বেনাপোলে স্বর্ণ উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে ফেনসিডিল দিয়ে মামলা দেওয়ার অভিযোগ

0
101

বেনাপোল সংবাদদাতা : বেনাপোলে স্বর্ণ উদ্ধার অভিযানে ব্যর্থ হয়ে আলমগীর হোসেন (৩২) নামে এক যুবককে ২শ’ বোতল ফেনসিডিল এবং ব্যবসার ১৪ লাখ টাকা বাড়ি থাকায় মামলা দিয়ে থানায় হস্থান্তর করেছে যশোর ৪৯ বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এমনটি অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগি পরিবার। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টা থেকে বেনাপোল পোর্ট থানার বেনাপোল গ্রামে রাত ৯ টা পর্যন্ত আলমগীর হোসেনের বাড়িতে অভিযান চালানোর সময় স্থানীয় সাংবাদিক সহ স্থানীয় কিছু লোক এর উপস্থিতীতে অভিযান পরিচালনা করে টাকা সহ আলমগীরকে নিয়ে যায়।

আলমগীর হোসেন বেনাপোল পোর্ট থানার পুটখালী গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে।

আলমগীর হোসেনের স্ত্রী শারমিন আক্তার বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যার সময় একদল বিজিবি সদস্য তাদের বাড়িতে প্রবেশ করে। এরপর বাড়ির আসবাপত্র ভাংচুর অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং মারধর করতে থাকে আমাকে এবং আমার স্বামীকে। তারা বলে তোদের বাড়িতে ১০ কেজি স্বর্ণ আছে বের কর। আমরা বার বার বলি আমাদের বাড়িতে স্বর্ণ নেই। তারপরও তারা আমাদের সাথে অসৌজন্যমুলক আচারন করে এবং বাড়িতে থাকা বাজারের ব্যবসার ১৬ লাখ টাকা সহ আমার স্বামীকে নিয়ে যায়। এছাড়া তারা চলে যাওয়ার পর আমার ব্যবহৃত গলার স্বর্নের সাড়ে তিন ভরি ওজনের চেইন, একটি স্বর্নের নুপুর চার জোড়া কানের দুল নিয়ে যায়। সকালে আমরা জানতে পারি আমার স্বামীকে ব্যবসার ওই টাকার সাথে ২০০ বোতল ফেনসিডিল দিয়ে থানায় মামলা দিয়েছে বিজিবি। একথা শুনার পর উপস্থিত স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করে। তারা বলে রাত ৯ টার সময় যখন বিজিবি চলে যায় তখন কোন ফেনসিডিল উদ্ধার দেখা যায়নি।

স্থানীয় ইমরান খান এর স্ত্রী মমতাজ বেগম জানান, বিজিবি যখন আলমগীর এর বাড়ি তল্লাশি করে তখন থেকে সে তাদের বাড়িতে উপস্থিত ছিল। বিজিবির সদস্যরা তাদের সাথে খারাপ আচারন মারধর সহ বাড়িতে থাকা ব্যবসার টাকা নিয়ে চলে যায়। এসময় কোন মাদক দ্রব্য বা ফেনসিডিল পাওয়া যায়নি। আলমগীর এর কলেজ পড়ুয়া ভাতিজা তাজিম আহম্মেদ বলেন, আমাদের বিজিবি সদস্যরা লোহার রড দিয়ে বেদম ভাবে প্রহার করে বলে, স্বর্ণ কোথায় রেখেছিস বল। এভাবে প্রায় তিন ঘন্টা খারাপ আচারন করে এবং বাড়ির সকল আসবাবপত্র তল্লাশি ও ভাংচুর করে।

স্থানীয় যুবক মাসুদ হোসেন বলেন, বিজিবি যে ভাবে হয়রানি করেছে এটা রিতিমত অন্যায়। আমি অভিযানের সময় ওই বাড়িতে ছিলাম বাড়িতে কোন ফেনসিডিল পাওয়া যায়নি। সকাল বেলায় শুনা যায় তাকে ২০০ বোতল ফেনসিডিল দিয়ে মামলা দেয়া হয়েছে।

রাত সাড়ে ৭ টার সময় সরেজমিনে বেনাপোল গ্রামের আলমগীর হোসেনের বাড়িতে যেয়ে দেখা যায় সেখানে বিজিবি সদস্যরা অভিযান চালাচ্ছে স্বর্ণ উদ্ধারের জন্য। কিন্তু কোন স্বর্ণ বা ফেনসিডিল উদ্ধার হতে দেখা যায়নি। সেখানে উদ্ধারকৃত ১৪ লাখ টাকা এবং কিছু মোবাইল সিম ও ব্যাংকের চেক বই দেখতে পাওযা যায়।

এসময় যশোর ৪৯ বিজিবি অধিনায়ক সাহেদ মিনহাজ সিদ্দিকি বলেন, আমাদের কাছে তথ্য ছিল এই বাড়িতে প্রায় ১০ কেজির মত স্বর্ণ ছিল। আমরা বাড়ি তল্লাশি করে স্বর্ণ পায়নি। তবে ১৪ লাখ টাকা ও মোবাইল সিম পেয়েছি ২৮ টি। এরপর তিনি অভিযান বন্ধ করে টাকা এবং আলমগীরকে থানায় নেওয়ার জন্য দির্দেশ দেয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সাংবাদিক বকুল মাহবুব, আশানুর রহমান আশা, মিলন হোসেন, সেলিম রেজা, আনিছুর রহমান,নাসির উদ্দিন, আব্দুর রহিম এবং স্থানীয় মাসুদুর রহমান সহ অনেকে।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি কামাল হোসেন ভুইয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন আসামি আলমগীর হোসেনকে যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।