বেনাপোল পোর্ট থানার বহুলালোচিত এসআই নূরে আলম ক্লোজড

0
426

এম আর রকি, যশোর : দেশের রাজস্ব আদায়ের অন্যতম স্থল বন্দর বেনাপোল পোর্ট  থানার বহুলালোচিত এসআই নুর আলমকে গুরুতর অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে। নিয়ম নীতি মেনেই প্রায় ৪ বছর ধরে গোটা পোর্ট থানা এলাকায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। বেনাপোল এলাকায় দীর্ঘ কয়েক বছর যাবত তার সব অপকর্মের চিত্র সংশ্লিষ্ট কর্মপক্ষ জানলেও অজ্ঞাত কারনে তাকে পোর্ট থানা থেকে সরাতে পারেনি।

এবার ভারতীয় নাগরিককে জিম্মি করে অর্থ আদায়ের অভিযোগে গত বুধবার রাতে যশোর পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে। বিষয়টি শুক্রবার দুপুরে প্রকাশ পায়। তার বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন পাঁচ ভারতীয় পাসপোর্টযাত্রী। নুর আলমকে ক্লোজড করার পর বেনাপোল এলাকার বিভিন্ন ব্যবসায়ী থেকে সর্ব শ্রেনীর মানুষ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছে। অনেকে বলেছেন, বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অপূর্ব হাসানের বিশ্বস্ত এক পুলিশ কর্তা ছিলেন এই নুরে আলম। যার কারনে কেউ নূরে আলমের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে কোন ফল পাননি।

বেনাপোলের নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানাগেছে, সম্প্রতি এসআই নুরে আলম কলকাতার বাসিন্দা নারায়ন বিশ্বাস (পাসপোর্ট নং-জেড-৪০৩৫১৬৪) ও তার স্ত্রী শেফালি বিশ্বাস (পাসপোর্ট নং-জেড-৩৯৯০৭৯৩), বাসুদেব ঘোষ (পাসপোর্ট নং পি-৫১০৪৫০৭) এবং তরুন রায় (পাসপোর্ট নং জেড-৪০৩৫৭০৩) কে বেনাপোল বাসস্ট্যান্ড থেকে আটক করে। পরে তাদেরকে ইয়াবা দিয়ে চালান দেওয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে দুই লাখ এবং বুধবার কোলকাতার রফতানিকারক আলী হোসেন কবিরকে (পাসপোর্ট নং জেড-৪০৩৭৮৪২) বেনাপোল বাসস্ট্যান্ড থেকে আটক করে।

তাকেও পোর্ট থানায় নিয়ে ইয়াবা দিয়ে চালানের ভয় দেখিয়ে ৬০ হাজার টাকা আদায় করেন। বুধবার তাদেরকে মাদক মামলার চালানের ভয় দেখিয়ে ২ লাখ টাকা ৬০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন। এসআই নুর আলমের এর হাত থেকে মুক্তি পেয়ে তারা সবাই যশোরে এসে এক আত্মীয়ের কাছে আশ্রয় নেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে এই পাঁচ জনের পক্ষ থেকে আলী হোসেন কবির পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। তারপর পুলিশের পক্ষ থেকে তদন্ত করে সত্যতা পাওয়ার পর ওই রাতেই তাকে পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়।

ভারতীয় নাগরিক আলী হোসেন কবির জানান, পুলিশ সুপার অফিসের রিসিভ করা অভিযোগ পত্র নিয়ে আমরা বিষয়টি ঢাকায় ভারতীয় দুতাবাসে জানাবেন। বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এসআই নুর আলম ক্লোজড বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ আবু সরোয়ারও ভারতীয় নাগরিকদের অভিযোগের বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। এছাড়াও বেনাপোল চেকপোষ্টর এলাকার,তরিকুল,রনজন,মামুন,মুনতাজ,আশারাফ আলী, সিরাজ, কাদির, রাজ্জাক,আকতার,ছালাম,হাফিজুর,মফিজুর,সাতক্ষিরা ঘোষ ডেইরী,আলী হোসেন সহ প্রায় ২৮ জনের কাছ থেকে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ২০লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ধুড় ইয়াবা ও ফেনসিডিল দিয়ে চালান করে দেওয়ার নামে একাধিক ব্যাক্তি ও প্রতিষ্টানের কাছ থেকে জোর পূর্বক অর্থ আদায় করার বহুবিধ অভিযোগ উঠে নুরে আলমের বিরুদ্ধে। এসআই নূর আলমের ক্লোজড এর খবরে গোটা বেনাপোল এলাকার মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক ব্যাবস্থা গ্রহনের দাবী জানান ভুক্তভোগীরা।

বেনাপোলের সূত্রগুলো আরো জানিয়েছেন, এসআই নূরে আলম সীমান্তবর্তী বেনাপোল পোর্ট থানার অন্তর্গত বড় আচড়া গ্রামে বে নামে বিশাল একটি অট্টালিকা বাড়ি গড়ে তুলেছেন।  উক্ত এসআইয়ের অত্যাচারে ওই এলাকার সকলের সাথে নির্বাক পৌর প্রশাসন সহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ। এসআই নূরে আলমের ন্যায়  বেনাপোল পোর্ট থানা কর্মরত কতিপয় অসাধু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনৈতিকতার অভিযোগ উঠছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here