বৈষম্য লোপ শুরু হোক পরিবার থেকে

0
348

রাজিয়া সুলতানা : একজন শিশু কখনও নারী হিসেবে জন্ম নেয় না। কিন্তু বড় হওয়ার সঙ্গে পরিবার ও সমাজ তাকে নারী হিসেবে বেড়ে উঠতে শেখায়। পুত্রসন্তানকে বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখতে শেখানো হয়। অন্যদিকে মেয়েদের স্বপ্ন দেখানো তো দূরের কথা, সব ক্ষেত্রে থাকে তার স্বপ্নকে শৃঙ্খলার দ্বারা দমিয়ে রাখার প্রচেষ্টা।

একটা মেয়েকে নিয়ে পরিবারের সর্বোচ্চ স্বপ্ন থাকে তাকে একজন বিত্তবান পুরুষের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া। যেখানে মেয়েটা সুখে থাকবে, তার কোনো আর্থিক অনটন থাকবে না। কিন্তু আদৌ দেখা হয় না, মেয়ে এই বিয়েতে রাজি কি-না। তার মতামতও নেওয়া হয় না বেশিরভাগ ক্ষেত্রে। বাবা-মা যেমন ভাবেন বিয়ের আগে একজন ছেলের স্বনির্ভর হওয়া প্রয়োজন; কিন্তু মেয়ের বেলা তেমনটা ভাবেন না।
সময়ে মেয়েরা শিক্ষায় অনেক অগ্রসর হয়েছে। কিন্তু দেখা যায়, রেজাল্ট ভালো হওয়ার পরও এসএসসি কিংবা এইচএসসির পর অনেক মেয়ে পড়ালেখা থেকে ঝরে যায়। এর পরবর্তী পর্যায়ের শিক্ষায় যারা টিকে থাকে, তাদের মোকাবেলা করতে হয় নানা প্রতিকূলতা। তখন মা-বাবাই প্রশ্নটি প্রথম তোলেন, মেয়ে একা বাইরে গিয়ে পড়ালেখা করবে কীভাবে? সে যদি পড়ালেখায় ব্যস্ত থাকে, তাহলে সংসার দেখাশোনা করবে কে? গৃহস্থালি কাজে কে করবে সহায়তা? প্রশ্ন হলো, মেয়ে হয়ে জন্মানোটাই কি তাহলে কারও অযোগ্যতা?
বর্তমান সময়ে একজন নারীর কাছে সবচেয়ে বড় দুশ্চিন্তার বিষয় তার নিরাপত্তা। অদম্য ইচ্ছা থাকলে হয়তো সবকিছুই জয় করা সম্ভব। কথা হলো, প্রতিটি পথেই যাকে বাধার সম্মুখীন হতে হয়, সে আর কতদূর এগোবে? অনেকে হয়তো বলতে পারেন, এ জন্য মেয়েদের পোশাক-পরিচ্ছদই দায়ী। কিন্তু হিজাব বা বোরকা পরিহিত মেয়েরা কি আমাদের সমাজে আদৌ নিরাপদ? এখনও একটা ধারণা অনেকের মনে বদ্ধমূল যে, নারী মানেই রূপের আধার। ভোগের মাধ্যমেই নিশ্চিত হয় তার যথার্থ ব্যবহার। আর এই ফাঁদে দাসত্বের শৃঙ্খলে আটকে আছে নারী সমাজ।
সম্প্রতি শিক্ষিত মেয়েদের নিয়ে সমাজে একটি নতুন সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। তারা নাকি পতিভক্তি জানে না। এ জন্য তাদের দোষারোপ করা হয়। প্রশ্ন হলো, একজন শিক্ষিত মানুষ কি কখনও অন্যের দাসত্ব মেনে নেবে? নিজেকে বন্দি করবে সামাজিক কুসংস্কারের বেড়াজালে? এটা যদি সে করেই, তাহলে তার পড়ালেখা করে লাভ কী? নারীর সমান অধিকার নিয়েও এখন কথা শোনা যায় অনেক। তাদের উদ্দেশে বলি, সমান অধিকারের আগে আত্মনির্ভরশীলতা নিশ্চিত করুন। প্রমাণ করুন, মানুষ হিসেবে আপনি কোনো অংশে কম না। সবার আগে আপনার ‘মানুষ’ হিসেবে বেঁচে থাকাটা জরুরি।
বংশপরম্পরায় আমাদের সমাজে টিকে আছে পুরুষতান্ত্রিকতা। ফলে পুরুষের পৌরুষ্য টিকিয়ে রাখার জন্য চলে নারীর ওপর কর্তৃত্ব ফলানোর প্রাণান্ত প্রচেষ্টা। খুব কম পুরুষই আছেন যারা নারীর ওপর অন্যায় নিয়ন্ত্রণকে পাশবিক মনে করেন। মায়ের কিংবা বোনের মতো স্ত্রীরও যে মানুষ হিসেবে বাঁচার অধিকার আছে, এমন চিন্তার অধিকারী পুরুষ সমাজে বিরল। স্বীকার করতে দ্বিধা নেই, এ মানসিকতা তারা অর্জন করেন পরিবার থেকেই।
এ জন্য প্রথমে আমাদের মানসিকতা পরিবর্তনে পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি। সন্দেহ নেই, এ শিক্ষা আসতে হবে মা-বাবার পক্ষ থেকেই। নারীর বিরুদ্ধে বৈষম্য প্রথম দূর করতে হবে পরিবার থেকে। নিশ্চিত করতে হবে, সন্তান ছেলে কিংবা মেয়ে যা-ই হোক, কেউ কারও অপেক্ষা ক্ষুদ্র নয়। প্রত্যেকে নিজ নিজ বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ। প্রত্যেক পরিবার যদি এ ব্যাপারে এগিয়ে আসে, তাহলে অবস্থার ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটতে বাধ্য। মনে রাখতে হবে, জগতে প্রত্যেকে আসে স্বাধীন মানুষ হিসেবে। শুধু নারী হিসেবে জন্মগ্রহণ করার কারণে কাউকে দমিয়ে রাখার অধিকার কারও নেই।
শিক্ষার্থী, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here