন পর্যন্ত আমদানি -রপ্তানির কাজে ৬৯টি জাহাজ এই বন্দরে ভিড়েছে। এছাড়া আরও এক হাজার জাহাজ চলাচল করতে পারে বলে আশা করছেন বন্দর কর্তৃপক্ষ।


হিলি

হিলি স্থলবন্দরে পুরোদমে চলছে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম। প্রতিদিন এই বন্দর দিয়ে প্রায় ২শ পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল করছে। হিলি কাস্টমস বলছে, গেলো ৭ কর্মদিবসে ভারত থেকে ৩৪ হাজার ৫শ মেট্রিক টন বিভিন্ন পণ্য আমদানি হয়েছে। যা থেকে সরকার রাজস্ব পেয়েছে ৮ কোটি ২৮ লক্ষ ৭৩ হাজার ৪শ ৫২ টাকা।

বেনাপোল

তবে ভিন্ন চিত্র বেনাপোল স্থলবন্দরে। প্রয়োজনীয় অবকাঠামো উন্নয়ন না হওয়ায় ব্যাহত হচ্ছে বাণিজ্যিক কার্যক্রম। পর্যাপ্ত জায়গার অভাব, আমদানি পণ্য খালাসের জন্য দিনের পর দিন অপেক্ষাসহ রয়েছে নানা অব্যবস্থানার অভিযোগ। এছাড়া পণ্য পাচার বন্ধে ব্যবসায়ীরা সিসি ক্যামেরা স্থাপনের দাবি জানিয়ে আসলেও তা কার্যকর হয়নি।

ব্যবসায়ীরা জানান, পণ্য পাচার বন্ধে সিসি ক্যামেরা লাগানোর দাবি জানিয়েছিলাম। সেটা এখনও কার্যকর হয়নি।

এসব অভিযোগের জন্য এ স্থলবন্দরে গত তিন অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪ হাজার ৭০১টি টাকা রাজস্ব কম আয় হয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে বেনাপোল বন্দরে আমদানি পণ্য থেকে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ হাজার ২৪৪ কোটি টাকা।