বেনাপোল বন্দরে ৬টি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ড লাইসেন্স বাতিল

0
278

আশানুর রহমান আশা,বেনাপোল: দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ৬টি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ড লাইসেন্স সাময়িকভাবে বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

বুধবার (১২ জুলাই) সন্ধ্যায় বেনাপোল কাস্টমস লাইসেন্স কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বাতিল হওয়া লাইসেন্স গুলো হচ্ছে, মোহাম্মদ গোলাম হায়দারের সত্ত্বাধিকারী মেসার্স রহমান অ্যান্ড সন্স, আব্দুস সামাদের মেসার্স আজিম এন্টারপ্রাইজ, হাদিউজ্জামানের মেসার্স রিমু এন্টারপ্রাইজ, জি এম মোস্তাফিজুর রহমানের মেসার্স নিয়ন এন্টারপ্রাইজ, ফারুক হোসেন উজ্জ্বলের এনেক্স ইন্টারন্যাশনাল ও শরিফুল ইসলামের মেসার্স রাফিন এন্টারপ্রাইজ। কাস্টমস সূত্রে জানা যায়, ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে লাইসেন্স কর্তৃপক্ষের দেওয়া শর্ত ভঙ্গ, রাজস্ব ফাঁকিসহ বিভিন্ন অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ছাড়া প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা মেলায় তাদের বিরুদ্ধে এ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এদিকে স্থানীয় সাধারণ ব্যবসায়ী জানান, কাস্টমস ও বন্দরে এক শ্রেণির দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ী হাত মিলিয়ে এ দুর্নীতি করছে। তাদের কালো থাবায় প্রতি বছর শত শত কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার। এতে আমদানি বাড়লেও বেনাপোল বন্দরে রাজস্ব আয় বাড়ছে না। এসময় তারা আরও জানান, গত এক বছরে বেনাপোল স্থলবন্দরে শুল্ক ফাঁকির অভিযোগে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে দুই শতাধিক পণ্য চালান আটক হয়। কিন্তু আটকের পর এসব চালানের অধিকাংশই কাস্টমস কর্মকর্তারা গোপন সমঝোতায় প্রভাবশালীদের হুমকি-ধমকিতে ছেড়ে দিয়েছেন। সম্প্রতি বেনাপোল বন্দরে সবচেয়ে বড় শুল্কফাঁকির ঘটনা ঘটে মার্বেল পাথর আমদানিতে। যার সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ছিল মেসার্স বেঙ্গল এজেন্সি আর আমদানিকারক যশোরের হোটেল জাবের প্যারাডাইস লিমিটেড। এখানে ১২০ টন মার্বেল পাথর আমদানিতে ৬৪ লাখ টাকা শুল্ক ফাঁকি দেওয়া হয় বলে জানা গেছে। কাস্টমস সুত্রে আরও জানা গেছে, গত ৪ বছর পর এবার ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে বেনাপোল বন্দরে ৩৭৬০ কোটি ৩০ লাখ টাকার বিপরীতে ৩৮০৫ কোটি ৭০ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হয়। এর আগে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রার ২০৩ কোটি, ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে ১৩৪ কোটি ৭৩ লাখ, ২০১২-১৩ অর্থ বছরে ৪৫২ কোটি ৮৯ লাখ এবং ২০১১-১২ অর্থবছরে ঘাটতি ছিল ১৯৪ কোটি টাকা।বেনাপোল কাস্টমস হাউসের যুগ্ম কমিশনার (১) জাকির হোসেন দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘এসব সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে তাদের লাইসেন্সের কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত করা হয়েছে। আর পাথর আমদানিতে শুল্ক ফাঁকি দেওয়া ওই সিঅ্যান্ডএফ লাইসেন্সের বিল লক রাখা হয়েছে।

সঠিক নিয়মে সরকারের রাজস্ব আদায়ে যে কোনো ধরনের অনিয়ম প্রতিরোধে স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন বলে ও জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here