বেনাপোল ইমিগ্রেশনে ডিজিটাল থার্মাল স্ক্যানার স্থাপন

0
113

আশানুর রহমান আশাা বেনাপোল  : বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন ও রেলওয়ে ইমিগ্রেশনে পাসপোর্টধারী যাত্রী প্রবেশের গেটে দুটি ডিজিটাল থার্মাল স্ক্যানার মেশিন স্থাপন করা হয়েছে।

আধুনিক এ থার্মাল স্ক্যানার যাত্রীর শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয়ের পাশাপাশি শরীরে ধাতব জাতীয় পদার্থ থাকলেও সনাক্ত করবে।

মঙ্গলবার সকালে নতুন এই ডিজিটাল থার্মাল স্ক্যানারে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে যাতায়াতকারী পাসপোর্টধারী যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। রেল পথে পাসপোর্টধারীযাত্রী যাতায়াত বন্ধ থাকায় সেখানকার কার্যক্রম আপাতত বন্ধ রয়েছে।

শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ইউছুফ আলী জানান, দেশে দ্বিতীয় ধাপে করোনা সংক্রমণ রোধে বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন ও রেলওয়ে ইমিগ্রেশনে দুটি ডিজিটাল থার্মাল স্ক্যানার স্থাপন করা হয়েছে। ইমিগ্রেশন দুটিতে আগের থার্মাল স্ক্যানারে চাইতে বর্তমানে স্থাপিত স্ক্যানার মেশিনটি অনেক আধুনিক এবং অধিক ক্ষমতা সম্পন্ন। আধুনিক এই থার্মাল স্ক্যানার মেশিনটি যাত্রীদের শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয়ের পাশাপাশি কারো শরীরে ধাতব জাতীয় পদার্থ থাকলে তাও সনাক্ত করতে পারবে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আহসান হাবিব জানান, আগে কেবল বাংলাদেশিদের ভারত প্রবেশের সময় ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করোনা নেগেটিভ সনদ লাগছিল। নতুন নির্দেশনায় ভারত ফেরাত বাংলাদেশিদের নতুন করে করোনা নেগেটিভ সনদ লাগছে। বিদেশি যাত্রীদের জন্যও একই নিয়ম প্রযোজ্য। যাত্রীরা যাতে নিয়ম অনুসরণ করে যাতায়াত করে সে বিষয়ে স্বাস্থ্য কর্মীদের সব ধরনের সহযোগিতা করছে ইমিগ্রেশন।

জানা যায়,করোনার কারণে গত ১৩ মার্চ থেকে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী যাত্রীদের ভারত প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। এছাড়া একই নিষেধাজ্ঞায় ভারতীয়দের বাংলাদেশ প্রবেশ ও বাংলাদেশে অবস্থানরত ভারতীয়দের দেশে ফেরার পথ বন্ধ হয়ে যায়।

পরবর্তীতে করোনার প্রকোপ কিছুটা কমে আসলে তিনটি শর্ত দিয়ে বিজনেস ও মেডিকেল ভিসায় ভারত সরকার বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমণ ও ভারতীয়দের বাংলাদেশে আসার সুযোগ সৃষ্টি হয়। তবে শীতের প্রকোপ বাড়ায় আবার ও করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করায় প্রতিরোধে সতর্কতা ব্যবস্থা নেয় স্বাস্থ্য বিভাগ।

স্বাভাবিক সময়ে প্রতিদিন এ পথে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে প্রায় ৬ থেকে ৮ হাজার যাত্রী যাতায়াত করতো। বর্তমানে করোনা সংক্রমণের মধ্যে মেডিকেল ও বিজনেস ভিসায় প্রতিদিন ৮ শ থেকে এক হাজার যাত্রী যাতায়াত করছে।