বেনাপোল পোর্ট থানার এক এসআই ক্ষমতার অপব্যবহার করে ব্যবসায়ীদের জিম্মি করছে

0
848

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক আলমগীর থানার বড় কর্তা পরিচয় দিয়ে বেনাপোল বাজারে ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদাবাজী করছে বলে খবর পাওয়া গেছে। চাঁদাবাজির পাশাপাশি তিনিা মিথ্যা মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে গণহারে গ্রেফতার বাণিজ্য করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
স্থানীয় বাজারের দোকানদাররা জানান, ৮/৯ মাস আগে খুলনার সোনাডাঙ্গা থেকে বদলী হয়ে যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার যোগদান করেন উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলমগীর । বেনাপোলে যোগদান করেই তিনি সেকেন্ড অফিসারের দায়িত্ব পান। তিনি বেনাপোলের পুকুরপাড়া এলাকার মসজিদের পাশে চতুর্থতলায় পরিবারসহ ভাড়া থাকতে শুরু করেন। প্রতিদিন বাজারে গেলে নিত্যপ্রয়োজনীয় বাজারসহ আসবাবপত্র, কসমেটিকস, কাপড় চোপড়, মাছ, মাংস দোকানে মালামাল ক্রয় করে তিনি কোন দোকানদারকে টাকা পরিশোধ না করে হুমকি ধামকি দিয়ে অর্ধেক টাকা দেন। দোকানদাররা বেশি বাড়াবাড়ি করলে তিনি জঙ্গি কানেকশন’র মামলা ভয় দেখান। তিনি বাজারে বাজার করলেও দোকান্দারকে ঠিক মত টাকা দেন না। বড় বড় দোকানদারকে থানা থেকে টাকা নিয়ে আসার হুমকিও দেন। আর থানায় আসলে তিনি কোন রকম টাকা দিয়ে তাড়িয়ে দেন। মামলা বা গ্রেফতারের ভয়ে দোকান্দাররা কিছুই বলতে পারছেন না। গত সাত দিন যাবত তিনি বেনাপোল বাজারে যে সব দোকান গুলিতে বাজার করেছেন সে সব দোকানগুলোতে গোপনে তদন্ত করলে সত্যতা বেরিয়ে আসবে বলে তারা দাবি করেছেন।
ব্যবসায়ীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, জঙ্গি, মাদক ব্যবসার সহযোগিতার অজুহাত তুলে তিনি বড় বড় ব্যবসায়ীদের ছেলে-কর্মচারীদের আটক করছেন। পরে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদেরকে ছেড়ে দিচ্ছেন। তার এ গ্রেফতার বাণিজ্যের বিরুদ্ধে নতুন ঝামেলার ভয়ে কেউ মুখ খুলতে পারছে না।ফলে নিরবে সহ্য করতে হচ্ছে। থানার সিনিয়র উপ-পরিদর্শক (সিনিয়র অফিসার) পরিচয় দিয়ে মাদক ব্যবসায়ী, ধুড় পাচারকারী, চোরাকারবারী, পাচার সিন্ডিকেটসহ বিভিন্ন স্থান থেকে তিনি মাসোহারা আদায় করছেন। পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তা তাকে কিছুই করতে পারবে না বলে এসময় সিন্ডিকেটের প্রধানকে হুমকি দিয়ে তাদেরকে মাসোহারা দিতে বাধ্য করছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন পুলিশ সদস্য আলমগীরের ব্যাপারে অভিযোগ করেন, বাজারে খোঁজ নেন, সঠিক জানতে পারবেন। গত তিনদিন ধরে সেকেন্ড অফিসার আলমগীর হোসেন যেসব দোকান থেকে মাল ক্রয় করেছেন সে সব দোকান্দারগন ভয়ে মুখ খোলেননি। তবে, তারা ব্যবসা বন্ধ করার হুমকি দিয়ে বলেছেন, এভাবে ব্যবসা করা যায় না। এ ব্যাপারে এসআই আলমগীরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগগুলো সঠিক নয় বলে দাবি করে বলেছেন, ব্যবসায়ীরা যা করেন তা সেকেন্ড অফিসার হিসেবে মূল্যায়ন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here