বেনাপোল সিমান্তের দুইটি আবাসিক হোটেলে কোয়ারেন্টাইনের ভারত ফেরত যাত্রী করোনায় আক্রান্ত ৫

0
164

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ করোনার দ্বিতীয় ধাপ মোকাবেলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা মোতাবেক বন্দরনগরী বেনাপোলের দুটি আবাসিক হোটেলে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকা ৫ ভারত ফেরত যাত্রীর শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে। করোনায় আক্রান্ত ৫ যাত্রী কে পুলিশি পাহারায় এ্যম্বুলেন্স যোগে যশোর জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১জুন) সকালে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ইউসুপ আলী বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

করোনায় আক্রান্ত ৫ ভারত ফেরত যাত্রী হলো জয়ন্তী রানী ঘোষ (৪৫)মনিকা ব্যানর্জি (৫০)জয় হালদার (৫০)রক্তিম হালদার (১৫) ও রিশপা বাসার (৩৮)। বেনাপোল বাজারস্থ মৌ আবাসিক হোটেল ও চেকপোস্টে অবস্থিত নিশাত বোর্ডিং এ বিগত ১৩ দিন ধরে ভারত ফেরত ঐ ৫ যাত্রী প্রশাসনিক তত্বাবধায়নে নিজ খরচে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে ছিলো বলে জানা যায়।

ভারত ফেরত ভুক্তভোগী যাত্রী রিশপা বাশার এর স্বামী জানান,গত ১৯ ই মে তাহারা বৈধ্য পাসপোর্ট নিয়ে ভারত হতে ফিরে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে ছিলো। আজই ছাড়পত্র পেয়েছে কিন্তু দূর্ভাগ্যবশত তার স্ত্রীর করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। স্ত্রী সুস্থ ও স্বাভাবিক রয়েছে এমনকি শরীরে করোনার কোন উপসর্গ নেই তবুও ফলাফল পজেটিভ এসেছে বলে আরো জানান তিনি।

এ বিষয়ে শার্শা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান, ভারত ফেরত সকল যাত্রী করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়ে দেশে ফিরছে তারপরও সরকারী নির্দেশনায় বাড়তি সচেতনতায় আমরা ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নিবিড় পর্যবেক্ষনে রাখছি। গত ৩১ শে মে তাদের নমূনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছিলো। নমূনা পরীক্ষা করে বেনাপোলের দুটি আবাসিক হোটেলে থাকা ৫ জন ভারত ফেরত যাত্রীর ফলাফল পজেটিভ এসেছে। সংক্রামন রোধে ইতিমধ্যে আক্রান্তদের যশোর ২৫০শয্যা হাসপাতালের করোনা ইউনিটে পাঠানো হয়েছে। সাথে সাথে হোটেল কর্তৃপক্ষকে ঐ পাঁচ যাত্রীর থাকার জায়গা গুলো সঠিক ভাবে স্যানেটাইজের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ।

দেশজুড়ে করোনার নতুন ভেরিয়েন্ট ও শনাক্তের হার বৃদ্ধির মুখে ভারত ফেরত ৫ যাত্রীর করোনা পজেটিভ খবরে উদ্দিগ্ন হয়ে পড়েছে এলাকার জনগন। ভাইরাসের সংক্রামন রোধে বেনাপোলবাসী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আবাসিক হোটেল গুলোকে ( প্রাতিষ্ঠানিক কোয়রেন্টাইন ) যথাযথ ভাবে স্যানিটাইজ করা সহ প্রশাসনিক নজরদারী বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছেন।