বৈশাখ এলেই বেড়ে যায় যশোরের পাখির বাসার চাহিদা, রপ্তানি হচ্ছে ইউরোপেও

0
659

ডি এইচ দিলসান : বাশের চাটায়, খেজুরের পাতরা, বিচলী, খড় দিয়ে তৈরি হচ্ছে বাবুই পাখির বাসা, কারিগরা তাদের নিপুন হাতের ছোয়ায় গড়ছেন হরেক রকমের পাখির বাসা। যে বাসা গুলো দেশের বাজারে যেমন চাহিদা, তেমনি চাহিদা দেশের বাইরেও। আর পহেলা বৈশাখ এলেই দেশের অভ্যান্তরে এ পাখির বাসা গুলোর চাহিদা বেড়ে যায়। আর দেশের ভেতর আর বাহিরের চাহিদার কারনে যশোর সদরের বাহাদুর, চাউলিয়া, কচুয়া এবং শহরের বেজপাড়া বুনোপাড়ায় নারকেলের ছোবড়া, বাঁশপাতা, বাঁশ, বেত, পাট, বিছালী এবং সুতা দিয়ে বোনা পাখির বাসায় দুই শতাধিক নর-নারী নিজের পরিবারকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করছেন। খাঁচায় পোষা পাখির জন্যেই বোনা এই পাখির বাসা দেশ ছাড়িয়ে সুদুর ইউরোপের বিভিন্ন দেশেও যাচ্ছে। আর বিনিময়ে দেশে আসছে বৈদেশিক মুদ্রা।

যশোর সদরের ডাকাতিয়ার ঋষিপাড়ার পাখির বাসা বোনার কাজে জড়িত রমেন ও সুরেশের সঙ্গে কথা বলে নানা তথ্য জানা গেলো। ঋষি সম্প্রদায়ের পুরুষেরা বাঁশ আর বেত দিয়ে পাখির ছোট্ট বাসা বুনে। আর নারীরা তৈরি করে বাঁশপাতা, নারকেলের ছোবড়া, পাট, সূতা দিয়ে। তিন সাইজের বাসা তৈরি করা হয়। বড়, মাঝারি এবং ছোট সাইজের এইসব পাখির বাসা তৈরিতে ব্যবহার করা হয় ব্যবসায়ীর সরবরাহকৃত পাট ও সূতা। নারকেলের ছোবড়া দিয়ে নির্দিষ্ট ডায়াসের ওপর পাখির বাসার আকৃতিতে বানানো দড়ি জড়িয়ে সুই সুতার বুননির মাধ্যমে বাসা তৈরি করা হয়। নারীরা সাংসারিক কাজের ফাঁকেই দিনে ৭০-১৪০টি বাসা তৈরি করতে পারেন। মজুরি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে প্রদান করা হয়।
আরো জানা যায় প্রত্যেকটা বাসা প্রকারভেদে ৪০ থেকে ১৫০ টাকা মুল্যে তারা বিক্রী করে থাকেন।

সরজমিনে যশোর সদরের ডাকাতিয়ার ঋষিপাড়ায় গিয়ে কারিগরদের সাথে কথা বলে জানা গেলো যশোরে তৈরি শৌখিন পাখির বাসা ইউরোপের ছয় দেশে রপ্তানি হচ্ছে। এতে বছরে কোটি টাকার সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা আসছে দেশে। এর মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়েছে এ অঞ্চলের হাজারো নিম্ন আয়ের মানুষ।
ইউরোপের জার্মানি, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস, স্পেন ও পর্তুগালের বিভিন্ন শহরে শৌখিন পাখি উৎপাদনের খামারে যাচ্ছে ৪০ ধরনের পাখির বাসা। তবে পুঁজির সংকটের কারণে এ পণ্যের রপ্তানি বাণিজ্যে যতটা প্রসার ঘটার কথা ছিল, ততটা ঘটেনি বলে দাবি উদ্যোক্তাদের।

এক নারী চায়না সাহা বলেন, পাখির বাসা তৈরির জন্যে বাড়তি সময় দিতে হয় না। তবে বাড়তি উর্পাজন হয়। এছাড়াও কথা হয় ঝর্না সাহা, অনামিকা, মিনা খাঁ, প্রভাতীসহ অনেকের সঙ্গে। তারা জানান, ৩৫/৪০ বছর আগে থেকে আমরা এই কাজে জড়িত।
এ বিষয়ে গৌরাঙ্গ সাহা জানান, প্রতিমাসে অন্তত এক ট্রাক বাসা যশোর থেকে সরবরাহ করা হয়। বৃহস্পতিবারও এক ট্রাক বাসা ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
তিনি বলেন, ইউরোপের অষ্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম, জার্মান, নিউজিল্যান্ডসহ থাইল্যান্ডে যচ্ছে বাংলাদেশে তৈরি পাখির বাসা। এই কাজে যশোরের ২ শতাধিক নর-নারী সরাসরি জড়িত বলে তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here